'সাদা মেঘ' -এর ব্লগ

প্রতিদান!!

এই তো কিছুক্ষন আগে জামায়াত নেতা কামারুজ্জামান কে ফাঁসি কার্যকরের মাধ্যমে শহীদ করা হয়েছে!! ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন!!

“হে প্রশান্ত আত্মা, ফিরে যাও তোমার পালনকর্তার নিকট সন্তুষ্ট ও সন্তোষভাজন হয়ে। অতঃপর আমার বান্দাদের অন্তর্ভূক্ত হয়ে যাও। এবং প্রবেশ করো আমার জান্নাতে।”
(আল-কুরআন : সূরা আল-ফাজরঃ ২৭-৩০)

হে আল্লাহ তুমিও আজকে নিরব রয়েছো, দেখেছো শুধুই একজন দর্শক হয়ে, তুমিই আসল সাক্ষ্যি হয়ে আছো কে জালেম আর কে জুলুমের স্বীকার? সেদিন ন্যায় বিচার করো হে মালিক! আজকের আদালতে যে জুলুমের স্বীকার হয়েছে তাকে সেদিন তুমি তাকে ন্যায় বিচার করো! হে পৃথিবী তুমি আজ নিরব! তারপরও তুমি সাক্ষ্যি থেকো! হে আসমান তুমিও নিরব দর্শক আজি! তারপরও তুমি সাক্ষ্যি থেকো! কে জালেম? আর কে জুলুমের স্বীকার? জামায়াত নেতা কামারুজ্জামানের প্রতিদান একমাত্র আল্লাহর নিকট! আমরা দোয়া করি মহান আল্লাহ তাকে জান্নাতের বাসিন্দা করে নিন!

১১ ই এপ্রিল ২০১৫

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

আছি আজব দেশে!!

আমি যে কোন দেশি? কি আমার জাতি?

কি আমার পরিচয়। ভুলে গেছি যেন এই সময়

কি শুনি রোজ রোজ? কে রাখে কার খোজ?

প্রতিদিন সকালে পত্রিকাতে তাকালে দেখি শুধু যুবক হত্যা অকালে।

আমি সরল, তায় কঠিন বুঝিনা ভুলে গেছি আমাদের ঠিকানা।

মনে হয় কোন প্রবাসে আছি পড়ে কেউ কাউকে নেয়না আপন করে।

প্রতিদিনের খবরে কত কি যে উঠেরে কেউ দেখে না আসলে খুটেরে।

সবাই যেন ব্যস্ত দেশকে গিলে খেতে আস্ত।

কি হবে আমার এই দেশেররে এতসব ভেবে মনটা তাই হতাশরে।

মাঝে মাঝে ব্যাংক লুট যেন দেশটা শুধু হরিলুট।

কত যে হয় খুন নারীরা বাদ নেই এর থেকে শিশুরা।

যুবকও যেন শেষ হয় বড়দের মানতে যে আসে সেই নাকি সুখ আসে আনতে।

সুখ তো আসেই না, মাঝে শুধু নেতা বদল ভোটের আগে বলে এই করবো সেই করবো উভয় দল।

মনে থাকেনা পরে জনগণের কথা নেতা হয়ে আসলে যখন থাকে ক্ষমতায় ভুলে যায় সে নেশায়, নেতার আসনে বসলে।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4 (2টি রেটিং)

তুমি ও আমি!!

বয়ষ বেড়েই চলেছে বিয়ে হচ্ছেনা। লোকে কত কথাই না বলছে মেয়েটাকে যেন
বিয়ে না হওয়াটা মেয়ের জম্মের দোষ। আল্লাহর হুকুম যখন হবে তখন কি কেউ বিয়ে
ধরে রাখতে পারবে? অথচ মেয়েটাকে কত যে লাঞ্চনা করছে এটা সেটা বলে। মেয়েটা
নিরবে কেঁদে যায়। আর আল্লাহকে বলে হে আল্লাহ কারো না কারো সাথে তো কোন না
কোন সময় আমার বিয়ে হবে তবে কেন তুমি আমাকে লোকের মুখের কথা শুনাচ্ছ?

