সত্য বলা, চলা ও প্রচারই হোক বিসর্গের ভাষা...

লাইলীর সন্ধানে মজনু কাব্য-চিত্রকর: ০১২

ধূসর চিত্র: ‌০১২

কত বসন্ত মিশে গেছে ঐ নীলিমায়
জাগোনিকো আজো এ মরুর বুকে মরুদ্যান হয়ে,
পল্লবের মর্মরী সুর-লহরীর ব্যঞ্জনায়
বিষাদী রাগিনী ভেসে যায় বনে বনে অপূর্ণতা বয়ে।

-৩০ সেপ্টেম্বর ১৯৯৯

ছবিটি যেখান থেকে নেয়া হয়েছে।

ছবি: 
আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3 (2টি রেটিং)

আওয়ামী লীগের অপকর্মের বিরুদ্ধে হরতালের প্রয়োজন ছিল

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আগামী ২৭ জুন  সারা দেশে সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ডাক দিয়েছেন। আজ (বুধবার) পল্টন ময়দানের মহাসমাবেশে তিনি এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন।  গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানি সমস্যার সমাধান, টেন্ডারবাজি-চাঁদাবাজি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছাত্রী লাঞ্ছনা, প্রসাশনে দলীয়করণ ও দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে, টেন্ডারবাজি ও দখলবাজি বন্ধ, ভারতের সঙ্গে করা চুক্তি বাতিলসহ আরও বেশ কিছু দাবিতে তিনি এই হরতালের ডাক দেন।

আমার মতে, খালেদা জিয়া সরকারকে অনেক সময় দিয়েছেন। আওয়ামী লীগ যদি এখন বিরোধী দলে থাকতো এবং একই ধরনের ইস্যু পেত তাহলে এতদিন তাদের হরতাল, অবরোধ ও জ্বালাও-পোড়াওয়ের কারণে মানুষ দিশেহারা হয়ে পড়তো।  আওয়ামী লীগ সারাদেশে যা করছে তা হরতালের চেয়েও ভয়ংকার। তাদের অপকর্মের বিরুদ্ধে হরতালের মতো কঠোর কর্মসূচির প্রয়োজন ছিল।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.7 (6টি রেটিং)

মুহাম্মদ ও ছোট শিশু MOHAMMAD SM. AND THE CHILD

মুহাম্মদ ও ছোট শিশু

ঈদগা’র ময়দানে ছোট শিশু পাতে হাত
তার নাকি কেউ নেই কাটে একা দিন রাত
দুখে তার কলিজাটা ফেটে হয় একাকার
ফেটে যায় কলিজাটা রেখে যায় রেখা তার
তাই একা বসে কাঁদে ঈদগা’র এককোনে
কেউ যদি ভালোবেসে কাছে টানে একমনে
চলে যাবে তার কাছে সব দুখ ব্যথা ভুলে
এই আশা বারবার ছোট এই বুকে দুলে।

জগতের নেতা তিনি ঈদগাহে হেঁটে যান
ঈদগাহে এককোনে ছোট এক শিশু পান
ছোট এই শিশুছেলে কেঁদে কেঁদে বলে এই
ভালোবাসা চুমু দিতে তার প্রিয় কেউ নেই
নেতা তার কথাগুলো মনোযোগ দিয়ে শোনে
তার দুখ ব্যথাগুলো নিজ ব্যথা দিয়ে বুনে
শিশুটির ভেজা চোখ চুমু দিয়ে মুছে দিল
ভালোবাসা দিবে বলে নিজ ঘরে তুলে নিল।

শিশুটিকে কোলে তুলে ঘরে এসে দেয় হাক
কোলে সে এক শিশু দেখে বিবি তার নির্বাক
বিবি তারে ডেকে বলে এই শিশু বলো কার
তাকে যদি দাও তবে চাইনাতো কিছু আর
নেতা হেসে বলে বিবি এই নাও উপহার

ছবি: 
আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (5টি রেটিং)

