'এম এস লায়লা' -এর ব্লগ

(রমাদ্বান আলোচনাঃ) মদিনায় রমাদ্বানের শেষ দশক

জীবনের বাঁকে বাঁকে কত শত কথা!

কখনো তা গুছিয়ে লিখলে হয় কবিতা!

কখনো গল্প হয় তা!

কখনো জীবনের পাতায় স্মৃতি হয় তা!

কখনো কষ্টানুভুতির বৃষ্টি হয়ে ঝরে তা!

কখনো মনের আনন্দ হয়ে প্রকাশিত হয় তা!

জীবনের স্মৃতি মনের আয়নার মাঝে কখনো কখনো ভেসে ওঠে!

কখনো মনের বাগানে ফুল হয়ে ফোটে!

কখনো আনন্দের দোলা দেয় মনে!

কখনো বারি ঝরায় নয়নে!

তবুও স্মৃতিকে মানুষ রাখে মনে!

স্বরন করে ভালোবাসার আলিঙ্গনে!

মদিনার
শেষ দশকের অভিজ্ঞতা সবার সাথে শেয়ার করছি! মদিনাতে রমাদ্বানের শেষ দশকে
ক্বিয়ামুল লাইল পালিত হয়! মসজিদে নব্বীতে এ'তেকাফের জন্য অনেক অনেক দেশ
থেকে লোকজন আসেন এবং এ'তেকাফ করেন! সারাদিন রোজা রাখেন ও সন্ধ্যারাতে
তারাবীহ পড়েন, আর রাত একটা থেকে তাহাজ্জুদে শামিল হোন সবাই! অনেকে আবার
সাহরী সাথে করে নিয়ে আসেন রাতে ক্বিয়ামুল লাইল শেষ করে মসজিদে নব্বীতেই
সাহরী খান ও ফজর পড়ে বাসায় গিয়ে ঘুমান! মদিনাতে সাধারনত রাতে কেউই ঘুমায়

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3.7 (3টি রেটিং)

" (রমাদ্বান আলোচনা) উত্তম প্রতিবেশী"

উত্তম প্রতিবেশী পার্থিব জীবনে বিরাট এক নেয়ামত! উত্তম প্রতিবেশী
ভালো থাকার মাধ্যম! উত্তম প্রতিবেশী বিপদে আপদে সহমর্মিতার হাত বাড়িয়ে দেয়!
উত্তম প্রতিবেশী সবসময়ের বন্ধু হয়ে থাকে! প্রতিবেশীর আচরণে প্রতিবেশী
জানতে পারে প্রতিবেশীর ভাল-মন্দ! বিধায় আচরনেই প্রমানিত হয়ে যায় মন্দ বা সৎ
ও উত্তম প্রতিবেশী কারা? এর প্রমান সহীহ হাদীস শরীফের মধ্যেই পাওয়া যায়।


নবী
(সঃ) বলেন,"আল্লাহর নিকট সেই সাথী উত্তম যে নিজ সাথীদের নিকট উত্তম।
আল্লাহর নিকট সেই প্রতিবেশী উত্তম যে নিজ প্রতিবেশীর নিকট উত্তম।

" -বুখারী আদাবুল মুফরাদ।

ইবন
মাসউদ (রাঃ) হতে বর্ণিত, তিনি বলেনঃ " এক ব্যক্তি নবী (সঃ) এর নিকট বললোঃ
হে আল্লাহর রাসুল (সঃ) আমি ভালো করছি না মন্দ করছি তা কি করে জানবো? নবী
(সঃ) বললেনঃ যখন তোমার প্রতিবেশীদের বলতে শুনবে যে, তুমি ভালো করেছো, তবে
প্রকৃতই ভালো করেছো, আর যখন প্রতিবেশী বলবে তুমি মন্দ করেছো তবে মনে করবে

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 2 (টি রেটিং)

"আমি ভালবাসি"

আমি আলোকে ভালবাসি অন্ধকার নয়

ফুলকে ভালবাসি ভুলকে নয়!

আমি দুঃখের অনলে পুঁড়তে ভালবাসি

কাউকে পোঁড়াতে নয়!

আমি বিজয় ভালবাসি পরাজয়কে নয়

সত্য ও সততাকে ভালবাসি মিথ্যাকে নয়!

আমি সুন্দরকে ভালবাসি অসুন্দরকে নয়

বড়দেরকে সম্মান করতে ভালবাসি অসম্মান নয়!

ছোটদেরকে আদর করতে ভালবাসি কাঁদাতে নয়

আমি রোগীকে সেবা করতে ভালবাসি অবহেলা করতে নয়!

