'মোঃ আবু তাহের' -এর ব্লগ

সমান অধিকারে নারীর সম্মান কমে

কয়েকদিন পূর্বে ট্রেনে করে বাড়ি যাচ্ছিলাম। বাংলাদেশের জনসংখ্যা বেশি হওয়ার কারণে স্বাভাবিকভাবেই অনেকে দাঁড়িয়ে যাবে। তাছাড়া ট্রেনের ভাড়া বাস ভাড়ার চেয়ে অনেক কম, তাই সাধারন মানুষেরা ট্রেনেই বেশি ভীড় করে থাকেন। আমিও যেহেতু ঐ সাধারনের দলে তাই ট্রেনে উঠেছি। ছোটবেলায় যখন ট্রেনে বা বাসে উঠতাম তখন দেখতাম কোন মহিলা বা মুরুব্বী মানুষ সেখানে উঠলে অনেকেই সিট ছেড়ে দিয়ে ওনাদেরকে বসতে দিতেন। কিন্তু এখন চিত্র পুরো ভিন্ন। পাশে কোন বয়স্কা মহিলা থাকলেও কেউ সাধারণত দাঁড়িয়ে সেই সিটটা ছেড়ে দিতে চায় না। এমনি ঘটনা ঘটলো সেদিন।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.7 (3টি রেটিং)

পিতার সম্পত্তিতে উত্তরাধীকার প্রশ্নে নারী পুরুষের সমানাধিকারঃ কিছু কথা

পিতার সম্পদে নারী-পুরুষের সমানাধিকার দেয়ার প্রস্তাব রেখে "নারী উন্নয়ন নীতি'২০১১"এর খসড়া মন্ত্রীসভা অনুমোদন করেছে। গত ৭মার্চ'২০১১ তারিখে সচীবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রীসভার বৈঠকে এটি অনুমোদিত হয়। মন্ত্রীসভায় জাতীয় নারী নীতি'২০১১ এর যে খসড়া অনুমোদন করা হয়েছে তাতে পারিবারীক, সামাজিক পর্যায় ও কর্মেক্ষেত্রে সমানাধিকার নিশ্চিত করার ঘোষনা রয়েছে। উপার্জন, উত্তরাধিকার, ঋণ, ভূমি ও বাজার ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে অর্জিত সম্পদের ক্ষেত্রে নারীর পূর্ণ নিয়ন্ত্রনের অধিকার রাখা হয়েছে।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (3টি রেটিং)

দারিদ্র্য বিমোচনে যাকাতের ভূমিকা - সমগ্র

"বেশ কিছুদিন থেকে এই লেখাটি ধারাবাহিকভাবে পোস্ট দিয়ে আসছি। কারো খারাপ লেগেছে আর কারো বা ভালো। যার যাই লাগুক না কেন সবার জন্যই পুরো লেখাটা আবার পোস্ট করছি। আশা করি মন্তব্য ও পরামর্শ পাব।"

ভূমিকাঃ

"আজ তোমাদের জন্য তোমাদের দ্বীনকে পূর্ণাঙ্গ করলাম ও তোমাদের প্রতি আমার অনুগ্রহ সম্পূর্ণ করলাম এবং ইসলামকে তোমাদের দ্বীন মনোনীত করলাম"। (সূরা মায়েদা-৩)

Islam is the complete code of life.

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (2টি রেটিং)

দারিদ্র্য বিমোচনে যাকাতের ভূমিক- শেষ

কর্মসংস্থানধর্মী কর্মসূচী


যাকাতের টাকা দিয়ে নিম্নোক্ত কর্মসংস্থানধর্মী কর্মসূচী হাতে নেয়া যেতে পারে-

১. গরু/বলদ ক্রয়ে সাহায্যঃ

গ্রাম বাংলায় কৃষি কাজের প্রধান অবলম্বন চাষের বলদ। একই সঙ্গে পুষ্টি ও উপার্জনের সহায়ক হল দুধেল গাই। বহু কৃষকের জমি থাকলেও একজোড়া বলদ নাই। এমনকি অনেকের কেনার সামর্থও নাই। এদের হালের বলদ বা দুধেল গাই কিনে দিয়ে সাহায্য করা যেতে পারে। প্রতিটি গরু বা বলদের দাম যদি গড়ে ৭,৫০০টাকা ধরা যায় এবং প্রতি ইউনিয়নে গড়ে বিশ জনকেও এ ধরনের সাহায্য করা যায় তাহলে প্রতি বছর ব্যয় হবে প্রায় ৬৬কোটি ৭৭লক্ষ টাকা।


