'মোহভঙ্গ' -এর ব্লগ

রাজনীতিবিদরা আল্লাহর এক বিচিত্র সৃষ্টি!

রাজনীতিবিদরা আল্লাহতাআলার এক বড় বিচিত্র ও অদ্ভুত সৃষ্টি। এরা ঠাণ্ডা মাথায় হুকুম দিয়ে নৃশংসভাবে নিয়মিত মানুষ হত্যা করাতে পারে। এদের চোখের সামনে প্রতিদিন ডজন ডজন মানুষ জীবন্ত পুড়ে মরলেও এদের মাঝে কোনরূপ বিকার বা ভাবান্তর লক্ষ্য করা যায় না। তখন এনাদের হাবভাব দেখলে মনে হয়, যেন কিছুই হয়নি। যেগুলো পুড়ছে ওগুলো যেন আদৌ কোন প্রাণীই নয়, বরং ঝরে পড়া শুকনো পাতা। অথচ এরাই আবার যখন কোন দুর্ঘটনা বা প্রাকৃতিক দুর্যোগে মানুষের প্রাণহানি ঘটে, তখন ঠিকই শোক প্রকাশে ও সহানুভূতি প্রদর্শনে কার্পণ্য করে না। প্রয়োজনে দুর্গত এলাকায় ছুটে গিয়ে দু:খী মানুষের মাথায় হাত বুলিয়ে দিয়ে মানবদরদী বনে যায়। দুর্ঘটনার পিছনে কারো দায়িত্বহীনতা বা অবহেলা ছিল কিনা সেটা নিয়েও তদন্ত শুরু করে দেয়। সুবহানাল্লাহ! সত্যিই মাবুদ, তোমার সৃষ্টি কতই বিচিত্র ও বিস্ময়কর! فَبِأَيِّ آلَاء رَبِّكُمَا تُكَذِّبَانِ

আপনার রেটিং: None

গণতন্ত্র বনাম ইসলাম [সবার জানা একটা ঐতিহাসিক ঘটনার আলোকে]

গণতন্ত্র আর ইসলামের পার্থক্য বোঝার জন্য একটা ছোট্ট উদাহরণই যথেষ্ট। আমরা সবাই জানি, ইবলীস আদমকে সেজদা করেনি। আল্লাহর একটি হুকুমকে অস্বীকার ও দম্ভভরে প্রত্যাখ্যান করায় সে অভিশপ্ত শয়তানে পরিণত হয়। কিন্তু কেউ ভেবে দেখেছি কি, গণতন্ত্রের দৃষ্টিতে এ ঘটনাটা কিরূপ? গণতন্ত্রের প্রচলিত ধারণা এ পর্যন্ত যতটুকু জেনেছি, তাতে কে কাকে সেজদা করল বা না করল, এটা কোন অপরাধ হবার কথা নয়। সেজদা করতে বললেই কি করতে হবে নাকি? তার সেজদা করতে মন চাইলে করবে, না চাইলে না করবে, কিংবা যাকে যখন ইচ্ছা সেজদা করবে, এ তো তার ব্যক্তি স্বাধীনতা, গণতান্ত্রিক অধিকার। কিন্তু ইসলামের দৃষ্টিতে সৃষ্টির পক্ষে জেনেশুনে স্রষ্টার হুকুম অমান্য করাটাই সবচেয়ে বড় অপরাধ। আর আল্লাহর সামনে নিজের অবাধ্যতার পক্ষে যুক্তি প্রদর্শন করাটা ক্ষমাহীন ধৃষ্টতা।

আপনার রেটিং: None

ইসলামের দৃষ্টিতে সহিংসতা ও নিষ্ঠুরতা

বাংলাদেশে চলমান সহিংস রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের পক্ষে যে একমাত্র যুক্তিটি দেখানো হয় তাহল:- অহিংস পদ্ধতিতে উদ্দেশ্য হাসিল করতে না পারলে বা এতে বাধাপ্রাপ্ত হলে সহিংস পন্থা অবলম্বনের প্রয়োজন হয়। কথাটা সত্য। কিন্তু এর জন্য তিনটি শর্ত রয়েছে:-

(১) উদ্দেশ্যটা সৎ হতে হবে
(২) (উদ্দেশ্য সাধনে) অহিংস পদক্ষেপটা আল্লাহর নির্দেশিত পন্থায় হতে হবে
(৩) (অহিংস পন্থা ব্যর্থ হলে বা অসম্ভব মনে হলে) কোন কারণে কোনপ্রকার সহিংস পদক্ষেপ নিতে হলেও সেটা আল্লাহর অনুমোদিত পদ্ধতিতেই হতে হবে

অর্থাৎ, অহিংস বা সহিংস যে পদ্ধতিই গ্রহণ করেন, শান্তি বা যুদ্ধ যাই করেন; আল্লাহর পথে থেকেই করতে হবে, আল্লাহর নির্ধারিত সীমানার বাইরে গিয়ে কিছুই করা যাবে না। কোনরূপ ছলচাতুরী বা চালাকি করে নিজেদের খেয়ালখুশীটা আল্লাহর উপর চাপিয়ে দেয়া যাবে না।

এবার বাংলাদেশে যা হচ্ছে তা কতটা ইসলামসম্মত, সেটা যাচাই করার জন্য উপরোল্লিখিত পয়েন্টগুলো একটু খোলাসা করে ভাঙ্গিয়ে বলা যাক।
আপনার রেটিং: None
Syndicate content