জিহাদের ময়দানে লড়াই ভালবাসি পলায়ন করতে নয়

আমি দরিদ্র থাকতে ভালবাসি জালেম বাদশাহ হতে নয়!

সবার মুখের হাসি ভালবাসি একাকি নিজে হাসতে নয়

আল্লাহর ভয়ে কাঁদতে ভালবাসি কাউকে কাঁদাতে নয়!

মাহবুবাহ্

২৮ শে জুলাই ২০০৫

বিষয়: সাহিত্য

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.5 (2টি রেটিং)

"আহলান সাহলান হে মাহে রমাদ্বান"

আলহামদুলিল্লাহ
আমার জীবনের সবচেয়ে উত্তম রমাদ্বান মাস পালন করছি মদিনাতে! তারাবীহ পড়ছি
মসজিদে নব্বীতে! পৃথিবীর জীবনের সবচেয়ে উত্তম ও বরকত সময় পার করছি! সবাই
আমার জন্য দোয়া করবেন! যেন সারা বছরের অলসতা আর গোরামি থেকে বের হয়ে এই
মাহে রমাদ্বানের হক্ব আদায় করতে পারি! মহান আল্লাহ যেন আমাদেরকে সহ সবাইকে
সকল প্রকারের ছোট ও বড় গুনাহ থেকে বাঁচিয়ে রেখে মাহে রমাদ্বানের পূর্ণ হক্ব
আদায়ের সুযোগ করে দেন! আর প্রত্যেকটা তারাবীহ নামাজকে রমাদ্বানের
গুরুত্বসহকারে পড়ার তৌফিক দান করেন! সবার জন্যেও একই দোয়া!

বিষয়: সাহিত্য

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.3 (3টি রেটিং)

"কবিগণ দাবিদার মন্তব্যের"

আলমগীর মুহাম্মদ সিরাজ ভাই খুব সুন্দর লিখেছেন লেখার ভাষায় অনেক কিছু বুঝিয়েছেন, আসলে কবির চিন্তার প্রকাশই হলো কবির লেখা, হতে পারে তা কয়েক লাইনের কবিতা আবার হতে পারে তা বিশাল গদ্য! কিন্তু যুগে যুগে অনেক কবি গত হয়ে গেছেন কিন্তু পরিপূর্ণ মূল্যায়ন পাননি! আমরা তাদের আন্তরিক ভালোবাসার সাথে স্বরন করি! আর আপনার সুন্দর পোস্টের জন্য আপনাকে বড় বোনের স্যালুট! সব সময় সব লেখার মন্তব্য দিতে পারিনা কারন সংসার, সন্তান, ইবাদত সব মিলিয়ে ব্যস্ততার যাঁতাকলে পিষে যাই তারপরও মাঝে মাঝে ব্লগে আসি, কিছুটা সময় দিতে ট্রাই করি! আর এজন্য একথা মনে করার কোন সুযোগ নেই যে লেখার মান ভালো নয়! বরং লেখার মান ঠিকই আছে আমাদের সময়গুলো নিয়মের শেকলে বাঁধা

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

"ব্যতিক্রমধর্মী বিনোদন পোস্ট ( বোনেরা উপকৃত হবেন)"

নৌকা ব্যাগঃ-

কর্মী
ব্যক্তি কখনো বসে থাকতে পারেনা! কোন না কোন কাজ তাকে করতেই হবে! হোক তা
ছোট বড় বা মাঝারি! কাজ তাকে করতেই হবে! একমাত্র অলস মানুষ ছাড়া বাকি সবাই
কাজের মাঝেই খুজে নেন অন্য রকম বিনোদন! কাজে যদি বিনোদন উপভোগ না করতেন তবে
কোন মানুষই কোন কাজ করতো না! বসে বসে খেতো সবসময়! কাজের মাঝে বিনোদন আছে
এবং কাজের মূল্য আছে বলেই মানুষ কাজকে সবকিছুর আগে মূল্যায়ন করে! মানুষ
একাকি থাকতে থাকতে ঝিঁমিয়ে পড়ে! ঝিঁমিয়ে পড়ে মানুষের চলার গতি! অলসতা এসে
গ্রাস করে মানুষের কর্মক্ষমতাকে! গ্রাস করে চঞ্চলতাকে! ঢেকে দেয় অভালোলাগার
এক কালো চাদরে! আর এজন্যমানুষের জন্য প্রয়োজন বিনোদনের আর তা হতে হবে
অবশ্যই শরীয়ত মতে! আর এই বিনোদন হতে পারে ভ্রমণের মাধ্যমে বা কোন পছন্দনীয়
কর্ম সম্পদনের মাধ্যমে! যেসব নারীরা বাহিরে কাজ করেন না! তারাই বেশীর ভাগ
ঘরে থাকতে থাকতে অস্থীর হয়ে পড়েন! আর এই অস্থীরতা কাটাতে কিছু পছন্দনীয়