থাইল্যাণ্ড : কী আরেক পাকিস্তান হতে চলেছে

থাইল্যাণ্ড : কী আরেক পাকিস্তান হতে চলেছে    থাইল্যান্ডে সরকারবিরোধী আন্দোলন এখন রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে মোড় নিয়েছে। বিরোধীদের জোট

ছবি: 
আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4 (3টি রেটিং)

চলতি বছর গত বছরের চেয়ে বেশিসংখ্যক মার্কিন সৈন্য আত্মহত্যা করবে

৯৭০-এর দশকে ভিয়েতনাম যুদ্ধের শেষদিকে মার্কিন সেনা সদস্যদের মধ্যে
আত্মহত্যার হার যা ছিলো সাম্প্রতিক সময়ে মার্কিন সেনাবাহিনীতে আত্মহত্যার
হার তার চেয়ে অনেক বেড়ে গেছে। যুক্তরাষ্ট্রের এক্সিকিউটিভ ইন্টেলিজেন্স
রিভিউ নামের সাময়িকী বলেছে, চলতি বছরে গত বছরের চেয়ে বেশি সৈন্য আত্মহত্যা
করবে। বিস্তারিত প্রতিবেদন
গত বছর মার্কিন সৈন্যবাহিনীর যে সব সদস্য হাসপাতালে ছিলেন তাদের মধ্যে ৪০
শতাংশ কাটিয়েছেন মানসিক রোগের কারণে। পেন্টগনের হিসেব মোতাবেক, ''২০০৯
সালে যুদ্ধক্ষেত্রে আহত হওয়ার কারণে ১৭ হাজার ৩৫৪ জন সৈন্য হাসপাতালে
ভর্তি হয়েছে। অন্যদিকে একই সময়ে মারাত্মক মানসিক রোগের কারণে ১৭ হাজার ৫৩৮
জন সৈন্যকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। প্রতি ১০ জন মেরিন সৈন্যদের মধ্যে
১ জন মানসিক ব্যাধির কারণে হাসপাতালে ভর্তি হয়।'' যুক্তরাষ্ট্রের নৌ
বাহিনী এবং বিমান বাহিনীর চিত্রও অনুরূপ বলে পেন্টাগন জানিয়েছে।

ছবি: 
আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.4 (5টি রেটিং)

ঈমানদার THE FAITHFUL

ঈমানদার

শাদা বকের ডানার মতো
ঈমানদারের মন
পবিত্রতায় হৃদয়খানি
গোলাপ ফুলের বন।

প্রতি কথা সত্য বলে
ধ্র“বতারার মতো
সত্য কথার ভয়ে পালায়
মিথ্যাবাদী যতো।

জ্যোতি ছড়ায় তার ব্যবহার
জেরিন ভালোবাসায়
পাষাণ হৃদয় বরফ গলে
গোমরা মুখও হাসায়।

‘ঈমানদারের চরিত্র
ফুলের মতো পবিত্র’

THE FAITHFUL

The Heart of the Faithful
Is like the feather of a Crayon
For his purity of soul and piety
That resenbles the rose-garden.

His each word is truthful
Like the beauty of Morn-star
For his truthfulness in word
The liers flee away in fear.

His manner gives out splendour
Of crimson love and colour
For which stony heart meltens
The gloomy face meeting smile and laughter.

ছবি: 
আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (3টি রেটিং)

সরকারি গোয়েন্দারা ছাত্রলীগের নতুন নেতা খোঁজাখুঁজি করছে!

