'আবু সুফিয়ান' -এর ব্লগ

চাই অনন্ত ভালোবাসা ...

পৃথিবীর বহু মানুষের ভীড়ে, আমার এই ক্ষুদ্র বিচরণে,
ভালোবেসেছি হৃদয় দিয়ে, যখন যাকে কাছে পেয়েছি।
আর প্রকাশ করার চেষ্টা করেছি নিজেকে উদার চিত্তে,
না হয় তাদেরকে স্থান দিয়েছি হৃদয়ের গভীর বৃত্তে।
হাসিমুখে কথা বলেছি, যখন যাদের যেভাবে পেয়েছি।
ভালোবাসার চেষ্টার করেছি, হৃদয়ের সবটুকু উজাড় করে।
কারো হৃদয়ে, আমার অবস্থান হয়তো অনেক উঁচুতে।
আবার কারো হৃদয়ে হয়তো আমি অনেক নিচুতে।
তবে এই উঁচু নিচুর ব্যবধানে, আমি আমার স্থানেই আছি।
আমি চাই, আমার জীবনে যেটুকু সময় সামনে পাবো,
আমি সকলকে হৃদয় দিয়ে ভালোবেসে যাবো।
শুধু আল্লাহর ভালোবাসা পাওয়ার জন্যে।
আর চেষ্টা করবো হাসিমুখে আপ্যায়ন করার।
না হয় একটি সুন্দর মুহূর্ত উপহার দেবার।
যা কিনা বেঁচে থাকবে কাল থেকে কালান্তরে।
আমি মনে করি এর মাঝে রয়েছে জীবনের সার্থকতা।
ক্ষণিকের এই পৃথিবীতে আমরা বাঁচবোইবা ক’দিন?
জীবনে যদি সকলের সুখে দু:খে এগিয়ে যেতে না পারি।
অথবা নিজের স্বার্থের কথা ভেবে দূরে থাকি,
না হয় ঘোমড়া মুখে নিজেকে সরিয়ে রাখি,

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.5 (2টি রেটিং)

নির্মম আগ্রাসন!

২৫ শে মার্চের কালো আঁধারে,
বাংলার নিরীহ মানুষের উপর,
সেদিন হামলা করেছিল পাক হানাদার বাহিনী।
স্টেনগানের শন-শন গুলির আওয়াজে,
কেঁপে উঠেছিল বাংলার আকাশ-বাতাস।
চারিদিকে হত্যা, লুণ্ঠন আর বিভীষিকা।
নিষ্ঠুর সে রাতে হারিয়ে গেল কত জ্ঞান, কত স্বপ্ন,
কত চাওয়া-পাওয়া, কত আদর-স্নেহ-ভালোবাসা।
আগামীর সোনালী প্রভাত দেখবে বলে,
ঘুমিয়ে ছিল কত নাম না জানা মানুষ।
রাতের কালো আঁধারে সেদিন তারা,
চিরদিনের মত নীরবে ঘুমিয়ে গেল।
মার্চ তুমি বাঙালির রক্ত ঝরার মাস,
প্রতিবাদের মাস, স্বাধীনতার স্বপ্নের মাস,
হাজারো বাঙালির জেগে উঠার মাস,
ত্রিশ লক্ষ শহীদের শপথ নেয়ার মাস,
স্বাধীন বাংলা গঠনের দৃঢ় প্রত্যয়ের মাস।
শহীদদের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় স্মরণ করার মাস।
আমার প্রিয় বাংলা ৭১ এর সেই কালো রাত,
আমাদের শিখিয়েছে তোমাকে ভালোবাসতে,
তোমার তরে জীবন বিলিয়ে দিতে,
তোমার সম্মান রক্ষা করতে,
পৃথিবীর বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে,
সম্মান নিয়ে বঁচে থাকতে।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

বিজয়ের হাসি!!!

আমি দেখিনি মুক্তিযুদ্ধ
শুনেছি যুদ্ধের গল্প বাবার মুখে
পাক হানাদারি আগ্রাসনে
কেঁপে উঠেছিল সেদিন
বাংলার আকাশ বাতাস
চারিদিকে লাশের মিছিল
রক্তে রঞ্জিত হয়েছিল পবিত্র ভূমি
রাতের কালো আঁধারে
নিভে গেল অসংখ জীবন
হারিয়ে গেল কত না বলা স্বপ্ন
কত নিষ্পাপ প্রাণ চলে গেল
অন্ধকার মাড়িয়ে আলোর জগতে
স্বাধীনতার স্বপ্ন বুকে নিয়ে
আমার বাবা চলে গেলেন যুদ্ধে
ধরে রাখতে পারেননি সেদিন নিজেকে
বীর বিক্রমে ঝাঁপিয়ে পড়লেন
হানাদার বাহিনীর উপর
মা আর মাটির জন্যে
মুখের ভাষার জন্যে
বাংলার মানুষের মুক্তির জন্যে
একটি হাসি ফিরিয়ে দেয়ার জন্যে
এদেশকে শত্রু মুক্ত করার জন্যে
স্বাধীনভাবে বেঁচে থাকার জন্যে
আমার বাবার মত সেদিন
মুক্তির চেতনায় নিবেদিত লক্ষ প্রাণ
গিয়েছিলেন মুক্তিযুদ্ধে...
দেশকে মুক্ত করতে গিয়ে
শহীদ হলেন তাঁরা, চলে গেলেন অদৃশ্য জগতে
তাঁদের জীবনের বিনিময়ে

