'এম এস লায়লা' -এর ব্লগ

আত্মার খোরাক (১১)

গরীব মিসকিনের হক্ব সম্পর্কিত হাদীসঃ- 

"হযরত আবু হুরায়রা (রাযিঃ) হতে বর্ণিত, নবী করীম (সঃ) বলেছেনঃ অবশ্যই আল্লাহ তা'য়ালা কিয়মাতের দিনে ( আদম সন্তানকে লক্ষ্য করে) বলবেন, 

হে আদম সন্তান! আমি তোমার কাছে খাদ্য চেয়েছিলাম, কিন্তু তুমি আমাকে খাদ্য দাওনি। আদম সন্তান বলবে, হে পরওয়ারদিগার! আমি কি করে তোমাকে খাওয়াতে পারি, অথচ তুমি সমগ্র বিশ্বের প্রতিপালক? আল্লাহ বলবেন, তোমার কি মনে নেই তোমার কাছে আমার অমুক বান্দাহ খাদ্য প্রার্থনা করেছিলো, কিন্তু তুমি তাকে খাদ্য দাওনি। তুমি কি জানতে না যে, সেদিন যদি তুমি তাকে খাদ্য দিতে তাহলে অবশ্যই তা তুমি আমার কাছে পেয়ে যেতে। 

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

হে নববর্ষ কেমন তুমি?

হে নববর্ষ তোমার প্রতি রইলো

আমার একটি উপদেশ!

ধরাইও না আর তুমি মানুষেতে

মন্দ লোকের বেশ!

ঈমান হারা করোনা'কো

আদম সন্তানেরে!

নিওনা'কো তাদেরকে আর

জাহান্নামের দ্বারে!

হে মুসলমান তোমাদের তরে

একটি উপদেশ!

ধরোনা'কো কভু তোমরা

শয়তানেরই বেশ!

আল্লাহ তা'য়ালাকে ভয় করিয়া

সামনে বাড়াও পা!

বেধর্মীদের কলংক দিয়া

বাড়াইওনা ঘাঁ!

আল্লাহকে ভয় করিয়া

চললে সৎ পথে!

নাজাত পাবে দোহাজানে

যাবে জান্নাতে!

আর কি চাই এরচেয়ে দামী

ভাবো আরেকবার!

সময় থাকতে ও ভাই বোনেরা

হও যে হুশিয়ার!

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3.5 (2টি রেটিং)

ভাল বন্ধু হয়ে!! (ধারাবাহিক গল্প ১২তম পর্ব)

রোকেয়া ভাবি ভেবেছে পরশ হয়তো আগের মত করে ওর কাজ না থাকলে আসবে; কিন্তু না! পরশ এখন বাসায় থাকলেও আর রোকেয়া ভাবির ঘরে আসেনা। পরশের অনুপস্থিতি রোকেয়াকে খুবই কষ্ট দেয়। রোকেয়া ভাবি আজকে নিজেই পরশদের ঘরে আসে পরশ পরশ তুই কইরে? চাচী ও চাচী আমাগো পরশ কই? পরশের মা জবাব দেয় ও তো ভেতরের ঘরেই আছে কি যেন পড়া-শুনা করছে যাও বউ তুমি ভেতরে যাও কথা বলো পরশের সাথে। রোকেয়া ভাবি পরশের রুমে যায় গিয়ে দেখে পরশ একটি বই পড়ছে। রোকেয়া ভাবি জানতে চায় পরশ তোর কি হয়েছে রে? তুই তো আমারে একেবারে ভুলে গেছিস! কতদিন দেখিনা তোরে তাই আজকে চলে আসলাম! পরশ কোন জবাব দেয়ার আগেই ভাবি আবারো জানতে চায় পরশ তুই এখন কি করিস রে? রোকেয়া ভাবিকে দেখে পরশের চোখের কোনে পানি জমে ওঠে সে নিজেকে সামলে নিয়ে বলে ভাবি একটি বই পড়ছি, পড়বেন আপনি? আমি কি তোর মত এত শিক্ষিত যে, বই পড়তে পারবো? সেই কবে যে বই থেকে চোখ উঠিয়েছি আর কলম রেখে দিয়েছি ভুলেই গেছি প্রায় পনেরো ষোলো বছরে আগের কথা। এখন কিভাবে পড়বো বল? পরশ বলে ভাবি আপনি যা জানেন তা ও তো অনেকে জানেনা আপনি চেষ্টা করেন আল্লাহ সেই চেষ্টাতে সফলতা দিবেন ইনশা-আল্লাহ।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

পূর্ণ করো!

