'নবকবি' -এর ব্লগ

উপসংহার

আজ ফাগুনের আগুন বনে-
জনহীন মনের ময়দানে
তোমার স্ববিরোধীতার কথা কই!
তুমি এখন ক্ষমতাসীন, আমি ভিন্নমতের সই!
আজ ফাগুনের রাঙা দিনে-
তুমি মনের ময়দানের মহাসমাবেশে এসে
আমায় ঘোষণা দিলে অবাঞ্ছিত, তুড়ি দিয়ে হেসে।
তোমার আমার পথ করলে পৃথক, ঘোষণা দিয়ে
আমি হলাম বহিস্কৃত, তোমার থেকে প্রিয়ে।
তোমার সাথে হয়নি বলে আমার সহমত
কৌশলে কি তাই আমারে করলে আহত,
ছিড়ে দিলে দোহের মাঝে ছিল যা মায়ার জাল
আমার বুকের রক্তে তোমার মসনদ হল লাল।
আজ বসন্তের সমীরণে-
চাই যে তোমার ক্ষমতার অবসান
তোমার বেদীজুড়ে করলে জারি, নিষেধাজ্ঞার বাণ!
নিষেধাজ্ঞা মানব না আর, মানবনা’ক শোষণ
চলবেনা আর ভিন্নমতের পরে দলন, অপশাসন।
তোমার চোখে চেয়ে বলব এসব, সাহস আমার কই
তাই পরাজয়ের গ্লানি নিয়ে লুকিয়ে বেড়াই সই!
নাই জনমত, জনবল আমার, নাই সমর্থনের বাড়াবাড়ি
বহিস্কৃত আমার পরে কিসের এত কড়াকড়ি
কিসের তোমার শঙ্কা?
আমি অক্ষম পুনুরুদ্ধারে তোমার বেদীলঙ্কা!

আপনার রেটিং: None

ঢাবিতে সান্ধ্যকালীন মাস্টার্স ভর্তি সম্পর্কে জানতে চাই...

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজকর্মে অনার্স করে মাস্টার্স ভর্তি হওয়া আমার
এক বন্ধু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকর্ম ও গবেষণা বিভাগে সান্ধ্যকালীন
স্নাতকোত্তর শ্রেণীতে পরীক্ষা দিয়ে টিকেছে।
সেখানে এক বছরে টাকা নেবে ৭৫ হাজার। শিক্ষার্থী নেবে ১৫০ জন। তাও ভর্তিচ্ছুদের নিয়মিত মাস্টার্স বাতিল করে আসতে হবে।
ঢাবিতেও এতো টাকা, তার উপর ১৫০ জনের বিশাল বহরে আসলে পড়ালেখার মান কেমন হবে তাই নিয়ে ভাবছি।
সবচেয়ে বড় কথা রেগুলার মাস্টার্স থেকে এই ডিগ্রী কি উচুমানের হবে?

ঢাবির সমাজকর্ম বিভাগে পড়ুয়া বা এ সম্পর্কে ওয়াকিবহালদের কাছে প্রকৃত তথ্য জানতে সাহায্য চাই।

আপনার রেটিং: None

স্বাধীনতা বিরোধীতা

তোমার জন্ম,আমার জন্মরে ষোল বছর আগে ।
তোমার জন্মরে ইতিহাস-
তোমার শৈশবের আদিঅন্ত-
তোমার কৈশোরের উচ্ছ্বলতা আমি দেখিনি,
শুনেছি
তোমার তারুণ্যে আমার আগমন হলে ও
বোঝার বয়স আমার তখনও হয়নি
যখন আমি বুঝতে শিখেছি
তখন তোমার দুরন্ত র্দুবার যৌবন।
ঠিক সেই থেকে প্রতিনিয়ত
আমি তোমার বিরোধী!
হে আমার প্রিয় স্বাধীনতা!
অথচ তুমি আসবে বলে
সকল স্বপ্ন সাধ জলাজ্ঞলি দিয়ে
নিজেকে উৎর্সগ করছেলি
আমার অগ্রজ ত্রিশ লক্ষ বাংলাদেশী।
তোমার জন্ম যাতে আনন্দঘন নিষ্কন্টক হয়
তার জন্যে নারীত্বের সবচেয়ে বড় সম্পদ
হারিয়েছিল দুই লক্ষ বোন আর মা।
তাদের লাশ আর সম্ভ্রমের বিনিময়ে
তুমি এসছে, হসেছে বড় হয়ছে!
কথা ছিল তুমি এলে
বাংলাদশেরে পরতে পরতে দূর হবে লাঞ্ছনা
নিপীড়িত জনতার মুখে ফুটবে হাসি
থাকবেনা মহামারী র্দুর্ভিক্ষ, ত্রাস আর হত্যা।
তোমার যৌবনের প্রায় শেষ
এখনও ফুটপাতে রাত্রিযাপন করে লাখ মানুষ
অর্ধাহারে অনাহারে দিন কাটায় অগণিত প্রাণ

