জমাটবাঁধা বরফ গলে আস্থার সুবাতাস

বর্তমান সরকার সংঘাতময় রাজনীতির মধ্যেও ৪৫ বছরে দেশের
জন্য অনেক অর্জন বয়ে এনেছে। জিডিপি’র প্রবৃদ্ধি ৬ ভাগের ওপরে, মাথাপিছু
আয় ১৩১৪ ডলার, তৈরি পোশাকশিল্পে বিশ্বব্যাপী কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা,
খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন, ওষুধ-বিদ্যুৎ শিল্পে সাফল্য, বঙ্গবন্ধু সেতুর পর তৈরি হচ্ছে
স্বপ্নের পদ্মা সেতু। দেশে আরো বড় বড় অনেকগুলো প্রকল্পের
কাজ চলছে। ২০২৪ সালের মধ্যেই স্বল্পোন্নত তালিকা থেকে বেরিয়ে গিয়ে শিল্পোন্নত দেশের
তালিকায় অন্তর্ভুক্তির হাতছানি। এই অর্জন ধরে রাখতে রাজনীতিতে
স্থিতিশীলতা, গণতন্ত্র,
শিল্প, ব্যবসা, আইনের শাসন
সর্বত্রই যে আস্থার সম্পর্ক গড়ে তোলা আবশ্যক; সে লক্ষ্যে সংলাপ
চলছে বঙ্গভবনে। সংলাপে সব রাজনৈতিক দলের যুদ্ধংদেহী কঠোর অবস্থানের
জমাটবাঁধা বরফ গলে আস্থার সুবাতাস বইতে শুরু করায় ‘টানেলের শেষ প্রান্তে আলোর রশ্মি’ দেখা যাচ্ছে। সরকারের উদ্যোগে সংলাপে ইসি গঠনে প্রস্তাবনায় রাজনৈতিক দলগুলোর ভূমিকা
ইতিবাচক। নতুন নির্বাচন কমিশন হবে, সব দল নির্বাচনে অংশ নেবে, নারায়ণগঞ্জের
মতো দেশের সবাই ভোট দেবে এভাবেই দেশের রাজনৈতিক পরিবেশে আসবে পরিবর্তন। এরই মধ্যে রাষ্ট্রের অভিভাবক হিসেবে নতুন ইসি গঠনের লক্ষ্যে প্রেসিডেন্ট
রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপের আয়োজন করেন। সংলাপ চলার সময় অনুষ্ঠিত হয়
নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। নির্বাচনে ভোটাররা নির্বিঘ্নে
ভোট দিতে পারায় সবার কাছে গ্রহণযোগ্য হয় এবং ওই নির্বাচনই পাল্টে দেয় রাজনীতির চিত্র। এখন সবাই আশাবাদী প্রেসিডেন্টের উদ্যোগ সফল হবে এবং সবার কাছে গ্রহণযোগ্য
নির্বাচন কমিশন গঠন সম্ভব হবে। রাজনীতির আকাশে দীর্ঘদিন থেকে
কালোমেঘ দেখা গেলেও বঙ্গভবনে প্রেসিডেন্টের উদ্যোগে সে মেঘ কেটে যাবে এবং সামনে রাজনীতির
আকাশে সূর্যের হাসির দেখা মিলবে সেই প্রত্যাশায় মানুষ অপেক্ষা করছে।

ছবি: 
আপনার রেটিং: None

Rate This

আপনার রেটিং: None