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3 (টি রেটিং)

"প্রবাস থেকে দেশকে স্বরন"

ভালবাসা
এমনই এক সঙ্গার নাম যাতে মিশ্রিত থাকে আপন পর নির্বিশেষে সকল মানুষে
মানুষে সম্পর্ক! মানুষ কখনোই একাকি থাকতে পারেনা! হোক তা নিজ দেশে হোক তা
প্রবাসে! হোক অপরজনকে আপন করে! মানুষের সাথে মিশেই থাকতে হবে, থাকতে হয়!
এভাবেই যতদিন বেঁচে থাকে ততদিনই মানুষের পাশে থাকে এমন কি মৃত্যু পরও
পাশাপাশি কবরে কবরস্থ করা হয়! কারন মানুষ একাকি বেঁচে থাকলেও থাকতে পারেনা
আর মরে গেলেও না! মানুষের সহচর্জ তার চাই-ই চাই!

প্রবাস জীবনের
প্রায় কয়েকমাস হয়ে গেলো এখানে না আছে আপন পিতা-মাতা আর না আছে রক্তের
সম্পর্কের কেউ আর না আছে মুখ পরিচিত কেউ! সবাই এখানে এসে নানা প্রয়োজনে একে

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

"মদিনার চত্বরে" (৭)

"একটি সত্য ও শিক্ষনীয় ঘটনা"

মে
মাসের কথা! সারাদিন মসজিদে নব্বীতে থাকবো এরাদা করেছি! সাথে প্রস্তুতি ও
নিয়েছি এভাবে ফজর পড়ে আর ঘুমাইনি! দুপুরের রান্নার কাজ শেষ করে! সবাই
সকালের নাস্তা করে ন'টা বাজার আগে আমরা পৌছলাম মসজিদে নব্বীতে! সেদিন
নেমেছিলাম এগারোর বি/ টয়লেটের পাশ দিয়ে মহিলাদের নামাজের স্থান দিয়ে হেঁটে
হেঁটে সোজা মসজিদে! (বলে রাখি) মসজিদে নব্বীর গেইটে ব্যাগ বা সাথে যা থাকে
তা চেক করে ভেতরে প্রবেশ করতে দেয়া হয়! ভারি খাবার নিয়ে প্রবেশ নিশেধ! আমার
সাথে ছোট্ট একটা হ্যান্ড পার্স ছিলো ও আরো ছিলো কিচের (কিচ হলো পলিথিন
ব্যাগ) মধ্যে একটি কলম ও একটি ডায়েরী, কয়েকটা চকলেট আর একটি বিষ্কিটের
প্যাকেট একটা বণ রুটি ও পানির বোতল! সারিদিন থাকার নিয়্যত তাই এই ব্যবস্থা!
নিয়ে তো আসছি কিন্তু ভেতরে যেতে দেবে কিনা ভয়ে ছিলাম, দোয়া ও করতে ছিলাম
যেন ভেতরে যেতে পারি! নয়তো শুধু পানির বোতল আর মোবাইল নিয়ে আসতাম! কারন

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (2টি রেটিং)

তাঁর ভয়ে মু'মিন হও

ফুল ফলে শস্যে পূর্ণ

আমাদের এই দেশ!

সবুজ শ্যামল বন-বনানী

রূপের নেই যে শেষ!

 

নদী-নালা সাগর তীরে

বৃষ্টি মেঘের খেলা!

বাংলা যেন ঐ মহানের

নেয়ামতের মেলা!

 

লক্ষ কোটি নেয়ামতে

এই ভূমি যে ভরা!

মন্দ লোকের অপকর্মে

নেমে আসে খরা!

 

নদী-নালা গাছ-গাছালি

পাখ-পাখালি দিয়ে!

ছোট্ট এই জম্মভূমি

দিয়েছেন সাজিয়ে!

 

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (2টি রেটিং)

মদিনার চত্বরে (৬)

মদিনার চত্বরে ছাতা বিশেষ! রোদ ও বৃষ্টি থেকে বাঁচার জন্য

মসজিদে নব্বীর দরজা!

মসজিদে নব্বীর কয়েকটি দরজা সমূহ!

মসজিদে নব্বীর ভেতরে ও বাহিরে এই কাঠের সেলফে জুতা রাখা হয়!

অসুস্থ ব্যক্তিদের জন্য এই পথে হুইল চেয়ারে ভেতরে প্রবেশ করতে হয়!

বিষয়: সাহিত্য

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (2টি রেটিং)
Syndicate content