'ইসলামি বিশ্ব' -এর ব্লগ

ফাতেমা যাহরার (আ.) সমাধির ন্যায় তার ফজিলতও অজ্ঞাত রয়ে গেছে: গবেষক

রাসূলের (সা.) প্রিয়তমা কন্যা হলেন খাতুনে জান্নাত হযরত ফাতেমা যাহরা (সা.)। যিনি নারী জাতির মধ্যে সর্বাধিক সম্মানিত ও ফজিলতপূর্ণ ব্যক্তিত্ব হিসেবে সর্বজন বিদিত। অথচ অধিকাংশ মুসলমানরা এ মহীয়সীর নারীর ফজিলত সম্পর্কে যথাযথভাবে অবহিত নয়।

বার্তা সংস্থা ইকনা'র রিপোর্ট: ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের বিশিষ্ট ইসলামি গবেষক ও চিন্তাবিদ হুজ্জাতুল ইসলাম ওয়াল মুসলিমিন মুহাম্মাদ আকবারি বলেছেন যে, যেমনভাবে নবী নন্দিনী ফাতেমা যাহরার (আ.) কবর মোবারক পৃথিবীর মানুষের অজ্ঞাত রয়েছে, সেভাবে খাতুনে জান্নাতের ফজিলত ও ব্যক্তিত্বও আমাদের জ্ঞানের আড়ালে রয়ে গেছে।

এ মহীয়সী নারী সম্পর্কে রাসূলের (সা.) অসংখ্য হাদীস এমনকি রাসূল নিজেও তার প্রতি নজিরবিহীন ভক্তি ও শ্রদ্ধা নিবেদনের পরও মুসলিম উম্মাহ আজও এ বিষয়ে গাফেল ও উদাসীনতা প্রদর্শন করে যাচ্ছে।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4 (2টি রেটিং)

আমেরিকায় বৃদ্ধি পেয়েছে মুসলমান বিদ্বেষী গোষ্ঠীর সংখ্যা

আমেরিকায় গত বছর মুসলমান বিদ্বেষী গোষ্ঠীর সংখ্যা প্রায় তিনগুণ
বেড়েছে। ৩৪ থেকে বেড়ে এ ধরনের গোষ্ঠীর সংখ্যা শতাধিক হয়েছে বলে একটি
প্রতিবেদনে জানান হয়েছে। প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেছে উগ্রবাদী গোষ্ঠীর
নজরদারিতে নিয়োজিত অলাভজনক সংস্থা 'সার্দান প্রোভার্টি ল সেন্টার'।

আমেরিকায় বৃদ্ধি পেয়েছে মুসলমান বিদ্বেষী গোষ্ঠীর সংখ্যা

বার্তা সংস্থা ইকনা: এতে বলা হয়েছে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট
নির্বাচনের প্রচারণায় ডোনাল্ড ট্রাম্পের ‘জ্বালাময়ী বক্তব্য’ দেশটিতে মুসলিম বিদ্বেষী গোষ্ঠী সৃষ্টিতে ইন্ধন যুগিয়েছে। এছাড়া, গত জুনে আমেরিকার
অরল্যান্ডোর নাইট ক্লাবে হামলার ঘটনাও এতে উসকানি দিয়েছে।

আপনার রেটিং: None

কুরআনের সাথে পরিচিত হলো আমেরিকার অমুসলিমরা

আমেরিকার টেনেসি প্রদেশের চাটানুঘা এলাকার ইসলামিক কেন্দ্র এবং মসজিদ পরিদর্শনের জন্য সকলের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয়েছে। অমুসলিমগণ এই মসজিদ এবং ইসলামিক কেন্দ্র পরিদর্শন করে পবিত্র কুরআনের সাথে পরিচিত হয়েছেন।


বার্তা সংস্থা ইকনা
: বার্ষিক অনুষ্ঠান 'মুসলিম প্রতিবেশীদের সঙ্গে সাক্ষাৎ' চলতি বছরে আমেরিকার টেনেসি প্রদেশের চাটানুঘা এলাকার ইসলামিক কেন্দ্র অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আপনার রেটিং: None

নিউজিল্যান্ডে হিজাবী নারীর উপর ইসলাম বিদ্বেষীর হামলা

নিউজিল্যান্ডে হিজাবী নারীর উপর ইসলাম বিদ্বেষীর হামলা

নিউজিল্যান্ডের অকল্যান্ড শহরের হ্যান্টিলি শহরে গতকাল (১১ই ফেব্রুয়ারি) এক হিজাবী নারীর ওপর ইসলাম বিদ্বেষী এক নারী হামলা চালিয়েছে।

