সত্য বলা, চলা ও প্রচারই হোক বিসর্গের ভাষা...

বাংলা ভাষা এবং ইসলাম - সংঘাত নাকি সমন্বয়

ভাষা নিয়ে ভাষাবিদরা ভাষার অনেক সংজ্ঞা দিয়েছেন॥ অ্যাডওয়ার্ড স্যাপির Language নামক বইতে ভাষার সংজ্ঞা দিয়েছেন, "ভাষা হচ্ছে স্বেচ্ছায় উৎপাদিত প্রতীকের সাহায্যে ভাব, আবেগ ও কামনা সংজ্ঞাপনের সম্পূর্ণ মানবিক ও অপ্রবৃত্তিগত পদ্ধতি॥"
তবে বাংলা ভাষার উৎপত্তি সংস্কৃত ভাষা থেকে কি না এ নিয়ে মত ভিন্নতা রয়েছে। ড মুহাম্মদ শহীদুল্লাহর মতে," সংস্কৃত থেকে সরাসরি বাংলা ভাষার উৎপত্তি হয়নি। তার মতে ভাষা প্রবাহের মধ্যে বাঙলার পূর্বে অপভ্রংশ এবং প্রাকৃত যুগের প্রমাণ মিলে। [সুত্র : বাঙালা ভাষার ইতিবৃত্ত, ১৯৯৯, পৃ- ২৬ -২৭।]"
ড এনামুল হকের মতে, "মাগধী প্রাকৃত থেকেই বাঙলা ভাষার উৎপত্তি। [সুত্র : মুহাম্মদ এনামুল হক, বাঙলা ভাষার ক্রমবিকাশ, ১৯৯৪, পৃ-১১৩ -১১৪।]"

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3 (2টি রেটিং)

সারি নদীর শীতল জলে..

Normal
0

false
false
false

EN-US
X-NONE
BN-BD

আপনার রেটিং: None

মেঘালয়ের উপত্যকা

শীত প্রায় শেষ, সামনেই বসন্তের আগমন, ভোরের শীতল বাতাস কনকনে শিহরণ জাগিয়ে দিনের শুরু..... 

একটি গাড়ি ছুটে চলছে উঁচু নিচু পথ ধরে, আমরা ক’জন চলছি মেঘালয় প্রান্তরের উদ্দেশ্যে। দু'পাশে বিস্তীর্ণ মাঠ, চারণ ভূমিতে চরে বেড়াচ্ছে গরু ও মহিষের পাল, যতদূর চোখ যায় বিস্তীর্ণ মাঠ পেরিয়ে মেঘালয়ের উঁচু পাহাড় দাঁড়িয়ে আছে কালের সাক্ষী হয়ে, সত্যিই মনোরণ দৃশ্য। 

বসন্তের বাতাস উষ্ণ ছোঁয়া বয়ে যাচ্ছে হৃদয় স্পন্দনে, সত্যি ভালো লাগছে। গাড়ীতে হাসি, ঠাট্টা ইত্যাদিতে বয়ে চলছে সময়। নতুন পথ চারিদিকের মনোরম দৃশ্য দেখে সবাই মুগ্ধ। দিগন্তে যত দূর চোখ যায় ততই বিস্মিত হচ্ছি, কখনো বিশাল মাঠ পেরিয়ে গ্রামের গাছপালার সাথে মিশে গেলে আকাশের নীল সীমারেখা, দু'পাশের মনোরম দৃশ্য দেখতে দেখতে পৌঁছে গেলাম গন্তব্যে...........

যুগ যুগান্তরের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে মেঘালয়ের উপত্যকা, কত কাল পেরিয়ে গেছে কে জানে! 

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4 (টি রেটিং)

একটি শিক্ষনীয় গল্প সবাই মনোযোগ দিয়ে পড়বেন আশা করি ।

"এক ছেলে মাদ্রাসায় পড়াশুনা করত। ছেলেটা মাদ্রাসায় যাওয়ার সময় একটি মেয়ে সব সময় তাঁর দিকে তাকিয়ে থাকে, তাঁর সাথে কথা বলতে চায় !

কিন্তু সেই ছেলেটি আবার আমার আপনার মত ক্যারেক্টার ঢিলা ছিল না !

সে কোনো বেগানা নারীর দিকে তাকাতে চায়না, চায়না কথা বলতে ! হয়তো এরকম এভয়েড এবং মেয়েদের দিকে তাকানোর অনীহা দেখে সেই মেয়েটি আরো ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে !!