আপনার রেটিং: None

সভ্যতার হিংস্র রূপ!

হৃদয়ের মাঝে শুনি আজ অসহায় হৃদয়ের আর্তচিৎকারের ধ্বনি
কত ফুটফুটে জীবন বিলীন হয়ে গেলে এই ধরণীর
হিংস্র হায়েনারা মেতে উঠেছে আজ এক অপ্রতিরোধ্য খেলায়
চারিদিকে হচ্ছে খুন, ধর্শন আর ইভটিজিং
উল্লাসে বিভোর হিংস্ররতা করে ঘুরে ফিরে যারা
দিনের গণনায়, বিয়োগের ধারপাতে, নেই যেন আজ কোন প্রতিকার
কত অভাবিত প্রাণ চেয়েছিল অধিকার এই নববায়
আমার দেশের হাজারো মা-বোন যেন সম্ভম হারিয়েছে
কাঁদে যেন তারা নিরবে নিভৃত্তে সারাবেলায়
তারা যেন আজ বড় অসহায় এই হিংস্র তান্ডবের কালো ছায়ায়
বাংলার হাজারো মা বোনেরা যেন নিস্তার পায়নি তাদের কালো থাবা থেকে
তাদের এই হিংস্র তান্ডবে যেন অতিষ্ট জগতের অলিতে গলিতে
ধরার মাঝে আছে যেন কিছু মানুষরূপী ইয়াযুয মাযুয
তাদের যেন মা বোন ভাগিনী কিছুই নেই
প্রয়োজন নেই যেন তাদের দ্বীন ধর্ম কোন কিছুরই
অসহায় মা বোনেরা যেন আজ ভীত, ঘর থেকে বের হতে ভয় পাচ্ছে
তবে কেন এই ভয়? তাদের রূপ সৌন্দয্য কি তাদের অপরাধ

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

বিয়োগান্তের গোলার্ধে !!!

সুবিশাল উপত্যকার কালো ছায়ায় দাঁড়িয়ে
চেয়ে আছি দিগন্ত পেরিয়ে সুনীল গগণে
অচেনা মেঘেরা পাড়ি জমিয়েছে অজানার পথে
বিশাল আকাশ রাজি গ্রহ নক্ষত্র সবই স্থির আছে
সূর্য যেন প্রতিনিয়তই আলো দিয়ে যাচ্ছে ধরাধামে
বাতাসের কোমল পরশ ছোঁয়া দিয়ে যায় প্রতি ক্ষণে
বাহ! চারিদিকে সৃষ্টির কত রূপ দোলা দেয় যেন এই মনে
দিন রাত্রির প্রত্যাবর্তন যেন নিয়মের ধারাপাতে চলছে
চলমান সময়ের পথ ধরে আমিও চলছি বিয়োগান্তের এই গোলার্ধে
এখানের যত যা কিছু আছে তা সবই আমারই জন্যে
আমি প্রতিনিয়তই ভোগ করে চলেছি দুচোখে দেখা নেয়ামতের
কখনো কি ভেবেছি আজ এ অধ্যাবদি কত নেয়ামত ভোগ করেছি
ভাবিনী শুধুই ভোগ করেই চলেছি নিজের মত করে
আমার সৃষ্টি কি শুধুই ভোগ আর বিলাসের জন্যে?
আমার পথ চলা যেন আজ এক উদ্দেশ্যহীন পথিকের মত
আমি যেন নির্বোধ, বোকা আর অজ্ঞতার অন্ধকারে ডুবে আছি
দু’চোখে যা দেখছি তাই করছি যেন অবলিলায়
কখনো ভাবছি না কি করছি আর পরে কি হবে?
কল্যাণ আর অকল্যাণের মানদন্ড না বুঝেই ঘুরছি

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

কাল বৈশাখীর কালো থাবা!!!!!!!!

