ঢেকে আছে আঁধারেই

বিএনপির রাজনৈতিক ভবিষ্যত আঁধারেই ঢেকে রয়েছে। বর্তমানে নিজেদের মধ্যে হানাহানি ও নিজেদের হামলা-মামলায়
জড়িয়ে পড়েছে বিএনপিসহ সহযোগী ও অঙ্গ সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরা। বিএনপির কর্মীদের
মধ্যে আতংক বিরাজ করছে, কে কখন কোন মামলায় জড়িয়ে পড়েন।
অবিশ্বাস ও প্রতিহিংসার রাজনীতির কারণেই মাথা তুলে দাঁড়াতে পারছে না। বিএনপির
সাংগঠনিক কার্যক্রমও স্থবির হয়ে পড়েছে। এতে মাঠ পর্যায়ে হতাশা বিরাজ করছে। আর এ
কারণেই আগামীতে সরকার পতন আন্দোলন জোরদার হওয়ার কোনো সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না।
দলের বিভিন্ন স্তরের কয়েকজন নেতা-কর্মী বলেছেন, দীর্ঘদিন
পূর্ণাঙ্গ কমিটি না থাকায় অনেক ত্যাগী নেতা-কর্মী নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েছে। ত্যাগী
নেতা-কর্মীরা সঠিক মূল্যায়ন না পেয়ে কাজে উৎসাহ হারিয়ে ফেলেছে। বর্তমানে দলটির
কার্যত সাংগঠনিক কোনো তৎপরতাও নেই। অনেক নেতা-কর্মী গ্রেপ্তার ও মামলা এড়াতে
আত্মগোপনে বা নিষ্ক্রিয় আছেন। কর্মসূচি নেই, নেই সাংগঠনিক
তৎপরতাও। দলীয় গ্রুপিং নিরসন করতে স্থানীয় ভাবে উদ্যোগ নিয়েও তারা সফল হতে পারছে
না। বিভিন্ন ঘটনায় বিবৃতি দেয়া থেকে শুরু করে কর্মসূচি ঘোষণা, সিদ্ধান্ত গ্রহণ, বাতিল বা স্থগিত করা-এসব নিয়ে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির মধ্যে পড়েছে বিএনপি। অভ্যন্তরীন কোন্দল
নিরসনের লক্ষ্যে এখন পর্যন্ত কার্যকর কোনো ভুমিকা রাখতে পারছে না দলটি। রাজনৈতিক অঙ্গনে
হতাশায় নিমজ্জিত হয়ে একেবারেই নিস্তেজ অবস্থা বিএনপি’র। ক্ষমতার বলয় থেকে ছিটকে পড়া বিএনপির নেতাকর্মী ও তৃণমূলের
সমর্থকরা গভীর হতাশায় নিমজ্জিত। ২০ দলীয় জোটের শরিক দল জামায়াতে ইসলামীর কার্যক্রমও
বন্ধ হয়ে আসছে। আগ্রাসী এ
দলটি এখন অস্তিত্ব রক্ষায় ব্যস্ত। সব মিলিয়ে এই রাজনৈতিক দলগুলোর যেটুকু কর্মকান্ড
রয়েছে তা মূলত প্রেস রিলিজ ও বিবৃতির মধ্যেই সীমাবদ্ধ। সংসদে না থাকলেও বড় দল হিসেবে
স্বীকৃত বিএনপির অবস্থা আজ বড়ই করুণ! স্থানীয় কর্মসূচি নেই, কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচির কোন প্রভাবও
প্রতিফলিত হতে দেখা যাচ্ছে না। দলের নেতারা একাধিক গ্রুপে বিভক্ত। বর্তমানে পাল্টাপাল্টি
তো দূরের কথা স্বাভাবিক দিবসের কর্মসূচিতেও তৃণমূলের নেতাকর্মীদের দেখা মেলে না। শুধু
কর্মী সমর্থকরাই নয়, খোদ নেতারাও এখন কার্যালয়মুখী নয়। বিএনপির হতাশা এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে
যে, দলটির পক্ষে আর কার্যকর কোন আন্দোলন গড়ে তোলা সম্ভব নয়। এখন
তারা তাই কর্মীদের নানাভাবে সাহস দিয়ে চাঙ্গা করার চেষ্টায় রয়েছে। দলের চেয়ারপার্সন
বেগম খালেদা জিয়া লন্ডন থেকে ফিরে কি নির্দেশনা প্রদান করেন সে অপেক্ষায় রয়েছেন নেতারা।
একইসঙ্গে দলের নেতৃত্বে রদবদল আসছে কিনা তা নিয়েও রয়েছে হিসাব-নিকাশ। এখন নেতা কর্মীদের মাঝে শুধুই অপেক্ষার  পালা!

ছবি: 
আপনার রেটিং: None

Rate This

আপনার রেটিং: None