সাড়া মিলেছে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদবিরোধী প্রচারণায়

সামাজিক ও ধর্মীয় দিক থেকে জঙ্গীবাদ
কোনভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়, সেটি প্রচার
করে বর্তমান সরকার সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদবিরোধী চলমান
প্রচারণায় জনগণের কাছ থেকে ব্যাপক সাড়া পেয়েছে। সরকারের চলমান প্রচারণার কারণে জঙ্গিবাদ এবং সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে ব্যাপক
জনসচেতনতা সৃষ্টি হয়েছে। অভিভাবক, শিক্ষক, ধর্মীয়
নেতৃবৃন্দসহ সকল স্তরের জনগণ এ প্রচারণায় সম্পৃক্ত হয়েছে। দেশের জনগণ আবারও প্রমাণ
করলো যে বাঙালী জাতি বীরের জাতি বাঙালী জিততে
জানে হারতে জানে না। ৭১ এর মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশের গৌরবউজ্জল ইতিহাসকে বিকৃত এবং
কলঙ্কিত করার জন্য পাকিস্তানের দোশর ও সহযোগিরা অপচেষ্টা চালিয়েছিল। অথচ দেশের
জনগণ সরকারের ডাকে সাড়া দিয়ে এই অপচেষ্টাকে প্রতিহত করেছে। স্বাধীনতার
পর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ পুনর্গঠন শুরু করেন।
কিন্তু জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর নির্মম হত্যাকাণ্ডের পর দীর্ঘদিন সামরিক শাসকেরা দেশ
পরিচালনা করায় জাতি গঠনের কাজ বন্ধ হয়ে যায়। ২১ বছর পরে ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে বর্তমান
সরকার পুনরায় উন্নয়ন কর্মকাণ্ড শুরু করেছে এবং দেশের উন্নয়নের জন্য অনেক
যুগান্তকারী উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। দরিদ্রদের দারিদ্র্যসীমা থেকে তুলে আনতে বিধবা, দরিদ্র এবং পীড়িত লোকদের জন্য ভাতাসহ বিভিন্নভাবে
নানা সুরক্ষা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে সরকার। বর্তমান সরকার কৃষি, শিক্ষা
ও স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়নের জন্য নানা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। আর্থ-সামাজিক খাতে
বাংলাদেশের ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। বাঙ্গালী
জাতি যুদ্ধ করে স্বাধীনতা অর্জন করেছে প্রয়োজন হলে আবারও কুচক্রি মহলের ‘সন্ত্রাস
ও জঙ্গিবাদ’ কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে
যুদ্ধ করে বাংলাদেশের সুনাম অক্ষুণ্ণ রাখতে বদ্ধপরিকর।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (2টি রেটিং)

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (2টি রেটিং)