একদিন মেয়েটা ছেলেটিকে তার খালি বাড়ীতে ডাকলো ! কিন্তু ছেলেটি রাজি হলনা । কিছুদিন পর মেয়েটি একটা কৌশল খাটাল -- মেয়েটা তাদের এক দাসীকে শিখিয়ে দিলে যে , ছেলেটাকে বলবে যে, এ বাড়ীতে একটা ছোট বাচ্চা আছে, বাচ্চাটা খুব কান্না- কাঁটি করতেছে, আপনি একটু এসে বাচ্চাটাকে সূরা -কালাম পাঠ করে ঝাড়- ফুঁক দিয়ে যান, দাসীটা এ মিথ্যা কথা বলে ঐ মাদরাসার ছেলেটাকে বাড়ির ভেতর নিয়ে গেলো !

তারপর সে দুষ্ট মেয়েটা ছেলে টাকে নির্জন একটা রুমে বন্দি করল, ছেলেটার কাছে নিজেকে সঁপে দিতে চাইলো !!

আপনার রেটিং: None

"সেই প্রথম অনুভূতি"

বাবার দেয়া প্রথম উপহার ও আমার অনুভূতি

পৃথিবীর সন্তানের জন্মের শুরুলগ্ন থেকেই বাবা মা থেকে উপহার পেতে থাকেন। বাবা-মায়ের দায়িত্ব পালন শুরু হয় সন্তান ভূমিষ্ঠের পূর্ব থেকেই। আর প্রত্যেক বাবা-মা-ই সন্তানের মুখে হাসি দেখতে ভালোবাসে নিজে সিমাহীন কষ্ট সহ্য করেও। নিজেরা কষ্ট করে হলেও সন্তানের আবদার পূরনে তাদের পূর্ণ খেয়াল রাখেন। তারা নিজেরা না খেয়ে, না পরে হলেও সন্তানকে পরিপূর্ণতা দিতে চান, দেন। বাবা-মায়ের ভালোবাসাই এমনই হয়। কোন বাবা-মাকেই তাদের সন্তানের ভালোবাসা থেকে আলাদা করা যায়না কোন বিনিময় ছাড়াই তারা সন্তানের সকল আবদার পূরন করেন। কোন বিনিময় ছাড়াই সন্তানকে ভালোবেসে যান আজীবন।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

আসুন ব্লগার অভিজিত্‍ রায় সম্পর্কে জেনে নেই

নর্দমার কিট নাস্তিক অভিজিৎ নাকি বিশাল এক ব্যাজ্ঞানি ছিল । এই চটি লেখক মুত্রমনা নামক একটি ব্লগ বানিয়ে সেখানে তাঁর ব্যাজ্ঞানচর্চা চালাতো। আসেন দেখি সেখানে সে কি কি বিজ্ঞানের সুত্র আবিস্কার করেছিল...!!!

ব্যাজ্ঞানি অভিজিৎ এর সুত্র দেখে মরারে আবার মারার কথা কেউ চিন্তা কইরেন না। এখন চিন্তার সময় এসেছে এইরাম বিশাল ব্যাজ্ঞানী ভোগে চলে যাওয়ায় যারা সেই ইস্যু নিয়ে ইসলামকে গালাগাল করার টেন্ডার নিয়েছে তাঁদের বিষয়ে বিহিত করা। আগে কিছু বিখ্যাত সুত্রগুলো দেখি -

১. “মুহাম্মদের যতই বুদ্ধি আর সাহস থাকুক না কেন, আজকের যুগে তার জন্ম হলে তিনি একজন বিন লাদেন, হিটলার বা বড়জোর একজন চেঙ্গিস খান হতে পারতেন, নবী হতে পারতেন না।”
বিস্তারিত দেখতে চাইলে ( http://goo.gl/uZL7Uu) লিঙ্ক থেকে ঘুরে আসুন।

২) "মুহাম্মদের ইসলাম অমুসলিমদের রক্ত পান করে বড় হয়েছিল, মুহাম্মদের মৃত্যুর পর থেকেই নিজেদের রক্ত মাংশ খেয়ে আজ পর্যন্ত বেঁচে আছে।"
বিস্তারিত দেখতে এখানে যান ( http://goo.gl/w4tLWF)

৩) "রেইপিষ্ট পাকিস্তানী আর আল্লাহর মধ্যে পার্থক্য কতটুকু? এই আল্লাহর পুজো মানুষে করে?"

