নির্ভীক সাংবাদিক মাহমুদুর রহমান আবারো গ্রেপ্তার!

দৈনিক আমার দেশ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও নির্ভীক সাংবাদিক মাহমুদুর রহমানকে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ।

 

আজ (বৃহস্পতিবার) সকাল ৯টায় রাজধানীর কারওয়ানবাজারে আমার দেশের অফিস থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এখানে তিনি দীর্ঘদিন ধরে অবস্থান করছিলেন।

 

গ্রেফতারের পর তাকে মিন্টো রোডে গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) অফিসে নেয়া হয়েছে। স্কাইপে কথোপকথন কেলেঙ্কারি মামলা এবং ব্লগারদের ইসলাম বিদ্বেষী ততপরতা সম্পর্কে প্রতিবেদন প্রকাশ মামলায় তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানা গেছে। ঢাকা মহানগর পুলিশের উপকমিশনার (মিডিয়া) মাসুদুর রহমান জানান, ২০১২ সালের ১৪ ডিসেম্বর রাজধানীর তেজগাঁও থানায় স্কাইপি সংলাপ সংক্রান্ত মামলায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। মামলায় তথ্যপ্রযুক্তি আইন-২০০৬ এর ৫৬/৫৭ ধারা তৎসহ দণ্ডবিধি ১২৪/১২৪(ক)/১২০(খ)/৫০৫(ক) ও ৫১১ ধারায় অভিযোগের ভিত্তিতে তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ঢাকা মহানগর (উত্তর) গোয়েন্দা পুলিশের উপ কমিশনার মোল্লা নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে ডিবির বিশেষ একটি দল মাহমুদুর রহমানের অফিসে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করে। এরপর তাকে সাদা রঙের মাইক্রোবাসে তুলে মিন্টো রোডে নিয়ে যাওয়া হয়। এর আধা ঘণ্টা পর ডিবির ওই দলটিই পুনরায় ‘আমার দেশ’ অফিসে আসে। এ সময় মাহমুদুর রহমানের অফিসে তল্লাশি চালিয়ে তার ব্যবহৃত ল্যাপটপ, কয়েকটি পেনড্রাইভ, দু’টি হার্ডডিস্ক, একটি সিপিইউ জব্দ করে নিয়ে যায়।  

 

শাহবাগ আন্দোলন ও ইসলাম বিদ্বেষী ব্লগারদের সমালোচনার পরিপ্রেক্ষিতে গত ২২ ফেব্রুয়ারি দৈনিক ‘আমার দেশ’ সম্পাদক মাহমুদুর রহমানকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেপ্তারের দাবি জানান আন্দোলনকারীরা। একই দাবিতে গত ২৬ ফেব্রুয়ারি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে স্মারকলিপি দেয় গণজাগরণ মঞ্চ। এ দাবিকে যৌক্তিক মন্তব্য করে মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে শিগগিরই ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহিউদ্দিন খান আলমগীর।

 

ওইদিনই আমার দেশ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে মাহমুদুর রহমান অভিযোগ করেন, “আমাদের নিজস্ব পরিচয় আমার দেশ পত্রিকা তুলে ধরেছে। আমাদের নিজস্ব সংস্কৃতি ও ধর্ম আছে তা প্রচার করছে। এতে সাংস্কৃতিক বিপ্লব তৈরি হয়েছে। আমাকে গ্রেফতার করা হলেও আমার দেশ-এর সাংস্কৃতিক বিপ্লব অপ্রতিরোধ্য। এ বিপ্লব কেউ থামাতে পারবে না, বিজয় আমাদের হবেই।”

 

যেকোনো সময় গ্রেপ্তার হতে পারেন, এমন আশঙ্কা প্রকাশ করে মাহমুদুর রহমান বলেন, ‘কাল দেখা হবে কি না, জানি না। তবে যে সাংস্কৃতিক বিপ্লব শুরু হয়েছে, আমাকে গ্রেপ্তার করে তা থামানো যাবে না।’  

 

শাহবাগের আন্দোলন সম্পর্কে তিনি বলেন, রাষ্ট্রের মধ্যে শাহবাগ নামের আরেক রাষ্ট্র হয়েছে। শাহবাগ থেকে আন্দোলনকারীরা জাতীয় পতাকা ওড়ানো, জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন, স্কুল বন্ধ রাখার কর্মসূচি পালনের নির্দেশ দিচ্ছে। দিনের পর দিন তারা আদালত অবমাননা করছে বলেও অভিযোগ করেন মাহমুদুর রহমান।

 

এর আগে ২০১০ সালের ১ জুন মধ্যরাতে দৈনিক আমার দেশ কার্যালয় থেকে মাহমুদুর রহমানকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ওইদিনই আমার দেশ পত্রিকার প্রকাশনা বন্ধ করে দেয় সরকার। এক মাসের মতো বন্ধ থাকলেও পরে আইনি লড়াইয়ে আবারও আমার দেশ প্রকাশিত হয়। তবে জেলে বন্দি থাকেন মাহমুদুর রহমান।  দীর্ঘ ৯ মাস ১৬ দিন কারাভোগের পর ২০১১ সালের ১৬ মার্চ তিনি মুক্তি পান। # 

 

 

ছবি: 
আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (4টি রেটিং)

তাঁর মতো সম্পাদক আমাদের দেশে বিরল।আল্লাহ তাঁর মংগল করুক।

-

SAMUDRO

সরকার সময় শেষের সব চিহ্ন প্রকট হয়ে উঠছে। ভোর হওয়ার আর বেশি বাকি নেই।

লেখায় পাঁচতারা।

রাত যত গভীর হয় ভোর ততই নিকট হয়!! বিজয় আসবে অচিরেই!!

সত্যের বাহকের নিঃশর্ত মুক্তি চাই!!

''সাদামেঘ''

বিপ্লবের বিকল্প সব পথ বন্ধ করে দিচ্ছে সরকার।

-

আমার প্রিয় একটি ওয়েবসাইট: www.islam.net.bd

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (4টি রেটিং)