সুখীপুর গ্রামের দুই ভাই টুনুমিয়া আর চিকুমিয়া, তারা দুই ভাই ছিল সম্পূর্ণ ভিন্ন, তার মধ্যে টুনুমিয়া পড়াশুনা করা, সখিন ভাবে চলা, ঘুরাফেরা আর খেলাধুলা নিয়ে ব্যস্ত থাকতো, আরেক জন চিকুমিয়া, সে সারাদিন কোথায় মাছ পাওয়া যায়, পাখির বাসা খোঁজা, বাগানে বাগানে ঘোরা, নারিকেল সুপারিসহ তরিতরকারি বেচা-কেনা নিয়ে ব্যস্ত থাকতো। সুখিপুর গ্রামের মানুষগুলো বলতে গেলে অধিকাংশই সুখি ছিল। যারা সুখি তাদের যেন ধনে জনে আল্লাহ সব দিক দিয়ে দিয়েছেন। আর কিছু সংখ্যক ছিল গরিব। যারা দুবেলা দুমুঠো খাবার জোগাড়ে তাদের যেন হিমশিম খেয়ে যায়। টুনুমিয়া আর চিকুমিয়া তাদের সংসারেও এক নির্দারুন কষ্ট বয়ে চলছে যেন কষ্টের অথৈ সমুদ্রে তরঙ্গ মালায় চলতে লাগলো তাদের জীবন। কোন এক কাল বৈশাখি এসে হঠাৎ করে জীবনের এক সুখের ছোঁয়াকে কেড়ে নিয়ে কোথাও উদাও হয়ে গেলো। কষ্টময় জীবনতো আর থেমে নেই, চলছে যেন এক ছলনার ধারাপাতে, কখনো রুটি খেয়ে, কখনো বা ভাতের মাড় খেয়ে আবার কখনো বা উপোশ থেকে, বেদনা ভরা দৃষ্টি যেন তাকিয়ে আছে সেই সোনালী দিনের........................

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.5 (2টি রেটিং)

ওহে সাগর পাল!!!

তোমাকে আমার খুব ভালো লেগেছে ওহে সাগর পাল
তোমারি চিন্তা, চেতনা, মননে যেন খুঁজে পাই
আমি আজ প্রেরণায় সুবিশাল!
তুমি সাগর পাল, কীর্তিনাশার পাড়ে জন্মেছো তুমি
দেখেছো কত নদ-নদী আর খাল।
আমি যেন বসে আছি আজ
এই পর্বত ঘেরা শ্রী হট্টের পাড়
ওহে সাগর পাল তোমার চেতনা দেখে যেন
আমার হৃদয়ে জেগে উঠেছে আজ অপার বিস্ময়
তোমার হৃদয়ে জুড়ে আছে যেন ভালোবাসার সুমধুর স্পন্দন
মাঝে মাঝে তুমি ভাব যেন ব্যধিগ্রস্থ সমাজকে নিয়ে
অথবা অসহায় হৃদয় গভীরের চাওয়া নিয়ে.....
আবার কখনো বা কোলাহল ছেড়ে পাড়ি জমাও নওসবুজের বনে...
দেখে যেন আমি সত্যি মুগ্ধ হই তোমার এ বিচরণে...
ওহে সাগর পাল তোমার আছে সত্যিই এক সুন্দর মনন
সে মননে তুমি সাজাতে পারো যেন এই সুন্দর ভুবন
ব্যধিগ্রস্থ অন্ধ গলিতে কেন দাওনা তুমি আজি প্রেরণার ডাক
সত্য, সুন্দর, সফলতার পথে অগ্রগামী হওনা কেন আজ?
তোমাকে তো সৃষ্টিকর্তা দিয়েছেন জগতে জ্ঞান, বুদ্ধি আর শান
তবে কেন তুমি ভাবনা সৃষ্টিকর্তার জ্ঞান মহীমার দান?

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

স্বপ্নীল পৃথিবী!!!

কত সুন্দর এই পৃথিবী, যত দেখি ততই যেন মধুর লাগে
রঙিন স্বপ্নরা যেন আজ হাতছানি দিয়ে ডাকছে আমায় এই মনে
ভ্রমরের গুনজনে, পাখির কোলাহলে, মাতানো দুপুরে বাতায়নে চেয়ে থাকা
বসন্তের মধুর হাওয়ায় অথবা পাতার নড়ে উঠা শব্দে
কখনো বা ক্লান্ত দুপুরের শীতল বাতাসে, গাছের ছায়ায় হৃদয় জুড়িয়ে,
আহা! পৃথিবীর বসন্ত ছোঁয়া লেগেছে যেন মনের গহীনে..
প্রতিটি দিন যেন শুরু হয় হৃদয়ে জমে থাকা স্বপ্ন নিয়ে
রঙিন স্বপ্নের বেড়ে উঠার দিন গুলো নাড়া দেয় যেন হৃদয় গভীরে
কত চাওয়া পাওয়ার স্বপ্ন বুকে নিয়ে চলছি আমি স্বপ্নীল ভুবনে
পৃথিবীর কঠিনতম নিয়মে ক্লান্ত, শ্রান্ত, ভারাক্রান্ত এই মনে
স্বপ্নীল পৃথিবীর স্বপ্নরা যেন আজ দোলা দেয় ক্ষণে ক্ষণে
তৃষিত হৃদয়ে বেজে উঠে প্রেরণার সুর বারে বারে
মনে হয় আমি হারাবোনা কখনো ধরনীর তলে
আমি বেঁচে রবো বহুকাল স্বপ্নীল এই পৃথিবীতে
আমি সাজাবো এক সুন্দর ভুবন আমারি স্বপ্নের সাঝে
কল্পনায় ভেবে ভেবে আমি যেন ব্যাকুল আজি এ মায়াজালে
বাস্তবতার কষাঘাতে মাঝে মাঝে হই যেন পথহারা পথিক

