জিহাদের চেয়েও পিতার-মাতার সেবার গুরুত্ব বেশি

এক ব্যক্তি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের
কাছে জিহাদে যাওয়ার অনুমতি চাইলে উত্তরে তিনি বলেন, তোমার পিতা-মাতা কি জীবিত? লোকটি বলল, ‘জ্বি’। তিনি বললেন, ‘তাহলে তাদের মাঝেই জিহাদ করো’-অর্থাৎ,তাদের সেবায় শ্রম দাও’ (বর্ণনায় বুখারী)।

পিতা-মাতার সাথে সদ্ব্যবহার এমন এক হক যা আল্লাহ তাআলা আল
কুরআনের অনেক জায়গায় নিজের হকের সাথে সংযুক্ত করে উল্লেখ করেছেন। এমন হক, যা সবার জন্য অবশ্য পালনীয়, যা
পালন না করলে সফলতা আসে না। আল্লাহ তা’আলা বলেন : ‘তোমরা ইবাদত কর
আল্লাহর,তাঁর সাথে কোন কিছুকে শরীক করো না। আর
সদ্ব্যবহার কর মাতা-পিতার সাথে। (সূরা আন-নিসা:৩৬)।

পিতা-মাতার সাথে সদ্ব্যবহার ও তাদের অধিকার সংরক্ষণ করা ওয়াজিব।
এমনকি যদি তারা অমুসলিম হন তবুও। তাদের মুসলিম হওয়ার সাথে সদ্ব্যবহারের প্রশ্ন জড়িত
নয়। আসমা রাযি. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন: ‘ একবার আমার
মা আমার কাছে বেড়াতে এলেন। তিনি ছিলেন মুশরিক। আর তখন কুরাইশদের সাথে মুসলমানদের চুক্তি
ছিল। আমি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে জিজ্ঞাসা করলাম, ইয়া রাসুলাল্লাহ! আমার মা আমার কাছে এসেছেন। তিনি আমার আতিথেয়তা পেতে আগ্রহী।
তবে কি আমি তার সাথে সম্পর্ক রাখব? তিনি বললেন, ‘হ্যাঁ, তোমার মায়ের সাথে তুমি সম্পর্ক রাখবে’ (মুসলিম)।

মুয়াবিয়া বিন জাহিমা রাযি বলেন: এক লোক রাসুল সাল্লাল্লাহু
আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছে এসে বলল, আমি যুদ্ধে যেতে চাই। আপনার কাছে পরামর্শের জন্য এসেছি। রাসুল সাল্লাল্লাহু
আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, তোমার মা আছে? লোকটি বলল, জ্বি আছে। তিনি বললেন, ‘তাহলে তাকে সঙ্গ
দাও। কেননা জান্নাত তার পদতলে’ (নাসায়ী ও ইবনে মাজাহ)।

আব্দুল্লাহ বিন আমর রাযি. হতে অপর এক বর্ণনায় নবী সাল্লাল্লাহু
আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন : ‘ পিতার সন্তুষ্টিতে রবের সন্তুষ্টি। আর পিতার অসন্তুষ্টিতে
রবের অসন্তুষ্টি’ (তিরমিযী, সহীহ)।

পিতা-মাতার সাথে সদ্ব্যবহার সম্পর্কে  আরও বিস্তারিত পড়ার জন্য:  ••►  bn.islamkingdom.com/s2/46646

আপনার রেটিং: None

Rate This

আপনার রেটিং: None