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (2টি রেটিং)

জরুরী তথ্য চাই

স্বাধীনতা পরবর্তী সময় থেকে বর্তমান পর্যন্ত বাংলাদেশে মোট কি পরিমাণ সড়ক,
নৌ ও স্থল পথ তৈরী হয়েছে বা কমেছে। প্রতি পাচ বছর পর পর কোন ধরণের পথের
কতটুকু বৃদ্ধি বা হ্রাস ঘটেছে এবিষয়ে জানতে চাই।
অনুগ্রহ করে এবিষয়ে কোন তথ্য বা তথ্যের উৎস জানালে উপকৃত হব।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3.5 (2টি রেটিং)

আল্টিমেটাম

সুন্দরীতমা আমার!
যদিও এখন দেশ রসাতলের তলানিতে পৌছে গেছে
গনতন্ত্রের নামে দেশে চলছে নব্য বাকশাল
নির্বাচিত জন প্রতিনিধিদের সন্ত্রাস।
তবুও এখনও আমার প্রতিটি ঘুমহীন রাতে
রাতের চাঁদকে তোমার মুখাবয়ব ভেবে ভ্রম হয়!
এই চাদ ডুবে যাক, বা মেঘে ঢেকে যাক
যাই হোক-
অশরীরী হয়ে এলেও আমার নির্জন জানালায়
প্রতিটি গহীন রাতে তোমাকে আসতেই হবে।
গুম আর হত্যার আতঙ্কে আতঙ্কিত নিরীহ জনতা
সন্ত্রাসী হামলার আশঙ্কায় সন্ত্রস্ত্র রাজনীতিবিদরা।
সুখী দেশের তালিকায় নাম এলেও
দেশের মানুষের মুখে হাসি নেই!
তবুও আমার প্রতি পদক্ষেপেই
অবচেতনে তোমার হাসি আমাকে দিকভান্ত্র করে দেয়,
দেশের কোন মানুষের মুখে হাসি না থাক
মিথ্যা করে হলেও প্রতিনিয়ত তোমায় এমনি করে
হেসে উঠতে হবে প্রিয়তমা।
অনাবৃষ্টি আর খরায় কৃষকের আহাজারি বেড়েছে
মানুষের চোখের বন্যায় হৃদয় প্লাবিত হচেছ প্রতিনিয়ত,
তাই সত্যিকারের অসময়ের বৃষ্টি এলে
বৃষ্টিকণাকে তোমার অশ্রু ভেবে বিষণœতা আসে।
এরপর বৃষ্টি হলে তোমাকে

আপনার রেটিং: None

পত্রিকায় প্রকাশের জন্য সাম্প্রদায়িক সংঘাত নিয়ে মন্তব্য চাই...

বিশ্বব্যাপী কোরআন অবমাননা নিয়ে উত্তাল অবস্থার রেশ কাটতে না কাটতেই
বাংলাদেশেও কোরআন অবমাননার ঘটনা ঘটেছে। তারই রেশ ধরে কিছুদিন আগে রামু আর
উখিয়ায় ঘটে গেল দেশের অন্যতম নারকীয় সাম্প্রদায়িক হামলা।
বিচ্ছিন্ন ভাবে চলছে কোরআন অবমাননা, মূর্তি ও প্রতিমা ভাংচুর, বিভিন্ন
উপাসনালয়ে হামলা এবং সাম্প্রদায়িক সংঘর্ষ। অথচ ধর্ম শান্তির কথা বলে,
সম্প্রীদির কথা বলে। সম্প্রীতির বাংলাদেমে তবে কেন সাম্প্রতদায়িকতার এই
বিষবাষ্প। কি এর কারণ, এর পেছনে কলকাঠি নাড়ছে কারা, কারা হচ্ছে লাভবান?
এই বিষয়ে আপনার মূল্যবান মতামত ২০০ শব্দে লিখে পাঠান আজকের মধ্যে। আপনার লেখা প্রকাশিত হতে পারে পাক্ষিক একপক্ষ’র (http://www.ekpokkho.com)
ঈদ সংখ্যায়।
লেখার সাথে আপনার নাম, পেশা ও প্রতিষ্ঠানের নাম ও ছবি পাঠান এই ঠিকানায়: nabokobi@gmail.com

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3.5 (2টি রেটিং)