২. বিভিন্ন পেশাগত কর্মসংস্থানঃ

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3 (টি রেটিং)

আড়িয়াল বিলে জনতার জয়


অবশেষে আড়িয়াল বিল জনতার কাছেই থেকে গেল। প্রধানমন্ত্রী অনেক পরে হলেও সঠিক সিদ্ধান্তটাই নিয়েছেন। এজন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে জানাই আড়িয়াল বিলবাসীর পক্ষ থেকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।
বিমানবন্দর তৈরী করা নিয়েই ঘটনার সূত্রপাত। ঢাকা জেলা, মুন্সিগঞ্জ জেলা ও পদ্মা নদীর মাঝখানে একটি জলাভূমি অঞ্চল হল আড়িয়াল বিল। এককালে বিক্রমপুর নামেই সুপরিচিত ছিল। সুজলা-সুফলা শস্য শ্যামলার প্রতিক রবিশস্য, তরি-তরকারী, মাছে ভরপুর ও অসংখ্য প্রজাতির পাখির অভায়াশ্রম হিসেবে সুপরিচিত ছিল দেশের বৃহত্তম বিল বলে খ্যাত "আড়িয়াল বিল"।

এই আড়িয়াল বিলের দৈর্ঘ্য ২৬মাইল আর প্রস্থ ১০মাইল অর্থাৎ ২৬০বর্গমাইল বা ১,৬৬,৬০০একর।

যেখানে ধান হয় প্রায় ৪০,০০০মেট্রিক টন।
মাছ চাষ হয় প্রায় ৭০০মেট্রিক টন।
সব্জি ও রবিশস্য হয় প্রায় ১০,০০০মেট্রিক টন।

অনেকেই এখান থেকে শাপলা সংগ্রহ করে তা বিক্রি করে জিবিকা নির্বাহ করে থাকে। আর এখানেই সরকার একটি আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর তৈরী করতে যাচ্ছিলেন। "বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর"।

আপনার রেটিং: None

দারিদ্র্য বিমোচনে যাকাতের ভূমিকা-৯

৩. ছাত্রদের জন্য বৃত্তিঃ

দেশের স্কুল, মাদ্রাসা, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে যেসব ছাত্র-ছাত্রী লেখাপড়া করছে তাদের বিরাট অংশ ক্ষুদে ও মাঝারী কৃষক পরিবারের সন্তান। তারা দারুণ আর্থিক সংকটের শিকার। এদের লেখাপড়ার ব্যয় নির্বাহের জন্য মাতা-পিতাকে শেষ সম্বল চাষের জমিটুকু বিক্রি করতে হয় অথবা বন্ধক রাখতে হয়। অনেককে নিরূপায় হয়ে লেখাপড়া বন্ধ করে দিতে হয়। এদের মধ্য থেকে উচ্চ মাধ্যমিক, সম্মান ও মাস্টার্স শ্রেণী, মাদ্রাসার ক্ষেত্রে আলিম, ফাযিল ও কামিল শ্রেণী, প্রকৌশল ও মেডিকেল কলেজ এবং পলিটেকনিক ও ভকেশনাল ইনস্টিটিউটগুলোতে অধ্যয়নের ব্যয় নির্বাহের উদ্দেশ্যে যদি প্রতি বছর পঞ্চাশ হাজার ছাত্র-ছাত্রীকে বাছাই করা হয় এবং মাসিক ১,৫০০টাকা হারে বৃত্তি দেওয়া হয় তাহলে বার্ষিক ব্যয় হবে ৯০কোটি টাকা।


৪. মহিলাদের আত্মকর্মসংস্থানমূলক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রঃ

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

ফেলানী নয়, বাংলাদেশের মানচিত্র ভারতের কাঁটাতারে ঝুলছে


প্রথমে সিদ্ধান্তই নিয়ে নিয়েছিলাম যে এই বিষয়ে কিছু লিখবো না। কিন্তু বিবেক বসে থাকতে দিল না। যতই চিন্তা করি ততই নিজেকে অপরাধী অপরাধী মনে হচ্ছে। তিনি যদি আমার বোন হতেন, তাহলে কি আমি বসে থাকতে পারতাম! অবশ্যই আমি প্রতিবাদমুখর হয়ে উঠতাম। কিন্তু এখন আমি যেই দেশের নাগরিক সেই দেশের একজন অসহায় মেয়েকে নির্মমভাবে মৃত্যুবরণ করতে হবে তা তো মেনে নেয়া যায় না। তিনি যেহেতু এ দেশের নাগরিক তাই তিনি আমারো বোন। আর এই বোনের নির্মম মৃত্যুর জন্য যারা দায়ী তাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদই আমার আজকের এই লেখা।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (2টি রেটিং)

