ইসলামী সংস্কৃতির দলীল-প্রমাণ: ১-৫

মুসলিম জীবন নিঃসন্দেহে এক পবিত্র, কল্যাণময় ও সফল জীবন। কিন্তু এ জীবনকে যাপনের জন্য সীমাহীন আগ্রহ থাকার পরও একজন মুসলমান বিভিন্ন সময় বিভিন্ন রকম দ্বিধা-দ্বন্ধে পতিত হন। একজন হয়ত শুনেছেন কাজটি এভাবে করতে হয় তো অন্যজন কিছু দলীল নিয়ে হাজির হয়ে বলেন যে, না, কাজটি এরূপ করতে হবে। এমনকি যারা এসব ব্যাপারে দিকনির্দেশনা দান করবেন, তারাও নানা মতপার্থক্যের বেড়াজালে জড়িয়ে কোন কাজ সম্পাদনের ব্যাপারে দ্বিধা-বিভক্তিতে ফেলে দেন সাধারণ মুসলমানগণকে। এসব দিক বিবেচনা করে মাঝে মাঝে ইসলামী সংস্কৃতির নানা বিষয়কে তুলে ধরে সেসবের পক্ষে দলীল পেশ করার একটা প্রয়াস মনের কোণে অনেক দিন থেকেই দানা বাঁধছিল। একজন প্রিয়জনের সাথে বিষয়টি শেয়ার করলাম। তিনি বললেন, বিষয়টি অনেক শ্রমের দাবী রাখে। তাই কথা দিচ্ছি না, তবে চেষ্টা করবো গন্তব্যে পৌঁছাতে। কেননা, পূর্বের অনেকগুলো পথে পাড়ি জমিয়ে কিছুদূর গিয়ে বসে পড়েছিলাম।

আমার বিশ্বাস শুধু মুসলমানগণই নন; বরং সকল মানুষকেই ইসলামী সংস্কৃতির এসব দালিলিক প্রকাশ ইসলামকে বুঝতে সহযোগিতা করবে।

১. মুসলিম তার মুখ ও হাতের অনিষ্টতা থেকে অন্য মুসলমিকে নিরাপদ রাখে।
দলীল: আব্দুল্লাহ্ ইবনে আমর ইবনে আস্‌ (রা) বর্ণনা করেন, রাসূলে আকরাম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেনঃ "মুসলমান হচ্ছে সেই ব্যক্তি, যার মুখ ও হাতের ক্ষতি থেকে অন্য মুসলমান নিরাপদ থাকে।"
[বুখারী: ১/৯ (১০) ও মুসলিম: ১/৪৭ (৬৪) (৪০), রিয়াদুস্ সালেহীন: ১ম খণ্ড-২১১]

২. মুসলিম আল্লাহর নিষিদ্ধ জিনিস থেকে হিজরত করে মুহাজিরের সৌভাগ্য অর্জন করে।
দলীল: আব্দুল্লাহ্ ইবনে আমর ইবনে আস্‌ (রা) বর্ণনা করেন, রাসূলে আকরাম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেনঃ মুহাজির হলো সেই বক্তি, যে আল্লাহর নিষিদ্ধ জিনিস পরিহার করে চলে।
[বুখারী: ১/৯ (১০) ও মুসলিম: ১/৪৭ (৬৪) (৪০), রিয়াদুস্ সালেহীন: ১ম খণ্ড-২১১]

৩. মুসলিম জুলুম করা থেকে বিরত থাকে।
দলীল: জাবের (রা) বর্ণনা করেন, রাসূলে আকরাম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেনঃ তোমরা জুলুম করা থেকে দূরে থাক। কেননা, কিয়ামতের দিন জুলুম অন্ধকারময় ধোঁয়ায় পরিণত হবে।
[মুসলিম: ৮/১৮ (২৫৭৮), রিয়াদুস্ সালেহীন: ১খণ্ড-২০৩]

৪. মুসলিম কার্পণ্য করা থেকে দূরে থাকে।
দলীল: জাবের (রা) বর্ণনা করেন, রাসূলে আকরাম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেনঃ (তোমরা) কার্পণ্যের কলুষতা থেকেও দূরে থাক। কেননা, কার্পণ্যই তোমাদের পূর্বেকার অনেক লোককে (জাতিকে) ধ্বংস করে দিয়েছে। কার্পণ্য তাদেরকে রক্তপাত ও মারপিট করতে উদ্বুদ্ধ করেছে এবং হারামকে হালাল করতে উস্কানি যুগিয়েছে।
[মুসলিম: ৮/১৮ (২৫৭৮), রিয়াদুস্ সালেহীন: ১খণ্ড-২০৩]

৫. মুসলিম জালিমের অব্যাহত জুলুমকে আল্লাহর পক্ষ হতে অবকাশ মনে করে।
দলীল: আবু মূসা (রা) বলেন, রাসূলে আকরাম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেনঃ "নিশ্চয়ই আল্লাহ জালিমকে অবকাশ দিয়ে থাকেন; কিন্তু তিনি যখন তাকে পাকড়াও করেন তখন আর রেহাই দেন না। এরপর তিনি (বিশ্বনবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এই আয়াত তিলাওয়াত করলেনঃ ‘আর আমার প্রভু (রব) যখন কোন জালিম জনবসতিকে পাকড়াও করেন, তখন তাঁর পাকড়াও এ রকমই (কঠিন) হয়ে থাকে। তাঁর পাকড়াও বড়ই কঠিন ও নির্মম। (সূরা হূদঃ ১০২)"
[বুখারী: ৬/৯৩ (৪৬৮৬) ও মুসলিম: ৮/১৯ (২৫৮৩), রিয়াদুস্ সালেহীন: ১ম খণ্ড-২০৭]

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4 (2টি রেটিং)

অনেক শিখতে পারবো এ ধারাবাহিক থেকে। পাঁচতারা দিলাম

-

আড্ডার দাওয়াত রইল।

> > > প্রতি শুক্রবার আড্ডা নতুন বিষয়ে আড্ডা শুরু হবে।

আপনার ইচ্ছে সফল হোক, এ দো'আ করছি।

-

"নির্মাণ ম্যাগাজিন" ©www.nirmanmagazine.com

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4 (2টি রেটিং)