ইসলামি শরীয়তে যাকাতের অবস্থান ও যাকাতের ফজিলত

আভিধানিক অর্থে যাকাত: বৃদ্ধি পাওয়া, বর্ধিত হওয়া।

শরয়ী পরিভাষায় যাকাত: নির্দিষ্ট পরিমান সম্পদ যা
সুনির্দিষ্ট সময় বিশেষ মানবগোষ্ঠিকে প্রদান করা হয়।

যাকাতের অবস্থান:

যাকাত ইসলামের ফরজকর্মসমূহের একটি এবং ইসলামের
তৃতীয় রুকন। আল্লাহ তাআলা বলেন: (তোমরা নামাজ প্রতিষ্ঠা করো ও যাকাত প্রদান করো।)
[ সূরা আন-নূর:৫৬]।

নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন,ইসলাম পাঁচটি বিষয়ের ওপর নির্মিত: এ সাক্ষ্য দেয়া যে আল্লাহ
ব্যতীত কোনো ইলাহ নেই এবং মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আল্লাহর বান্দা
ও রাসূল। নামাজ প্রতিষ্ঠা করা। যাকাত প্রদান করা। বায়তুল্লাহর হজ্ব করা ও রমজানের রোজা
রাখা।
(বর্ণনায় বুখারী ও মুসলিম)

যাকাতের গুরুত্ব ইসলামে অপরিসীম। যাকাতকে ইসলামের
পঞ্চমূলে অন্তর্ভুক্ত করা যাকাতের গুরুত্ব ও মর্যাদার সুস্পষ্ট প্রমান। যাকাতের উপকারিতা
সমূহে চিন্তাভাবনা করলে যেকোন বিবেকবানই এই বিধানটির গুরুত্ব ও তাৎপর্য অনুধাবন করতে
পারবে। যাকাত হলো আত্মা
, সম্পদ ও সমাজকে বিশুদ্ধকারী
ও সম্পদ বৃদ্ধিকারী।

যাকাতের ফজিলত:

যাকাত আল্লাহর রহমত লাভের কারণ। আল্লাহ তাআলা বলেন:
(আর আমার রহমত সব বস্তুকে পরিব্যাপ্ত করেছে। সুতরাং আমি তা লিখে
দেব তাদের জন্য যারা তাকওয়া অবলম্বন করে এবং যাকাত প্রদান করে। )

[সূরা আল আরাফ:১৫৬]

যাকাত প্রদান আল্লাহর সাহায্য লাভের শর্ত। আল্লাহ
তাআলা বলেন: (আর আল্লাহ অবশ্যই তাকে সাহায্য করেন
, যে তাকে সাহায্য করে। নিশ্চয় আল্লাহ শক্তিমান, পরাক্রমশালী। তারা এমন যাদেরকে আমি জমিনে ক্ষমতা দান করলে তারা সালাত কায়েম করবে
এবং যাকাত দেবে...।) [সূরা আল হাজ্জ:

৪০-৪১]।

যাকাত প্রদান গুনাহ মাফ হওয়ার কারণ। নবী সাল্লাল্লাহু
আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন
, সদকা গুনাহকে নিভিয়ে দেয় যেভাবে পানি আগুন নেভায়।(বর্ণনায় বুখারী)

কোন শর্ত পাওয়া গেলে আপনার উপর যাকাত ফরজ হবে এবং
যাকাত অনাদায়কারীর কি হুকুম এবং যাকাতের মাসায়েল গুলো বিস্তারিত জানুন
: ••► bn.islamkingdom.com/s1/4882

আপনার রেটিং: None

Rate This

আপনার রেটিং: None