আজ ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস

বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসে ১৭
এপ্রিল এক অবিস্মরণীয় দিন। ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনার জন্য
অস্থায়ী বাংলাদেশ সরকার-এর আনুষ্ঠানিক প্রতিষ্ঠা হয় কুষ্টিয়া জেলার মেহেরপুর
মহকুমা(বর্তমানে জেলা) বৈদ্যনাথতলার অন্তর্গত ভবেরপাড়া আম্রকাননে(বর্তমান মুজিবনগর গ্রামে)। শেখ মুজিবুর রহমান এর অনুপস্থিতিতে তাকে
রাষ্ট্রপতি করে সরকার গঠন করা হয়। অস্থায়ী রাষ্ট্রপতির দ্বায়িত্ব
নেন সৈয়দ নজরুল ইসলাম এবং প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব অর্পিত হয় তাজউদ্দীন আহমদ এর
উপর। বাংলাদেশের প্রথম সরকার দেশী-বিদেশী সাংবাদিকের সামনে শপথ গ্রহণ করে
আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব পালন শুরু করে। এই শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র
পাঠের মাধ্যমে ২৬ মার্চ হতে বাংলাদেশকে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র
হিসাবে ঘোষণা করা হয়। বাঙালী জাতির জীবনে এটা এক ঐতিহাসিক দিন। স্বাধীন সার্বভৌম
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের প্রথম সরকার এদিন আনুষ্ঠানিকভাবে শপথ গ্রহণ করে। ১৯৭১
সালের অস্থায়ী বাংলাদেশ সরকার গঠন করা হয় ১০ এপ্রিল ১৯৭১ সালে। পাকিস্তানী
বাহিনীকে প্রতিরোধ ২৬ মার্চ ১৯৭১ তারিখে শুরু হলেও বাংলাদেশের
স্বাধীনতা যুদ্ধে মুক্তিবাহিনীর সংগঠন ও সমন্বয়ে, আন্তর্জাতিক সমর্থন আদায়ে এবং সর্বোপরি এই যুদ্ধে প্রত্যক্ষ সহায়তাকারী
দেশ ভারতের সরকার ও সেনাবাহিনীর সঙ্গে সাংগঠনিক সম্পর্ক রক্ষায় এই সরকারের ভূমিকা
ছিল অপরিসীম। এই সরকার গঠনের সঙ্গে সঙ্গে পাকিস্তানী সামরিক বাহিনীর বিরূদ্ধতা
যুদ্ধের রূপ নেয় এবং স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসাবে বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠার
সম্ভাবনা উজ্জ্বল প্রতিভাসিত হয়ে ওঠে। ৯ মাসের মুক্তিযুদ্ধ শেষে ৩০ লাখ শহীদের রক্ত
এবং ২ লাখ মা-বোনের ত্যাগের বিনিময়ে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর
অর্জিত হয় চূড়ান্ত বিজয়। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে মুজিবনগর সরকারের গুরুত্ব ও অবদান
চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।

ছবি: 
আপনার রেটিং: None

Rate This

আপনার রেটিং: None