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

পথের ক্লান্তি.......

পিচঢালা এই পথ, যেন চলে গেছে বহুদূর....
আমিও চলেছি আজ সে পথ ধরে
হৃদয়ের মাঝে শুনি যেন সে পথের করুণ সুর
যতদূর যাই তব খুঁজে পাই তাই
শেষ যেন নাহি তার এই ধরায়
বৃক্ষরাজি, পাহাড়-পর্বত পাড়ি দিয়ে
চলে গেছে যেন আরো দূর-বহুদূর
আমিও তাকিয়ে আছি যেন
ঐ পথের প্রান্ত ছেড়ে আরো সুদূরে
মরীচীকারা খেলা করে যেন আজি
ক্লান্ত এই পথে, হারায় যেন চোখের পলকে পলকে
মাঝে মাঝে ক্লান্তিরা এসে বলে আমায়
তুমি যাবে আর কতদূর?
ক্ষান্ত হও আজি সামনে আছে
আরো করুণ ক্লান্তি ভরা সুর
সময়ের পথ ধরে জীবনের গতি
চলেছে যেন অনন্ত পথের রশি ধরে
প্রতিটি নিশ্বাস যেন কেটে কেটে নিঃশেষ করছে
সাজানো এই সুন্দর জীবনটাকে!
ছলনার ধারাপাতে আমিও চলেছি আজ
যেন সেই পথের যাত্রী হয়ে
সামনে আর কতদূর যেতে পারবো
তাও জানা নেই এই মনে
তবু যেন আজ এই সন্ধিক্ষণে
পথ চলছি যেন তৃষিতের বেশে
কত চাওয়া পাওয়ায় ঘেরা এই জীবন
তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে যেন ক্ষণে ক্ষণে
আকাঙক্ষার রশিটি মনে হয়
এইতো সামনে, ধরেই ফেলেছি
কিন্তু তা যে আরো বহুদূরে
পথের ক্লান্তিরা যেন আজ তা বলে দিচ্ছে
এই আমায় বারে বারে

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

হৃদয়ের আর্তনাদ.....!!!

রবে ভাই, রবে মোর স্মৃতি, তোমাদেরি তরে
আমিতো একদিন হারিয়ে যাবো কালের সিন্ধুপানে
জীবনের কাছে আছে কত লেনাদেনা, ভাবিনী কোন ক্ষণে
জীবন যে ফুরিয়ে গেলো আজি কালের সংগোপনে
হায়! জীবনের চেয়ে মহাদামী আর কিছুই নাই
জীবন নিয়ে করোনা খেলা এই নববায়!
যাপি শুধু তাই আজি আমি তোমাদেরি সনে
রবে ভাই, রবে মোর স্মৃতি, তোমাদেরি তরে

সুখের ছোঁয়া পাবো বলে বেঁধেছি ঘর ঐ দূর বালু চরে
হারিয়ে গেলো সে ঘর যেন আজ চোরা বালির তরে
এই মিছে মায়ার ছলনায় বেহুঁশ যেন আজি জগত সংসারে
আমিতো চলে যাবো একদিন মহা কালের পথে
ফিরিবো নাকো আর কোনদিন তোমাদেরই সনে
এ চির সত্য আসবে সকলেরই তরে
রবে ভাই, রবে মোর স্মৃতি, তোমাদেরি তরে

আমিতো চাই, রয়ে যাই, তোমাদেরই সুন্দর ভুবনে
কে দিবে মোরে ঠাঁই এ পৃথিবীতে হায়!

কোথাও ঠাঁই নাই যেতে হবে আমায়
ছলনার ধারাপাতে যেন আমি ভেবে মরি সারা
তবু পাড়ি দিতে হবে আমায় একদিন তোমাদেরই ছাড়া

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)
Syndicate content