'এম এস লায়লা' -এর ব্লগ

"হে ভাইয়া (বিবাহিত/ অবিবাহিত) আপনাকেই বলছি"

মনে বড্ড কষ্ট আর আফছূছ নিয়ে লিখছি। সামাজিক অবক্ষয়ে আমি  আপনি আমরা সবাইও কি ভেসে বেড়াবো? নন-প্রাকটেসিং পরিবারে আমার দ্বীন প্রাকটেসিং ভাইবোনগুলো সবথেকে যে সমস্যাটির মুখোমুখি হন তা হল বিয়ে নিয়ে। "দুনিয়াটাই সবুজ আকর্শণীয় সম্পদে ভরপুর, আর দুনিয়ার সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ হচ্ছে নেককার স্ত্রী।" বুখারী-মুসলিম।

প্রিয় ভাইয়ারা এ অমূল্য সম্পদ রক্ষা ও হেফাজত করতে অনেক বোনেরা খুব বেশী ভুগছেন তবে ভাইয়ারাও কম নয়। আসুন না আজকে না হয় ভাইয়াদের সমস্যাগুলো নিয়েই আলোচনা করি। এই লেখা দিয়ে ভাইয়াদেরকে একটু পরামর্শ দেয়া যায় কিনা! ভাইয়ারা যখন বিয়ের জন্য দ্বীনি পাত্রী খোঁজে তখনই সমস্যা গুলোর সূচনা। মায়ের পছন্দ সুন্দরী মেয়ে, ভাইয়ের পছন্দ স্মার্ট মেয়ে, বাবার পছন্দ শিক্ষিত মেয়ে, দুলাভাইয়ের পছন্দ চালাক-চতুর মেয়ে, বোনের পছন্দ শান্ত নমণীয় ব্যবহারের মেয়ে, আর আপনার নিজের পছন্দ দ্বীনি শিক্ষায় শিক্ষিত মেয়ে ইত্যাদি ইত্যাদি। যে মেয়ে প্রত্যেকের হক্ব বুঝবে পর্দায় থাকবে।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (2টি রেটিং)

অসম্ভবঃ অসম্ভবঃ

একজন মানুষের সবার প্রতি দায়িত্ব পালন করা সম্ভব নয়। আপনি সমাজ সংসার আত্মীয় সবার দায়িত্ব পালন করতে সচেষ্ট। আপনি সবাইকে কম বেশী কথায় শান্তনা দিতে চেষ্টা করেন, উপহার দিয়ে আনন্দিত করতে চান। অসুখে সেবা করতে না পারলেও অর্থ দিয়ে সহযোগীতা করেন। ঈদে খুব দামী না হলেও সাধ্যানুযায়ী দামে পোষাক দিয়ে সন্তুষ্ট করতে চান, করেন। আপনি প্রবাসে কষ্ট করেও চান পরিবারের প্রতিটা লোকের মুখে হাসি ফোটাতে কিন্তু সবাই কি আনন্দিত আপনার আচরণে? নাহঃ কখনোই সবাই আনন্দিত নয়। আপনি কখনোই সবাইকে সুখী ও আনন্দিত করতে পারবেন না। আপনার সর্বস্ব বিলিয়েও আপনি সবার মুখে হাসি ফোটাতে পারবেন না। আপনি ফুটপাতের পাশে চলা মানুষকে একটি রুটি দিলেও তারা খুশি হবে। আল্লাহর কাছে আপনার জন্য দু'হাত তুলে দোয়া করবে। কিন্তু আপনার আপনজনদেরকে আপনি শূন্য হয়েও যদি উজার করে দিতে থাকেন তাদেরকে খুশি করা সম্ভব না। কারন মানুষ এমন বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন প্রাণী তাদের অনেককে অনেক দিয়েও কখনোই খুশি, সুখী করা সম্ভব হয়না। আপনি তা কখনোই পারবেন না। এভাবে প্রতেকের জন্যই অসম্ভব ব্যপার সবাইকে সুখী করা।