জালেম জুলুম করেছে একজন চর্মের মানুষের উপর! তাকে মিথ্যার স্বীকার হতে হয়েছে! আমরা রিক্ত হয়েছি, আমরা আহত হয়েছি, আমরা হারিয়েছি সত্যের সৈনিককে, সন্তান হারিয়েছে তাদের পিতাকে, স্ত্রী হারিয়েছে তার সঙ্গীকে, আর জনতা হারিয়েছে তাদের প্রিয়ভাজনকে, তার পরও আমাদের এই শান্তনা যে তিনি ঈমানী শক্তিকে হারাননি, হারাননি তার মনোবলকে, হারাননি তার ধীরতাকে, তিনি সহাস্যে চুম্বন করেছেন শহীদিকে, তার তামান্না পূর্ণ হয়েছে আর কি চাই পৃথিবীতে?

কেউ সারা জীবন নামাজ পড়ে গেলো, সারা জীবন যাকাত প্রদান করে গেলো, সারা জীবন রোজা রেখে গেলো, সারা জীবন হজ্জ করে গেলো কিন্তু ঈমান হারা হয়ে মরলো তাতে কি কোন লাভ হলো? হলোনা! কিন্তু কেউ সারা জীবন কিছুই করেনি কিন্তু ঈমান নিয়ে আল্লাহর সান্নিধ্যে গেলো সেই কামিয়াব হবে ইনশা-আল্লাহ! বাহ্যিক ভাবে আমরা রিক্ত, আমরা আহত কিন্তু কারোরই মনোবল হারালে চলবে না, আমাদেরকে মনোবল আরো বাড়াতে হবে, সামনে অগ্রসর হতে হবে, তবেই তো আমরা কামিয়াব হবো! হে আল্লাহ তোমার প্রিয় বান্দার বিয়োগে তার পরিবার সহ সকলকে উত্তমভাবে ধৈর্য ধারন করার তৌফিক দাও

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (2টি রেটিং)

ভাল বন্ধু হয়ে!! (ধারাবাহিক গল্প ১১তম পর্ব)

পরশকে আবারো কাছে পেয়ে রোকেয়া ভাবির মনে যেন আনন্দের বন্যা বাইছে।
যখন রোকেয়ার স্বামী ঘরে আসে, রোকেয়ার মুখ দেখে বলে কি রে রোকে আজকে তুই এত
খুশি কেন রে? রোকেয়া বলে আজকে আমার পরশ এসেছিলো আমার ঘরে তাই মনের মাঝে এত
আনন্দের বন্যা বইছে। রোকেয়ার স্বামী বলে তুমি কি আমার চেয়েও পরশকে বেশী
ভালোবাসো? রোকেয়ার জবাব আমি জানিনা তবে তুমি তোমার স্থানে আছো আর পরশের
জন্য আমার যে ভালোবাসা তা অন্য রকম ভালোবাসা এর বেশী ব্যাখ্যা আমি দিতে
পারবোনা। শুধু বলবো পরশ আমার বোনদের চেয়েও আপন। অন্য রকম আপনজন আমার পরশ।
পরশের পরশ ছাড়া আমি যেন মৃত পাথরের মত। রোকেয়ার স্বামী শুনে বলে এই ভাবেই
আল্লাহ যেন তোমাদেরকে সব সময় আনন্দিত রাখেন। আমি তো পাগল গুনাহগার বান্দা
এরচেয়ে আর বড় দোয়া করতে পারলাম না।

সেই রাতেই রোকেয়া ভাবি রাতের
শেষাংশে উঠে নামাজ পড়ে ও জায়নামাজে বসে ভাবতে থাকে যদি পরশের সাথে পরিচয় না
ঘটতো তবে আমি রোকেয়া নরকের কীটই থেকে যেতাম আর অবেশেষে ঠাঁই হতো
জাহান্নামের পেটে। এখন তো অন্তত আল্লাহর কাছে নিজ গুনাহের জন্য ক্ষমা চাইতে