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

সন্ত্রাস

মদ গাঁজার আর নষ্টামিতে ভরা ফ্ল্যাশ
সমাজে এক আতঙ্কের নাম সন্ত্রাস।
অন্ধকারে চোরাকারবার দিবালোকে নেতা,
অপহরণ মান্ডার যত তারাই আবার হোতা।
জানের ভয়ে মুখ খুলে না কেউ
অন্তরে উত্তাল পাতাল বেদনারই ঢেউ।
রাজনৈতিক আশ্রয় তাদের বড় শক্তি,
তেতাল্লিশ বছর পরও জাতি পাইনি মুক্তি।
রাজনৈতিক মঞ্চে জ্বালাময় কন্ঠে
দেশের জন্য দিয়েছি অনেক রক্ত,
বিশ্বাস না করে কি উপায় আছে ভাই?
তাদের তো আছে হাজার খানেক ভক্ত।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 2 (টি রেটিং)

সে'কি আসবে ফিরে - - -? ( ধারাবাহিক উপন্যাসঃ পর্ব - পঞ্চম )

অপরিচিত কোন এক নম্বর থেকে ফোন-----
নিলয়ঃ হ্যালো কে?
ঔপাশ থেকে কান্না জড়িত কন্ঠে আমি তসিবা---
নিলয়ঃ তোমার মোবাইল বন্ধ কেন?
তসিবাঃ আব্বু আমার ফোন নিয়ে ফেলেছে।
নিলয়ঃ কেন?
তসিবাঃ তারা নাকি আমার বিয়া ঠিক করে ফেলেছে। আগামী চব্বিশ তারিখ আমাকে দেখতে আসবে?
নিলয়ঃ তুমি কি আমার সাথে ফাইজলামি করছো?
তসিবাঃ তোমার কি তাই মনে হয় ? আমি এতোক্ষণ যায় বলেছি সিরিয়াসলি বলছি। প্লিজ কিছু একটা কর তাড়াতাড়ি। তোমাকে ছাড়া আমি থাকতে পারবো না। রাগ করে
মোবাইলের লাইন কেটে দিলাম।

ছবি: 
আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

চলুন আইনস্টাইন সম্পর্কে কয়কটি মজার তথ্য জেনে নেই ।

১। আইনস্টাইনকে প্রাচীন গণিতের ইতিহাসবিদ অটো নিউগেব্যুর বলেছেন, ‘কিংবদন্তি’। কিন্তু এই কিংবদন্তি মানুষটি তুলনামূলক দেরিতে কথা বলতে শেখেন। ফলে তাঁর মা-বাবা খুব দুশ্চিন্তায় পড়ে যান। তো, একদিন রাতে খাবার টেবিলে সবাই আছেন। আইনস্টাইনও। হঠাৎ তিনি চিত্কার করে বললেন, ‘এই স্যুপটা খুবই গরম’। উহ্, হাঁপ ছেড়ে বাঁচলেন মা-বাবা। ছেলের মুখে প্রথম বুলি শুনে তাঁরা আইনস্টাইনকে জিজ্ঞেস করলেন, ‘এর আগে কেন তুমি কোনো কথা বলোনি?’ জবাবে আইনস্টাইন বললেন, ‘কারণ, এর আগে সবকিছু ঠিকঠাক ছিল’!

২। অনেকের কাছে অঙ্কের সমার্থক শব্দ আতঙ্ক। তো, একবার ১৫ বছর বয়সী এক তরুণী আইনস্টাইনের কাছে সাহায্য চাইল। গণিতের ওপর বাড়ির কাজ বা হোম ওয়ার্ক সে সঠিকভাবে করতে পারছিল না। তরুণীর কাছে অঙ্ক এমনিতেই আতঙ্কের নাম। আইনস্টাইন ওই তরুণীকে বলেছিলেন, ‘গণিতের সমস্যা নিয়ে খুব বেশি দুশ্চিন্তা করো না। তোমার কাছে গণিত যতটা কঠিন, আমার কাছে গণিত তার চেয়েও কঠিন’।

৩। একবার এক ছাত্র আইনস্টাইনকে জিজ্ঞেস করল, ‘গত বছর পরীক্ষায় যেসব প্রশ্ন পড়েছিল, এবারে

আপনার রেটিং: None

খোলা চিঠি

প্রাণপ্রিয় ,

ছবি: 
আপনার রেটিং: None
Syndicate content