তুমি
কি আমাকে পছন্দ করে বানাওনি? তুমি কি আমার সঙ্গীকে সৃষ্টি করনি? তবে আর কত
দেরি করবে বিয়ে সম্পন্ন করতে? আর কতদিন আমি মানুষের দেয়া আঘাত পেয়ে নিরবে
চোখের অশ্রু ঝরাবো? তুমি এবার ভালো কিছুর অপেক্ষা করছি। যে আমার জীবন সাথী
হবে সে যদি দেশে না ও থাকে তুমি তাকে কান ধরে দেশে এনে দাও আর অপরের দোষ
নিয়ে যারা চর্চা করে তাদের মুখে লাগাম লাগিয়ে দাও

এভাবে প্রার্থনা
করতে করতে প্রায় চার বছরের মাথায় মেয়েটির বিয়ে ঠিক হয় একজন প্রবাসীর সাথে।
মেয়েটি মনে মনে ভাবে সেই তো বিয়ে হবেই তবে মানুষের কত যে কথার মুখোমুখি
হয়েছি, কত যে চোখের পানি ফেলেছি, আর সেইসব কষ্টের সম্মুখিন হতে হবেনা

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

মাতৃ যাতনা!!

সাধনা আর অপেক্ষার পরে একটি জান্নাতের পায়রা এসেছিলো কোলে।
নির্দিষ্ট কিছুদিন থেকে ছিলো অধরে। আবারও পাড়ি জমিয়েছে জান্নাতে। জান্নাতের
সবুজ পায়রা হয়ে উড়ছে জান্নাতের আকাশে। অল্পক্ষনের মেহমান হয়ে এসেছিলো সে,
চলে গেছে আবার নিরবে দুটি আত্মাকে তৃষিত করে। এথার রিযিক গ্রহণ করেনি,
হাউজে কাউসার পান করবে বলে। পরিধান করেনি এথার পোষাক, জান্নাতের সবুজ ও
মহামূল্যবান পোষাক পরিধান করবে বলে। সেই কলিজার টুকরো নয়নমনিকে ঘিরে
দু'জোড়া চোখ অশ্রুসিক্ত হয়ে প্রহর গুণছে দেখা হবে....দেখা হবে....দেখা হবে
সেই সাধনার রত্নের সাথে এপারে নয় ওপারে জান্নাতের সিঁড়িতে...

বিষয়: সাহিত্য

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.5 (2টি রেটিং)

হতাশিত হই বারে বার!

একটা সময় জানতাম ডাক্তার হলেন নতুন জীবনের উছিলা! একটা জীবন মৃত্যুর
ঠিক কিনারা থেকে একজন ডাক্তারের সহযোগীতায় ও সহমর্মিতায় আবারো নতুন জীবনের
সূচনা পায়! পায় আরো কিছুদিন পৃথিবীকে দেখবার সুযোগ! একজন ডাক্তারের
দায়িত্ববোধ ও মানুষের প্রতি তার উদারতা পূর্ণ ব্যবহার তাকে সম্মানের
উচ্চাসনে বসায়! সে হয় মানুষের কাছে শ্রদ্ধার পাত্র! মানুষ তাকে তার উদরতা
পূর্ণ ব্যবহারের কারনে সমীহ করেন সবসময়! মনটা খুবই খারাপ হয়ে গেলোআজকের অন
লাইন পত্রিকা পড়ে! মনে হলো পৃথিবীটা কি তার সঠিক অবস্থানে আছে? নাকি আস্তে
আস্তে ধ্বংসের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে! কোন সুস্থ বিবেকবান মানুষের সামনে
কিভাবে একজন অসুস্থ রোগীর প্রতি অবহেলা ও তার প্রিয় সন্তান মৃত্যুর কোলে
ঢলে পড়লেন শুধুমাত্র কাগজের টাকার কাছে বিক্রিত কয়েকজন ডাক্তার ও নার্সের
আচরণে! তারা কি পারতো না সামান্যতম সহযোগীতার হাতকে প্রসারিত করতে! একজন
ডাক্তারের মানবতার যদি এই করুন অবস্থা হয় তবে মনে হয় পৃথিবীটা তার সঠিক
অবস্থানে নেই! আমরা সকলেই আমাদের মানবতাকে বিক্রি করেছি, আমাদের সঠিক

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3.7 (3টি রেটিং)

সবাই মানুষ ভাবতে খারাপই লাগে!