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

আত্মার খোরাক (১০)

চাকর-চাকরাণী বিষয়ে হাদীসঃ-

আপনার খাদেম-খাদেমার সাথে কিরুপ আচরণ করবেন জেনে নিন এই হাদীস সমূহ থেকে আর খাদেম-খাদেমার খেদমত নিয়েও নেকী অর্জন করুন অতি সহজে।

"হযরত আবু হুরায়রা (রাযিঃ) হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ (সঃ) বলেছেনঃ তোমাদের চাকর-নকর বা দাস-দাসী প্রকুতপক্ষে তোমাদের ভাই। আল্লাহ তাদেরকে তোমাদের অধীনস্থ করেছেন। সুতরাং আল্লাহ যার ভাইকে তার অধীনস্থ করেছেন তারে উচিৎ সে যা খায় তাই তাকে খাওয়াবে এবং সে যা পরিধান করে তাই তাকে পরিধান  করাবে আর তার উপরে ক্ষমতা বহির্ভূত কোন কাজ চাপাবে না। একান্ত যদি চাপানো হয়, তাহলে কাজটি সমাধা করার ব্যপারে সাহায্য করবে।"
(বুখারী, মুসলিম)

"হযরত আবু হুরায়রা (রাযিঃ) হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ (সঃ) বলেছেনঃ যখন তোমাদের চাকর খানা তৈরি করে তোমাদের সামনে হাযির করবে, তখন তোমরা নিজের সাথে বসিয়ে খাওয়াবে। কেননা সে (রান্না ঘরের) ধোঁয়া ও তাপ সহ্য করেছে। আর যদি খানা কম হয়, তাহলে অন্ততঃ এক দুই লোকমা তার হাতে দিবে।"
(মুসলিম)

আপনার রেটিং: None

ভাল বন্ধু হয়ে!! (ধারাবাহিক গল্প ১০ পর্ব)

আর পাড়া-প্রতিবেশীর চোখেও আপনি খারাপ হবেন আর আল্লাহর কাছেও খারাপ হবেন সবচেয়ে বড় হলো আল্লাহর কাছে ভালো হওয়া আমাদের সকলের চেষ্টা হবে আল্লাহর কাছে ভালো হওয়া, আল্লাহকে খুশি করতে চেষ্টা করা, আল্লাহ যেভাবে চান সে পথে চলা তবেই হয়তো আমরা আল্লাহকে খুশি করতে পারবো ইনশা-আল্লাহ! আর সব সময় আল্লাহর ভয়কে মনের মাঝে জাগ্রত রাখা, আপনি কি করবেন? কোথায় যাবেন? কার সাথে কথা বলবেন? কাকে বন্ধু বানাবেন? সব তো আল্লাহ জানেন এই কারনে শুধু আল্লাহকে ভয় করবেন সব সময় তো তিনি দেখছেন, তিনি ভুল করতে শাস্তি দেবেন, আর নেকীর কাজ করলে নেকী দান করবেন ও ক্ষমা করবেন। সামান্য কোন ভূল ও যেন না হয় আমাদের দ্বারা।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

আত্মার খোরাক (৯)

প্রতিবেশীর হক্ব সম্পর্কিত হাদীসঃ-

উম্মুল মু'মিনিন হযরত
আয়েশা (রাযিঃ) হতে বর্ণিত, নবী (সঃ) বলেছেনঃ জিব্রাইল (আঃ) নিয়তই আমাকে
প্রতিবেশীর হক্ব সম্পর্কে তাকীদ দিচ্ছিলেন। এমন কি আমার ধারণা জন্মেছিলো
হয়তো প্রতিবেশীকে সম্পত্তিতে হক্বদার (ওয়ারিছ) করা হবে।"

(বুখারী, মুসলিম)

"হযরত
আবু হুরায়রা (রাযিঃ) হতে বর্ণিত, একদা রাসূলুল্লাহ (সঃ) (সাহাবাদের
মজলিসে) বলেছেনঃ আমি আল্লাহর কসম করে বলছি, সে লোকটি কিছুতেই ঈমানদার নয়,
আমি আল্লাহর কসম করে বলছি, সে লোকটি কিছুতেই ঈমানদার নয়,আমি আল্লাহর কসম
করে বলছি, সে লোকটি কিছুতেই ঈমানদার নয়, সাহাবীদের মধ্য হতে একজন জিজ্ঞাসা
করলেন, হে আল্লাহর রাসূল (সঃ)! ( এমন হতভাগ্য) লোকটি কে? হুযুর (সঃ) বললেন,
যার অনিষ্ট হতে তার প্রতিবেশী নিরাপদ থাকে না।"

