ফেরী বিরম্বনা থাকছে না ঢাকা-কুয়াকাটা

পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটা ও
পায়রা সমুদ্র বন্দরের সঙ্গে সড়ক যোগাযোগে নতুন দ্বার উম্মোচন হতে যাচ্ছে। পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজ সম্পন্নের সঙ্গে সঙ্গে ঢাকা-বরিশাল-কুয়াকাটা মহাসড়কের লেবুখালীর পায়রা নদীর ওপর সেতু নির্মাণ কাজও সম্পন্ন হবে। এতে করে পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটা এবং পায়রা সমুদ্র বন্দরের সঙ্গে ঢাকাসহ সারাদেশের সরাসরি সড়ক যোগাযোগের মাইলফলক স্থাপিত হবে। এদিকে এক হাজার ২২ কোটি টাকা ব্যয়ে পায়রা নদীর ওপর প্রায় দেড় কিলোমিটার দীর্ঘ সেতু নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। কুয়েত সরকারের আর্থিক সহায়তায় এক হাজার ৪৭০ মিটার দৈর্ঘ্য এবং ১৯ দশমিক ৭৬ মিটার প্রস্থবিশিষ্ট এই সেতু নির্মাণ করা হবে। দক্ষিণের মানুষের বহুল প্রত্যাশিত পায়রা সেতু নির্মাণের প্রাথমিক ধাপ হিসেবে বালু ফেলার কাজ শুরু হলেও সেতুর মূল অবকাঠামো নির্মাণ কাজ শুরু হচ্ছে। পদ্মা সেতুর কাজ চলমান। পায়রা সেতু নির্মাণ কাজ শুরু। প্রকল্পের চুক্তি অনুয়ায়ী পদ্মা সেতুর কাজ শেষ হওয়ার মধ্যেই নির্মাণ সম্পন্ন হবে পায়রা সেতুরও। সেতু দুটি যানবাহন চলাচলের জন্য উপযুক্ত হলে পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটা এবং নির্মাণাধীন পায়রা সমূদ্র বন্দরের সঙ্গে ঢাকাসহ সারাদেশের সরাসরি সড়ক যোগাযোগ স্থাপিত হবে। এর ফলে কোনো ফেরি বিড়ম্বনা ছাড়াই যাতায়াতের ব্যবস্থা হলে সূর্যোদয় এবং সূর্যাস্ত অবলোকন করার বিরল সুযোগের জন্য সাগরকন্যা কুয়াকাটায় বেড়ে যাবে দেশি-বিদেশি পর্যটক। পায়রা সমুদ্র বন্দরও হয়ে উঠবে কর্মচঞ্চল। এতে দক্ষিণাঞ্চল আর্থ-সামাজিকভাবে সমৃদ্ধ হবে। দেশের অর্থনীতিও গতিশীলতা পাবে।


 

ছবি: 
আপনার রেটিং: None

Rate This

আপনার রেটিং: None