বিশ্বের ঘুম ভাঙাল নিথর আয়লান

তুরস্কের পশ্চিম উপকূলের বডরামে ভেসে
আসা সিরীয় শিশু আয়লান কুর্দির ছবি দেখে কান্নায়
ভেঙে পড়েন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট
রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান।
এরদোগান বলেছেন, মধ্যপ্রাচ্যের বর্বরতার
ব্যাপারে পাশ্চাত্য উদাসীনতা দেখিয়ে চলছে।
কোথায় মানবতা? কোথায় মানবিক বিবেকবোধ?
এ ঘটনা নিয়ে এটাই আমাদের প্রশ্ন।
বৃহস্পতিবার সিএনএনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে
এসব কথা বলেন এরদোগান।
আয়লানের উপুড় হয়ে সাগর তীরে পড়ে থাকার
ছবি সারা বিশ্বকে শোকাহত করেছে।
শরণার্থীদের নিতে পাশ্চাত্যের গড়িমসির নিন্দা
জানানো হচ্ছে।
আয়লানের ছবি দেখার কথা স্মরণ করে এরদোগান
বলেন, তিনি মর্মস্পর্শী ওই ছবি দেখে
কেঁদেছেন। এ ধরনের মৃত্যু নতুন নয়। অসংখ্য
শিশু, মা, বাবা এর আগেও ভূমধ্যসাগরে ডুবে
মরেছেন।
অনেক নিষ্পাপ শরণার্থীর মৃত্যুর জন্য পশ্চিমা
বিশ্বই দায়ী বলে মন্তব্য করেন তিনি।
পাশ্চাত্য ভূমধ্যসাগরকে গোরস্তানে পরিণত
করছে কিনা এমন প্রশ্নে এরদোগান বলেন, এটা
একটা নিখাঁদ বাস্তবতা। ইরাক ও সিরিয়ার প্রায় ২০ লাখ
লোককে তার দেশ আশ্রয় দিয়েছে এবং
তাদের অতিথি হিসেবে নিয়েছে। এজন্য
তুরস্কের খরচ হয়েছে ৬০০ কোটি ডলার।
সিরীয় ও ইরাকিদের সহায়তার জন্য আমাদের
প্রচেষ্টার বিপরীতে ইউরোপ মধ্যপ্রাচ্যের
শরণার্থীদের গ্রহণ করতে আগ্রহী নয় বলে
জানান এরদোগান।
উল্লেখ্য, তুরস্কের উপকূলে পড়ে থাকা সিরিয়ার
যে শিশুটির মরদেহ সারা বিশ্বকে নাড়া দিয়েছে
সেই আয়লানকে আজ তার নিজের শহরে মা ও
তার বড় ভাইয়ের পাশাপাশি দাফন করা হয়েছে।
এর আগে আয়লান কুর্দীর পিতাকে তার তিন বছর
বয়সী পুত্রের কফিনসহ তুরস্ক থেকে
সীমান্তবর্তী সিরিয়ার কোবানি শহরে ফিরে
যাওয়ার অনুমতি দেয় কর্তৃপক্ষ।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3 (টি রেটিং)

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3 (টি রেটিং)