(বুখারী, মুসলিম)

হযরত
ইবনে আব্বাস (রাযিঃ) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি রাসূল (সঃ) কে এ কথা বলতে
শুনেছি যে, যে ব্যক্তি তৃপ্তি সহকারে পেটপুরে ভক্ষন করে, আর তার-ই

আপনার রেটিং: None

ভাল বন্ধু হয়ে!! ( ধারাবাহিক গল্প ৯ পর্ব)

এভাবে প্রায় বছর খানেক চলে যায় কোরআন শিক্ষার আসরে এসে এসে। ভাবিও নামাজের
নিয়মিত সূরাহ গুলো ভালোভাবে শিখে নেয় পরশ থেকে। ভাবির পড়ার মনযোগ খেয়াল করে
পরশ বলে ভাবি এবার আপনি কোরআন পড়তে শুরু করেন আপনি পারবেন কারন আপনার
আগ্রহ ও চেষ্টা আপনাকে অনেক আগে বাড়িয়ে দেবে। ভাবি তেলোয়াত শিখে নেয় সূরা
ইয়াসিনের। সাথে প্রথম চারপারার তেলোয়াতও শিখে। ভাবি তো মহা খুশি কোরআন
তেলোয়াত করতে পেরে। এখন ভাইয়া ও খুশি। পরশকে কি দিয়ে খুশি করবে? তাই তারা
স্বামী স্ত্রী দুজনেই পরশের জন্য মন ভরে দোয়া করে। আল্লাহ যেন পরশের জন্য
উত্তম বরের ব্যবস্থা করে দেন এর চেয়ে বড় দোয়া কি হয় পৃথিবীর জীবনে?

কিছুদিন
পর পরশ বলে ভাবি আমার সামনে পরীক্ষা আর এখন আপনি একা একা কোরআন পড়তে পারেন
আপনি পড়তে থাকবেন। এখন থেকে আমি আর আসবো না। তবে কয়েকমাস পর পর এসে আপনার
পড়া শুনে যাবো। ভাবি তো পরশের এই কথা শুনে কাঁদতে শুরু করে, না পরশ তুই
আমাকে কোরআন খতম করিয়ে তারপর যাবি নয়তো আমি তোকে যেতে দেবনা। পরশ বলে ভাবি
এখন আর এমনটি করবেন না। আপনি নামাজ পড়তে পারেন, কোরআন তেলোয়াত করতে পারেন,

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.5 (2টি রেটিং)

আত্মার খোরাক (৮)

সন্তান-সন্তুতিদের হক্ব সম্পর্কে হাদীসঃ-
আমরা আমাদের সন্তানদের সাথে কিভাবে আচরণ করবো সেটাও জানিয়ে দিয়ে গেছেন আমাদের প্রানপ্রিয় নবী হযরত মুহাম্মাদ (সঃ)! আমার এই শ্রেষ্ঠ মানুষের জীবনীতে পাই কিভাবে চলতে হবে, কিভাবে বলতে হবে, কিভাবে লেন-দেন করতে হবে, এই শ্রেষ্ঠ মানুষের জীবনেই রয়েছে আমাদের জন্য উত্তম আদর্শ! আমরা সকলেই যেন তার উত্তম আদর্শে আদর্শিত হতে পারি আর আমাদের সন্তান-সন্তুতির মাঝেও সেই প্রিয় নবী (সঃ) এর আদর্শের আলো ছড়িয়ে দিতে পারি! আসুন সবাই একটু সময় ব্যয় করে জেনে নেই কিভাবে সন্তানের হক্ব আদায় করতে হয়। হতে পারে আপনার আমার সন্তানই আমাদের জান্নাতে যাওয়ার বা জাহান্নামে যাওয়ার কারন! আল্লাহ মাফ করুন আমাদেরকে। আর মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন আমাদেরকে তৌফিক দিন সন্তানদের মাঝে ইনসাফ করতে।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)
Syndicate content