জঙ্গীবাদ মোকাবেলায় ডিজিটাল তালিকা হচ্ছে

জঙ্গীবাদের মতো বৈশ্বিক সমস্যা
মোকাবেলায়  তৎপর রয়েছে আমাদের আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এই লক্ষ্যে জঙ্গীদের ডাটাবেজ তৈরি
করা হয়েছে। তাতে স্থান
পেয়েছে প্রায় দুই হাজার জঙ্গীর নাম। কয়েক দফায় যাচাই বাছাই শেষে ডাটাবেজটি তৈরি
করা হয়েছে। তবে ডাটাবেজে নতুন নতুন জঙ্গীর নাম ও জঙ্গীবাদ সম্পর্কিত তথ্য যুক্ত
হওয়া অব্যাহত আছে। ডাটাবেজে থাকা জঙ্গীদের মধ্যে পাঁচ শতাধিক জঙ্গীকে অধিক
ঝুঁকিপূর্ণ ও ভয়ঙ্কর হিসেবে শনাক্ত করা হয়েছে। যারা বিভিন্ন অপারেশনাল কর্মকান্ডে জড়িত। বাকি
দেড় হাজারের মধ্যে এক হাজার জঙ্গী অপেক্ষাকৃত কম ঝুঁকিপূর্ণ। আর পাঁচ শতাধিক জঙ্গী
বিভিন্ন জঙ্গী সংগঠনের গোয়েন্দা কার্যক্রম, মনিটরিং, তথ্যপ্রযুক্তি শাখাসহ বিভিন্ন
কাজে জড়িত। তারা কোন অপারেশনে অংশ নেয় না। তবে অপারেশনের জন্য তথ্য সরবরাহ করে
থাকে। শনাক্ত হওয়া জঙ্গীদের গ্রেফতারে দেশের প্রতিটি বিভাগীয় শহর ছাড়াও
বাংলাদেশ-ভারত সংলগ্ন স্থল সীমান্ত জেলাগুলোতে কম্বিং অপারেশন চলছে। শনাক্ত হওয়া
জঙ্গীদের বাইরে আরও কিছু জঙ্গী রয়েছে। তারা বেনামে থাকায় তাদের সম্পর্কে
সুনির্দিষ্ট তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করা সম্ভব হয়নি। তবে তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করার
প্রক্রিয়া অব্যাহত আছে। এই প্রক্রিয়ার মধ্যে সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য দেয়া হচ্ছে,
রিমান্ডে আসার পর জঙ্গীদের দেয়া তথ্য। জঙ্গীদের জবানবন্দীতে নতুন কোন জঙ্গী সংগঠন
বা জঙ্গীর নাম এলে তার বিষয়ে গুরুত্বসহকারে তদন্ত করা হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে নতুন তথ্য
দেয়া জঙ্গীদের বার বার রিমান্ডের পাশাপাশি টিএফআই সেলে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।
পুরো প্রক্রিয়াটি পুলিশ সদর দফতরের একটি বিশেষ সেল মনিটরিং করছে। মনিটরিং করা
হচ্ছে, ডিজিটাল পদ্ধতিতে। জঙ্গীদের সম্পর্কে প্রাপ্ত তথ্য কম্পিউটারে সংরক্ষণ করা
হচ্ছে। বাংলাদেশে জঙ্গী অর্থায়ন ও মদদদানের জন্য তালিকাভুক্ত
তিনটি দূতাবাস ও পাঁচটি ব্যাংক ছাড়াও কয়েকটি বীমা, লিজিং কোম্পানি ও কয়েকটি আর্থিক
প্রতিষ্ঠান বিশেষ নজরদারিতে রয়েছে। জঙ্গীবাদের জন্য ব্যবহারের অভিযোগ থাকা দেশের
পাঁচটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, দুইটি বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের ওপর কড়া নজরদারি
চলছে। এছাড়া কারাগারে থাকা দেশী-বিদেশী জঙ্গীদের ওপরও নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। তাদের
জামিন থেকে শুরু করে আদালতে হাজির করা পর্যন্ত, প্রতিটি ঘটনাই আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও
গোয়েন্দা সংস্থাগুলোকে তাৎক্ষণিকভাবে জানানোর জন্য কারা অধিদফতরকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বাংলাদেশ থেকে ভারতে গিয়ে আত্মগোপনে থাকা সম্ভাব্য জঙ্গীদের পৃথক তালিকাও করা হয়েছে।

আপনার রেটিং: None

Rate This

আপনার রেটিং: None