চরিত্র গঠনে মিডিয়ার ভূমিকা

কিছুদিন পূর্বে এক বাসায় বেড়াতে গিয়েছিলাম। বাসায় অবস্থান করার এক পর্যায়ে সেই বাসার মালিকের ছোট ছেলে আমাদের মাঝে এসে উপস্থিত। আমার আবার ছোট বাচ্চাদেরকে খুব ভাল লাগে। কিছুক্ষনের মধ্যেই সেই ছেলেটিকে একান্ত আপন করে নিতে সক্ষম হলাম। কথা বলার এক পর্যায়ে লক্ষ্য করলাম যে তার হাতের কব্জিতে এক টুকরো সুতা প্যাচানো। এত ছোট্র ছেলের হাতে সুতা প্যাচানো দেখে সত্যিই বিষ্মিত না হয়ে পারি নাই। কারন ছেলেটি সবে মাত্র চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্র। শহরের ছেলেদেরকে অবশ্য দেখি যে তারা হাতে সুতা পেচিয়ে রাখে অথবা একটা ব্যাচ পড়ে, কিন্তু এত ছোট্ট একজন ছেলে কেন একাজ করতে যাবে ভেবে পাচ্ছি না।

অনেক কথার এক পর্যায়ে তাকে জিজ্ঞাসা করলাম যে, তোমার হাতে সুতা প্যাচানো কেন? ছেলের ঝটপট উত্তর, মেয়েদেরকে আকৃষ্ট করার জন্য! শুনে আমিতো থ। একটুকুন এক ছেলে বলে কি! বললাম, তুমি তো এখনও অনেক ছোট, এত তারাতারি এই কাজ করতে হবে কেন? আবার ঝটপট উত্তর, বিয়ার সময় যেন মেয়ে খুঁজতে না হয় সেই জন্য!

প্রিয় পাঠক/পাঠিকা, চতুর্থ শ্রেণীর এক ছাত্রের যদি হয় এই অবস্থা তাহলে বড়দের অবস্থা কোথায় গিয়ে দাড়িয়েছে আজ তা সহজে অনুমেয়।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3.3 (3টি রেটিং)

দারিদ্র্য বিমোচনে যাকাতের ভূমিকা-৮

মানবসম্পদ উন্নয়নমূলক কর্মসূচী


যাকাতের অর্থ দিয়ে বিভিন্নভাবে মানবসম্পদ উন্নয়নমূলক কাজ করা যায়, তার কিছু নিম্নে আলোচিত হল-


১. দ্বীনি শিক্ষা অর্জনে সহযোগিতাঃ

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

দারিদ্র্য বিমোচনে যাকাতের ভূমিকা-৭

১১. ইউনিয়ন মেডিকেল সেন্টারঃ

এদেশের পল্লী এলাকায় চিকিৎসা ও স্বাস্থ্য সেবার সুবিধা যে কত অপ্রতুল ও অবহেলিত তা ভুক্তভোগীই মাত্র জানে। এদেশের গ্রামীন জনগন সু-চিকিৎসার অভাবে হাতুড়ে ডাক্তারদের হাতে জীবন সঁপে দিয়ে ধুঁকে ধুঁকে অকাল মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। দেশের এই বৃহৎ জনগোষ্ঠির অধিকাংশই দরিদ্র। এদেরকে সুস্থ্যভাবে বাঁচার সুযোগ দিতে আধুনিক চিকিৎসা সুবিধা পল্লী এলাকায় পৌছে দিতে হবে। এজন্যে দেশের প্রতিটি ইউনিয়নে ন্যুনতম সুযোগ-সবিধা সম্পন্ন মেডিকেল সেন্টার গড়ে তোলা প্রয়োজন। ইউনিয়ন প্রতি গড় মাসিক ব্যয় যদি ২০হাজার টাকা ধরা যায় তাহলে মাসিক ব্যয় দাঁড়াবে ১০৬কোটি ৮২লক্ষ টাকা।


১২. নওমুসলিম পূনর্বাসনঃ

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)
Syndicate content