আপনার রেটিং: None

"একটু নড়া' চড়ায়"

সমস্ত প্রশংসা আল্লাহর যিনি পাহাড়সম পাপে নিমজ্জিত থাকা মানুষকে এখনো বাঁচিয়ে রেখেছেন। যিনি অধিক পাপ করার পরেও চান তার বান্দা তওবাহ করুক। আল্লাহর প্রতি রুজ্জু হোক। আল্লাহর বিধানকে বাদ দিয়ে গত কয়েকদিনে পুজার যে আয়োজন চলছে মহান আল্লাহ বান্দাহকে জমিন সহকারে একটু নাড়া দিয়ে দেখলেন। মানুষ সঠিক পথে আসে কিনা। আমাদের এই দেশে ৯০/৯৫% ভাগ মুসলমানের দেশে যদি হয় মূর্তি পুজা তবে আর কি বলার আছে। মহান আল্লাহ তো অধিক ছবরশীল নয়তো মূতুর্ত্বেই সব খতম হয়ে কেয়ামত হয়ে যেত। একসময় বুঝতাম না আল্লাহর ছবর নামের মর্মার্থ। এখন বুঝি আসলেই মহান আল্লাহ যদি ছবরশীল না হতেন তবে পৃথিবী অনেক আগেই ধ্বংস হয়ে যেত।

আপনার রেটিং: None

"হে বোন তুমি জান্নাত হও (১ম পর্ব)"


হে বোনঃ তোমাকেই বলছি তুমি তোমার স্বামীর জন্য জান্নাতের বাগান হও। সে বাহিরে থেকে ঘরে এলো হাসি মুখে কথা বলো। তোমার হাসিমাখা মুখ তার সারাদিনের পরিশ্রমের কষ্টকে ভুলিয়ে দেয়। হে বোনঃ তুমিই দুনিয়ার জীবনের তোমার স্বামীর জন্য জান্নাত। আর তুমিই জাহান্নাম। তুমি যদি আল্লাহর কাছে উত্তম প্রতিদান পেতে চাও, চিরস্থায়ী জান্নাত পেতে চাও তবে অবশ্যই অবশ্যই তোমার স্বামীর সাথে উত্তম আচরণ করো। তুমি তোমার স্বামীর কষ্টে শান্তনার বাণী শোনাও। তার পেরেশানিতে ধৈর্যের কথা শুনাও। তোমার স্বামীর আনুগত্যই তোমাকে পৌছে দেবে জান্নাতের অতি নিকটে। জেনে নাও হাদীসে আমাদের নারীদেরকে কত সম্মান আর কত মর্যাদা দেয়া হয়েছে। আর জেনে জেনে আমল করো।

হযরত উম্মে সালামা (রাযিঃ) এর বর্ণনা মতে, রাসুলে আকরাম (সাঃ) বলেনঃ কোন স্ত্রী লোক যদি এমন অবস্থায় মারা যায় যে, তার স্বামী তার উপর সন্তুষ্ট, তবে সে জান্নাতে প্রবেশ করবে। তিরমিযী)

১. স্বামীর আনুগত্য :

আপনার রেটিং: None

"মাকে মনে পড়ে"