বার্তা সংস্থা ইকনা: মুসলিম নারী 'মেহপারাহ খান' ফেসবুকে তার নিজস্ব পেজে হামলার ভিডিওটি আপলোড করেছেন। ভিডিওতে দেখা যায় যে, ইসলাম বিদ্বেষী ঐ নারী মেহপারাহ খান'কে লক্ষ করে কাচের বোতল নিক্ষেপ করে। হামলার সময় মুসলিম নারীর সাথে তার দুই বান্ধবীও ছিল।

হামলাকারী ঐ সময় চিৎকার করে বলে: "এই জায়গা তোমাদের নয়, এখান থেকে চলে যাও"। এই কথা বলার পর কাচের বোতল দিয়ে মুসলিম নারীদের আঘাত করার চেষ্টা করে। এসময় এক ব্যক্তি ইসলাম বিদ্বেষী ঐ নারীর হামলায় বাধা দেয়ে।

আপনার রেটিং: None

রাসূলুল্লাহ (সা.) ইমাম আলীকে (আ.) যে ওসিয়ত করেছিলেন ওসিয়ত

রাসূলুল্লাহ (সা.) ইমাম আলীকে (আ.) যে ওসিয়ত করেছিলেন ওসিয়ত

সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ রাসূল (সা.) তার সুযোগ্য স্থলাভিষিক্ত আমিরুল মু’মিনিন আলীর (আ.) প্রতি গুরুত্বপূর্ণ ওসিয়ত করেছেন; যা আমরা এখানে পাঠকদের জ্ঞাতার্থে তুলে ধরছি:


বার্তা সংস্থা ইকনা
: বিশিষ্ট সাহাবী মুয়াবিয়া বিন আম্মার বলেছেন যে, ইমাম জাফর সাদীক (আ.) থেকে বর্ণিত; তিনি বলেন: রাসূল (সা.) আমিরুল মু’মিনিন আলীকে (আ.) উদ্দেশ্য করে বলেন: আমি তোমাকে কিছু গুরুত্বপূর্ণ উপদেশ দিতে চায়, তুমি এগুলো লিপিবদ্ধ করে রাখ এবং এগুলো মেনে চলবে। হে আল্লাহ! তুমি এগুলো স্মরণ রাখার ক্ষেত্রে তার সহায়ক হও-

১- সততা ও সত্যবাদিতা মেনে চলবে; কখনও মিথ্যার আশ্রয় নিবে না।

২- পরহেজগারিতা অবলম্বন করবে এবং কখনও খেয়ানত করবে না।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4 (টি রেটিং)

ইমাম আলীর (আ.) ভাষায় ফাতেমা যাহরা (সা. আ.)


রাসূলের (সা.) ঘোষণা অনুযায়ী নবী নন্দিনী হযরত ফাতেমা যাহরা (সা. আ.) জান্নাতের নারীদের নেতা এবং নারী জাতির মধ্যে সবচেয়ে মর্যাদাবান ও ফজিলতপূর্ণ নারী। তিনি আমিরুল মু’মিনিন আলীর (আ.) সুযোগ্যা স্ত্রী।

বার্তা সংস্থা ইকনা'র রিপোর্ট: হাদীসের বর্ণনা অনুযায়ী রাসূল (সা.) সরাসরি আল্লাহর নির্দেশে স্বীয় কন্যা ফাতেমা যাহরাকে (সা. আ.) আলী ইবনে আবি তালিবের (আ.) সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ করেন। তাদের উভয়ের বিবাহোত্তর অনুষ্ঠানে রাসূল (সা.) আলীকে জিজ্ঞাসা করেন যে, ফাতেমাকে কেমন পেয়েছ? জবাবে তিনি বলেন:

 "نعم العون علی طاعه الله.

"

আপনার রেটিং: None

রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সহিংসতা ভাষায় ব্যক্ত করার মত নয়

জাতিসংঘের মানবাধিকার পরিদর্শন বিভাগের চার সদস্যের এক টিমের প্রধান বলেছেন: রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে যে সহিংসতা চালানো হচ্ছে, তা ভাষায় ব্যক্ত করার মত নয়।

বার্তা সংস্থা ইকনা: জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাই কমিশনার ৩ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলিমদের বিরুদ্ধে সেদেশের সরকারের আগ্রাসন এবং গণহত্যার এক প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এতে বলা হয়েছে, এসকল আগ্রাসন এবং গণহত্যার ২২০ জন প্রত্যক্ষদর্শী পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে।

 জাতিসংঘের মানবাধিকার পরিদর্শন বিভাগের চার সদস্যের টিমের প্রধান "লিনি উরভিডাসুন" বলেন: আমরা যখন প্রত্যক্ষদর্শীর নিকট হতে রিপোর্ট সংগ্রহ করছিলাম তখন তাদের কথা শুনে আমরা অনেক মন:ক্ষুণ্ণ হয়েছি।