বাংলাদেশের তৈরী 'অ্যান্ড্রয়েট স্মার্টফোন"।

বাজারে আসছে প্রথমবারের মত বাংলাদেশে উৎপাদিত 'অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন'।
সাম্প্রতিক সময়ে আলোচিত ইলেকট্রিক কোম্পানী 'ওয়ালটন' বাজারে আনছে এই
অত্যাধুনিক সুবিধা সম্বলিত ফোন। দেশের সাধারণ গ্রাহকের কথা চিন্তা করে
সাধ্যের মধ্যে এই স্মার্টফোনের দাম নির্ধারণ করা হবে বলে জানিয়েছেন
ওয়ালটনের বিপণন বিভাগ। দেশী প্রযুক্তিতে তৈরী এই মোবাইল ফোনের নামকরণ করা
হয়েছে 'ওয়ালটন অ্যান্ড্রয়েড প্রিমো'।
তৃতীয় প্রজন্মের বৈশিষ্টপূর্ণ এই মোবাইল হ্যান্ডসেটটি হবে অত্যন্ত
আকর্ষণীয়। ‘গেট অ্যান্ড্রয়েড প্রিমো-বি এন্টারটেইন্ড’- শ্লোগান নিয়ে বাজারে
আসা এই ফোনে থাকবে তৃতীয় প্রজন্মের সেলফোনের কাঙ্খিত প্রায় সবকিছুই।
এছাড়াও থাকবে মাল্টিমিডিয়ার সব সুবিধা। আগামি কয়েকদিনের মধ্যেই ওয়ালটনের এই
স্মার্টফোন ওয়ালটন প্লাজা ও পরিবেশকদের মাধ্যমে সারাদেশে বাজারজাত করা
ছবি: 
আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

পত্রিকায় জনমত (সাক্ষাৎকার)

পাক্ষিক একপক্ষ (http://www.ekpokkho.com) পত্রিকার আগামী সংখ্যায় ‌'তত্ত্বাবধায়ক না অন্তবর্তীকালীন, কোন সরকার এবং কেন' এই বিষয়ে জনমতভিত্তিক সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হবে।
এবিষয়ে আগ্রহীরা উপরোক্ত বিষয়ে ৩০০ শব্দের মধ্যে নিজের মতামত পাঠাতে পারেন।
লেখা ছবি ও নিজের নাম পরিচয় আগামী ৮ অক্টোবরের মধ্যে পাঠিয়ে দিন nabokobi@gmail.com এই মেইলে।
বি: দ্র: ছোট গল্প ও কবিতাও পাঠাতে পারেন।

আপনার রেটিং: None

কবিতা ও ছোট গল্প আহ্বান

বিশ্ব বাঙালির ১৫দিন শ্লোগান নিয়ে প্রতি পক্ষ (১৫দিন) অন্তর অন্তর প্রকাশিত হচ্ছে 'পাক্ষিক একপক্ষ'।
একপক্ষ'র আগামী সংখ্যার জন্যে ছোটগল্প ও কবিতা আহ্বান করা যাচ্ছে।
আগ্রহীরা লেখা পাঠাতে পারেন এই ঠিকানায়:
nabokobi@gmail.com

আপনার রেটিং: None

সেইদিন

আজকের দিনটা-
ইতিহাসে আলাদা পরিচিতি পাবেনা কোনকালেও।
কারো জানাই হবেনা
আজকের দিনের পটভুমি!
কোনদিনও কেউ করবেনা কোন আয়োজন
এই দিনটাকে ঘিরে,
আজকের দিনকে নিয়ে
কোন কবিই লিখবেনা দু’ছত্র
কোন লেখকেরই লেখা থাকবেনা দু’কলম।
প্রিন্ট আর ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ায় থাকবেনা
আজকের দিনের কোন মাহাত্ম বর্ণনা।
কোন শিল্পীর তুলিতে মূর্ত হবেনা জানি
আজকের দিন।
কোন গায়কের কণ্ঠে গীত হবেনা
আজকের মর্মগাথাঁ।
জনারণ্যে, মাঠে, ময়দানে
বাসে আর চায়ের দোকানের আলাপচারিতায়
কখনো আসবেনা আজকের প্রসঙ্গ।
শিক্ষার্থী, তরুণ, বুদ্ধিজীবী কিংবা আমজনতা
কেউই আজকের দিন নিয়ে করবেনা কোন আলোচনা।
আজকের দিন উপলক্ষ্যে থাকবেনা
রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী আর বিরোধী দলীয় নেতার বাণী।
পত্র-প্রত্রিকায় কলাম আর সম্পাদকীয়।
সেনাবাহিনীর থাকবেনা’ক কোন আয়োজন
বিদেশী রাষ্ট্রদূতদের শুভকামনা।
আজকের দিন নিয়ে প্রেমিক যুগলদের মধ্যে
থাকবেনা কোন আগ্রহ,
নির্মাতাদের কোন উৎসাহ।

আপনার রেটিং: None
Syndicate content