( ছাত্রলীগ সম্পর্কে ব দ রু দ্দী ন উ ম র  দৈনিক যুগান্তরে একটি উপসম্পাদকীয় লিখেছেন। লেখাটিতে সরকার ও ছাত্রলীগের ব্যাপারে কিছু বাস্তবতা ফুটে ওঠেছে। গুরুত্বপূর্ণ এ লেখাটি সবার পড়া উচিত।)

ছাত্রলীগের দুর্বৃত্তরা ২০০৮ সালের ডিসেম্বর থেকে বেপরোয়াভাবে চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, গুণ্ডামি, সন্ত্রাস ইত্যাদির মাধ্যমে এখন শুধু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতেই নয়, সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে এক বিশৃংখল পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে। আওয়ামী লীগ দল ও সরকারের নাকের ডগায় এসব ঘটে চললেও তারা এদের এই দুর্বৃত্তগিরি বন্ধ করার কোন বাস্তব পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের সঙ্গে নিজের সাংগঠনিক সম্পর্ক ছিন্ন করেছেন বলে জানানো হলেও তার দ্বারা কোন কাজ হয়নি। কারণ আওয়ামী লীগের সঙ্গে ছাত্রলীগের সম্পর্ক কারও কোন ব্যক্তিগত সম্পর্কের ব্যাপার নয়। এ দুইয়ের মধ্যে এমন এক নাড়ির যোগ আছে যা ছিন্ন করা সম্ভব নয়।
জনগণ এই যোগ সম্পর্কের কথা জানেন। কাজেই ছাত্রলীগের দৌরাত্মের ফলে সরকারি দল ও সরকারের বিরুদ্ধেও তারা বিক্ষুব্ধ হতে থাকেন।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.8 (4টি রেটিং)

সংবাদ মাধ্যমের দলন নিপীড়নে আওয়ামী ঐতিহ্য-৩

সরকার ১৯৭৪ সালের জানুয়ারি মাসে জাতীয় সংসদে বিশেষ ক্ষমতা আইন পাশ করেন। এই আইনে এমন সব বিধি-নিষেধ অন্তর্ভুক্ত করা হয়, যার ফলে পত্র-পত্রিকাগুলোর পক্ষে সত্যানুসন্ধান ও বস্তুনির্ভর কোনও প্রতিবেদন প্রকাশ করাই সম্ভবপর ছিল না। উল্লেখ্য যে, ১৯৭৩ সালের Printing and Publications Act এ আইয়ুব আমলের বেশ কিছু ধারা ঢুকিয়ে দেয়া হয়েছিল। কিন্তু '৭৪-এর জানুয়ারি মাসে সংসদে গৃহীত বিশেষ ক্ষমতা আইনে শুধুমাত্র আইয়ুব আমলের কালাকানুন নয়, বৃটিশ আমল থেকে আইয়ুব আমল পর্যন্ত সংবাদপত্র দলনের জন্য যত আইন প্রণীত হয়েছিল তার সবগুলো ধারা এই আইনে ঢুকিয়ে দেয়া হয় (দেখুন বাংলার বাণী ১৪ জুলাই, ১৯৭৪) ফলে অধ্যাদেশটি কালাকানুন এবং সংবিধান প্রদত্ত মৌলিক অধিকারের পরিপন্থী, বাক-স্বাধীনতা তথা সংবাদপত্রের কণ্ঠরোধে একটি সুপরিকল্পিত চক্রান্তে পরিণত হয় (ইত্তেফাক, ২২ নবেম্বর ১৯৭৪) এই সময় শুধু সংবাদপত্রের স্বাধীনতাই নয় সাধারণভাবে বাংলাদেশে মত প্রকাশের স্বাধীনতাই ভীষণভাবে বিপন্ন হয়ে পড়ে।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.3 (4টি রেটিং)

২০১০ এর প্রথম দিন

২০১০ এর প্রথম দিন  নববর্ষের প্রথম দিনটা ছিল শুক্রবার। ঘুম থেকে উঠে চলে গেলাম পত্রিকার স্টলে। সবগুলো দৈনিকের প্রথম পাতা চোখ বুলিয়ে কিনলাম মাত্র দুটো দৈনিক। দৈনিক সমকাল ও

ছবি: 
আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (2টি রেটিং)

Chhatra League’s sexual offences: a widespread state of denial

Chhatra League’s sexual offences:

ছবি: 
আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3 (3টি রেটিং)
Syndicate content