প্রবাস জীবনের স্মৃতি
স্বরণে মায়ের মুখের প্রতিচ্ছবি ভেসে আসছে বারংবার। আজকে মদিনারাকাশে মেঘ।
তবে বৃষ্টির চাইতে ধূলির ঝড়ে চারিদিকে ধূলায়িত। কোন কিছুই দেখা যাচ্ছে না
আশ-পাশের। উথাল-পাথাল এলো হাওয়ায় ধোঁয়া ধোঁয়ায় ধূলি মলিন চারিদিকে
দিন-দুপুরও যেন রাতের মতো রুপ নিয়েছে। একটু একটু ঝরে পড়েছে বৃষ্টির রুপে।
বৃষ্টি তেমন হয়নি তবে হালকা বৃষ্টি হওয়াতে ধূলো কিছুটা কমলেও মদিনা পুরো
শহরটা আজকে যেন স্তব্ধ হয়ে আছে। চারিদিকে দমকা বাতাস বইছে। মাঝে মাঝে
আকাশের গর্জনী ধ্বনী কানে ভেসে আসছে। এমন ও ক্ষনে পড়ছে মনে মাকে। হৃদয়ের
তন্ত্রীতে মায়ের ছবি ভেসে ওঠে। কতদিন দেখিনা মায়ের মুখ। প্রবাস মানেই কষ্ট
বয়ে বেড়ানো। প্রবাস মানেই মায়ের মমতার আঁচল ছেড়ে দুরে বসবাস করা। আজকে মাকে
খুবই মনে পড়ছে। মনে পড়ছে মায়ের আদর গুলো।

বড়পরিবার হলে মায়েরা
যেভাবে আদর যত্ন করেন ঠিক আমার মা আমাদেরকে সেভাবে যত্ন করতেন। বড়পরিবার
হওয়ার কারনে সবাইকে একসাথে যত্ন করা কঠিন হয়ে পড়তো। খাবার-দাবার ঠিক মতই

আপনার রেটিং: None

"দাওয়াত"

রাত পেরিয়ে গভীর হলো
ভোর যে কিছু বাকি!
ঘুম ভাঙানির গান শুনাবে
ছোট্ট সকল পাখি!

ঝাকে ঝাকে কলতানে
ডাকবে নামাজ পড়ো!
মুয়াজ্জিন ও ডেকে বলে
আল্লাহ সবচেয়ে বড়!

বিসমিল্লাতে জেগে উঠে
শুরু করো দিন!
প্রত্যেক কাজে যাচাই করো
ঈমান একীন!

মগজকে ব্যস্ত রাখো
কোরআন হাদীস পড়ে!
নবী (সঃ) এর আদর্শেতে
নাও গো জীবন গড়ে!

নিজে আমল করো
দ্বারে দ্বারে দাও দাওয়াত!
নবী (সঃ) এর কাজ করলে
পাবে তার শাফায়াত!

আযাব থেকে বাঁচতে যদি
করো দ্বীন প্রতিষ্ঠার কাজ!
মুক্তি পাবে জাহান্নাম থেকে
পাবে জান্নাতের তাঁজ!

দুনিয়ার কাজ প্রয়োজনে করো
দাওয়াতী কাজ করো বেশী!
তবেই ক্ষমা পাবে সবে
হবে জান্নাতবাসী!

মদিনা মনোয়ারা সৌদি আরব
৩০ শে আগষ্ট ২০১৫

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4 (2টি রেটিং)

"স্বাধীনতা নয়"

অমর একুশে ভাষা দিবসে
ইংলিশে গাই গান।
একদিনেই  অ আ ক খ বলে
উজার করি প্রাণ।
একেই বলে বাঙালি আর
ভাষার প্রতি টাণ।
বাংলা ছেড়ে বছর ধরে
ইংলিশে হই মর্ডাণ।

পাজ্ঞাবী আর লাল শাড়িতে
একদিনই হই বাঙালি।
সারা বছর টু পিস পরে
বৈশাখে হই পান্তা ভাতের কাঙালি।
এতো খাঁটি বাঙালি নয়
বাঙালি সাজার ঢং।
বহু রঙে বহু রুপে
একদিনে সাজে সং।

ছাব্বিশে মার্চে মনে পড়ে
দিবস স্বাধীনতার।
তিনশত চৌষট্টি দিনেই
শিঁকল পরাধীনতার।
একদিনে আর স্বাধীনতার শ্লোগানে
লাভ কি বলো তাতে?
বাংলা ভাষা, স্বাধীনতা পাইনি
আড়াই যুগের জীবনে।