তিনি বলেন: হিউম্যান রাইটস হাইকমিশনার জাইদ রাদ আল হুসাইনের সাথে 'অং সান সুচি'র ফোনালাপ হয়েছে। এসময় সুচি প্রতিশ্রুত দিয়েছে, অতি শীঘ্রই এই বিষয়ে সুষ্ঠু পর্যবেক্ষণ করবে।

উরভিডাসুন আশাবাদী মিয়ানমারে গণহত্যা এবং সহিংসতা বন্ধের জন্য সুচি চেষ্টা ফলশ্রুতি হবে।

আপনার রেটিং: None

মা ফাতিমার সাথে ইমাম মাহদীর সাদৃশ্য

মা ফাতিমার সাথে ইমাম মাহদীর সাদৃশ্য

পবিত্র কুরআন ও হাদিসের আলোকে মা ফাতিমা (সা. আ.)এর সাথে ইমাম মাহদী (আ.)এর বহু মিল রয়েছে।

বার্তা সংস্থা ইকনা: মা ফাতিাম যাহরা (সা. আ.) হচ্ছেন আসমানের নুর আর ইমাম মাহদী (আ.) হচ্ছেন জমিনের নুর।
রাসূল(সা.) এসম্পর্কে বলেছেন:

 ثم أظلمت المشارق و المغارب، فشکت الملائکة إلی الله تعالی أنْ یکشف عنهم تلک الظلمة. فتکلم الله جلّ جلالُه کلمةً فخلق منها روحا ثُمّ تکلَّم بکلمةٍ فخلق من تلک الکلمة نورا، فأضاءت النور إلی تلک الروح و أقامها مقامَ العرش فزهرت المشارق و المغارب فهی فاطمة الزهراء و لذالک سمیت الزهراء لأنَّ نورها زهرت به السماوات

আপনার রেটিং: None

আরবি মিডিয়াতে বিপ্লব বার্ষিকীর র‌্যলীর প্রতিক্রিয়া

আরবি মিডিয়াতে বিপ্লব বার্ষিকীর র‌্যলীর প্রতিক্রিয়া

লাখ লাখ মানুষের অংশগ্রহণের মধ্যদিয়ে ইরানে ইসলামি বিপ্লবের ৩৮তম বিজয় বার্ষিকী উদযাপিত হচ্ছে। ৩৮ বছর আগে অর্থাৎ ১৯৭৯ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি ইমাম খোমেনীর (রহ.) নেতৃত্বে মার্কিন সমর্থিত স্বৈরশাসক রেজা শাহের পতন হয় এবং ইসলামি বিপ্লব চূড়ান্তভাবে বিজয় লাভ করে।

 
বার্তা সংস্থা ইকনা:
ইরানে ইসলামি বিপ্লবের গৌরবোজ্জ্বল ৩৮তম বিজয় বার্ষিকী আজ পালিত হয়েছে। বিজয় বার্ষিকী উপলক্ষে গোটা ইরান জুড়ে র‌্যালী প্রদর্শন হয়েছে। অন্যান্য বছরের তুলনায় এই বছরে অধিক জনগণ উপস্থিতি হয়েছে। এর জন্য আরব দেশসমূহের মিডিয়া সহ বিশ্বের বিভিন্ন মিডিয়ায় ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেছে।

আপনার রেটিং: None

হযরত ফাতেমা (সা.আ.)এর শাহাদাত

হযরত ফাতেমা (সা.আ.)এর শাহাদাত
রাসূলে খোদা (সা.) এর ওফাতের নব্বুই দিনের মতো অতিক্রান্ত হয়েছে। তিন তিনটি মাস রাসূল(স.) এর কন্যা ফাতেমাতুজ্জাহরা (সা.আ.)এর জন্যে ছিল যথেষ্ট কষ্টদায়ক। একদিকে রাসূলে খোদার অনুপস্থিতির বেদনা অপরদিকে একদল লোকের অত্যাচার-সবমিলিয়ে তিনি এতো বেশি বিরক্ত ছিলেন যে একেবারে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। জীবনের শেষ মুহূর্তগুলো কাটাচ্ছিলেন তিনি। কেবল একটিমাত্র জিনিসই তাকেঁ কিছুটা স্বস্তি দিতো। সেটা হলো নবীজীর দেওয়া একটি প্রতিশ্রুতি। নবীজী মৃত্যুকালে বলেছিলেনঃ "কন্যা আমার! আমার পরে আমার খান্দান থেকে তুমিই সর্বপ্রথম আমার কাছে আসবে।"

আপনার রেটিং: None
Syndicate content