পৃথিবীতে সবাই আমরা মানুষ! এরপরও সবার মাঝে নানা রকম ভেদাভেদ! কেউ
বিলাসিতার উচ্চাসনে বসে আছে! আর কারো অবস্থান গাছতলাতে! কেউ হাজার টাকায়
মার্কেট করে! আর কেউ ঈদের দিনেও পেট ভরে খেতে পারেনা! কত বৈষম্য আমাদের
মানুষের মাঝে? কেন এমনটি হয়? কেন সবাই সবাইকে আরো একটু কাছে টেনে নেয়না?
কেন আরেকটু আপন করেনা? কেন একজন আরেকজনের চোখের অশ্রু মুছে দিতে উদ্যত
হয়না?

একটি বাস্তবতা বনাম আমরাঃ-

ঈদের দিন! সবাই নিজ নিজ
ঘরে আপ্যায়িত হয়! আর আমাদের মাঝেই কেউ কেউ এই দিনেও সরনাপন্ন হোন আরেক জনের
ঘরে! মেহমান হয়ে নয়! একজন কাজের লোক হয়ে! তাতেও তাদের আপত্তি থাকেনা! কারন
কোন না কোন ভাবে সময় তো কাটবে! আর কাজের মাঝে থাকলে মনটাতে কষ্টের
উপস্থিতিটাও কম হবে! আর এসব ভাবতে ভাবতেই মালিকের বাড়ির দিকে পা বাড়ান
আমাদেরই এক বোন পরি! কোরবানির ঈদ বলে কথা! কত কাজ! বাড়ির কর্তী কত কাজ রেডি
করে রেখেছে! বাসার কাছে গিয়ে বাহিরে থেকেই শুনতে পান আজকে যদি কাজে না আসে
ঈদের পরেও আর কাজে রাখবেনা! বাদ করে দিবে! পরি এসব শুনেও দরজায় ঠক ঠক দেয়!

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3.5 (2টি রেটিং)

উপহার!!

ভালোবাসার বিনিময়ে ভালোবাসা
সে তো ভালোবাসা নয়!
সে তো শুধু বিনিময়
তাকেই পেতে কাংখিত হৃদয়!

কষ্টের সাথে ভালোবাসাই হলো
আসল ভালোবাসা!
ভালোবাসার সাথে কষ্ট
কেউ করেনা প্রত্যাশা!

তবু কেন ভালোবাসার সাথে
কষ্ট থাকে জড়িয়ে?
কেন তবে কেউ কষ্ট বিনে ভালোবাসাকে
নিতে পারেনা উঠিয়ে?

ফুলের সাথে কাঁটা থাকবে
এটাই ধরার নীতি!
কষ্টের সাথে ভালোবাসা নিয়েই
এই জীবনের প্রীতি!

কাঁটা ছাড়া ফুল আর
কষ্ট ছাড়া ভালোবাসা চাওয়া সবার!
ভালোবেসে কেউ কাঁদতে চায়না
চায় ভালোবাসার উপহার!

২ই জুলাই ২০১৪

বিষয়ঃ- সাহিত্য

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.5 (2টি রেটিং)

ঈদ মোবারক সবাইকে!!

ঈদ মোবারক ঈদ মোবারক

দেশ বিদেশের সবাইকে!

আপন পর সবাইকে

কাছে টানুক এই ঈদে!

কোরবানি আর উদারতা 

দুইটা দিলে সবে!

পরিপূর্ণ আনন্দিত 

সকল মন হবে!

আজকের এই ঈদের দিনে

বাদ রাখবোনা কাউকে!

আমার ঘরে ঈদের দাওয়াত

দেশ বিদেশের সবাইকে!

সাধ্য আমার যতটুকুন

তাতেই হবে আপ্যায়ন!

ঈদের দিনে সবাই খুশি

ভাঙেনা যেন কারোর মন!

কিছু যদি নাহি পারি

ঈদ মোবারক বলি হাসিতে!

দুঃখ নেই, থাকবেনা'কো 

সবাই কাছে নিলে সবাইকে!