ষোলোই ডিসেম্বর বিজয় দিবস
হয়েছে কি বাস্তবে বিজয়?
নাকি শুধু লক্ষ প্রাণের
হয়েছিলো রক্ত ক্ষয়?
লক্ষ প্রাণের বিনিময়েও
পাইনি স্বাধীনতা।
আড়াই যুগ পরেও তাই
ঘুচেনি মনের ব্যথা।

ভাষা দিবস, স্বাধীনতা দিবস
বিজয়-দিবস বলে।
রাজনীতিবিদদের রাজনীতি নয়

আপনার রেটিং: None

"জীবনের ধাপ"

জীবনটা
ফু‌লের সুবা‌সের ম‌তো, দুঃখ সু‌খের সুবাস ছড়ায়। বয়ষটা গোলা‌পের মতো,
প্র‌তি‌দিন এক‌টি এক‌টি ক‌রে ঝ‌রে যায়। এরই মা‌ঝে থা‌কে কত হা‌সি আর গান,
কখ‌নো দুঃখ ম‌নে কখ‌নো আন্দ‌লিত প্রাণ। এই নি‌য়ে বয়ে যায় জীব‌নের ভেলা।
এভা‌বেই সাঙ্গ হ‌বে জীব‌নের খেলা। তবু লো‌কে স্বপ্ন দে‌খে কিছু পাবার
আ‌শে, জীবনটা পূর্ণতায় কা‌টে প্র‌িয়তম আছে পা‌শে। প্র‌তি‌টি জীবনের সুখ
কামনায়, ভ‌রে উঠুক সবার জীবন সু‌খে কানায় কানায়। এই
হৃদ‌য়ের.......................।

আপনার রেটিং: None

"হঠাৎ বৃষ্টির মতোন"


"হঠাৎ বৃষ্টির মতোন"

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

"স্বজনপ্রীতি বা আত্মীয়তার সম্পর্ক"

আল্লাহ রাব্বুল আলামীন "রাহেম" এর মর্যাদা বুলন্দ করেছেন। স্বীয় নাম থেকে এর উৎপত্তি ঘটিয়ে একে সম্মানিত করেছেন। মহান আল্লাহ তা'য়ালা বলেন; আমি রাহমান। 'রাহেম'কে আমি সৃষ্টি করেছি এবং নিজের নাম থেকে এর নাম করন ঘটিয়েছি। যে একে রক্ষা করবে, আমি তাকে রক্ষা করবো। আর যে, একে ছিন্ন করবে আমি তাকে ভুলে যাব।
'হাদীসে কুদসী'
সুতরাং প্রকৃত মুসলিম অবশ্যই 'রাহেমের' মর্যাদা অক্ষুন্ন রাখার মাধ্যমে মহান আল্লাহর সাথে সম্পর্ক টিকিয়ে রাখবে, নিজেকে তাঁর রহমত-বরকত আর নিয়ামতের সু-শীতল ছায়ায় অবস্থানের যোগ্য করে তুলবে। অন্যথায় জীবন হয়ে উঠবে আল্লাহর করুনাবিহীন অশান্ত, দূর্ভোগ আর নানা বালা-মুসিবতে পরিপূর্ণ।
একজন সত্যিকার মুসলিমের দয়া-ভালোবাসা-সদ্ব্যবহার ইত্যাদি শুধু তার পিতা-মাতা, স্ত্রী কিংবা সন্তানদের জন্যই বরাদ্দ থাকবেনা বরং এর শাখা-প্রশাখা ক্রমশ প্রসারিত হয়ে আত্মীয়-স্বজনদেরকেও শামিল করে নেবে। আর 'আরহাম' বলা হয়- 'যে সকল আত্মীয় বংশীয় সূত্র ধরে কারো সাথে সম্পৃক্ত হয়। চাই তারা তার সম্পত্তির অধিকারি হোক কিংবা না হোক।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)
Syndicate content