ঈদ আসে ঈদ যায়

সবাই শুধু আনন্দ চায়! 

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

মাকে নিয়ে আত্ম কথন!!

মা এই একটি বর্ণের মাঝে পৃথিবীর সকল বর্ণ যেন বিলিন হয়ে যায়!
পৃথিবীর সব ভাললাগা আর ভালোবাসা যেন একটি মানুষের বুকের মাঝে লুকায়িত! এই
একজন মানুষ হতে পারে সকল সন্তানের কল্যান কামিতা! সেই মায়ের কষ্টটা বুঝেছি
ঠিক নিজে যখনই মা হয়েছি তখন! এর আগে এত গভীরভাবে কখনো মায়ের কষ্ট উপলদ্ধি
করতে পারিনি! ২০০৪ সাথে যখন ফুপাতো বোনের ছেলে হবে সেদিনের মাতৃ যন্ত্রনায়
সে বলেছিল মাগো মা তুমি কষ্ট করেছ আমাকে নিয়ে আমি আজকে বুঝেছি! আজকে থেকে
প্রতিজ্ঞা করছি আর কখনো তোমাকে কষ্ট দিবোনা! সেদিন ফুপাতো বোনের কথাগুলোকে
সরাসরি শুনতে না পেলেও আরেক ফুপুর মুখে শুনে মনে হয়েছিল যেন আমি সেই বোনের
থেকেই কথাগুলো শুনেছি! কথাগুলো বলতে যেয়ে সেই ফুপু বলেছিল প্রত্যেক মেয়েই
মায়ের প্রকৃত কষ্টটা বুঝতে পারে যখনই সে মা হয়! এর আগে কোন মেয়েরা তা বুঝতে
পারেনা! আর ছেলেরা তো কখনোই বুঝতে পারেনা মায়ের মাতৃ যন্ত্রনা কত বেশী!
মেয়েরা বুঝলেও সেটা অনেক দেরি হয়ে যায়! কেউ কেউ মায়ের কষ্ট বুঝলেও মায়ের
জন্য কিছুই করতে পারেনা কারন হিসেবে বলা যায় মেয়েরা স্বামীর অধীনস্ত তাই মন

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

"চোখের কাজল মুছে দিলো"

সেদিনের আকাশটাতে মেঘের আভা দেখা গেছে! অন্ধকারাচ্ছন্ন
পৃথিবীটা ছিলো! মাঝে মাঝে সূর্যটা উঁকি দিয়ে আবার হারিয়ে যায় মেঘের আড়ালে!
মনে হচ্ছিলো যেন সূর্য ও মেঘের লুকোচুরি খেলা হচ্ছে পৃথিবীর আকাশে! মনটা
ভাল নেই এইক্ষনে রাত্রির! পৃথিবীর মেঘের মত তার মনের মাঝেও যেন এভাবেই
কষ্টের মেঘ জমেছে! সেই মেঘ যেন কিছুক্ষনের মধ্যেই ঝরে পড়বে! সেই জমে থাকা
মেঘের বৃষ্টি যেন কারো অপেক্ষা করছে! সে এলেই তবে চোখের এই বৃষ্টি দিয়ে
তাকে স্নান করিয়ে দেবে! রাত্রির বিয়ে হয়েছে সবেমাত্র পনেরদিন! স্বামী লিটন
সেই সকালে গেছে তাদের বাসায়! বলেছে বাসা থেকে ঘুরে আসি! কাছাকাছি বাসা বলে
এই সমস্যা হয়েছে! নয়তো দুরে কোথাও হলে তো এমনটি করতে পারতো না লিটন! এখনই
তা শশুর বাড়িতে বেড়াতে এসে এমনটি কেউ করে? রাত্রির জানা নেই! তবে বারংবারই
বান্ধবী আর প্রতিবেশী ভাবীদের প্রশ্নের সম্মুখিন হতে হয়েছে তারা জানতে চায়
তোমার নববর কেন প্রতিদিন সকালে চলে যায়? আর রাতে আসে? সে নিশ্চুপ থাকে!
তারা আরো বলতে থাকে এখনই নববরের এই অবস্থা? সারা জীবন তো এখনো পড়েই আছে! এই

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)
Syndicate content