নারী জীবনের জয়গান

শেষ বিকেলের মায়াবী আলোয়
হেমন্তের হাওয়ায় ধানের শীষে মৃদু দুলে ওঠা। মেঠোপথ আর নদীর তীর ধরে ক্লান্ত কৃষকের
ঘরে ফেরা এই তো বাংলাদেশের গ্রাম। যেখানে আজও ঋতু বদলের সঙ্গে সঙ্গে বদলে যায় তাদের
জীবনধারা। মন, মস্তিষ্ক, চিন্তায় যেমন সহজ তাদের ব্যক্তিজীবন তেমনই সরল তাদের জীবন
ধারণ। ফসলের মাঠ আর নদীর স্রোত আজও নির্ধারণ করে তাদের জীবিকা। প্রযুক্তির উন্নয়ন সরল
এই মানুষদের অনেকের কাছে নিছক এক ঝামেলা। যদিও অকপটে স্বীকার করে নেয় অনেক কঠিন কাজকে সহজ করতে প্রযুক্তি ব্যবহারের বিকল্প নেই। তাই তারাও
প্রযুক্তির সঙ্গে নিজেদের অভ্যস্ত করে নেওয়ার চেষ্টায় ব্যস্ত। কৃষিকাজে ব্যবহৃত নতুন
যন্ত্রপাতি থেকে শুরু করে মুঠোফোন, টেলিভিশন থেকে কম্পিউটার এখন জড়িয়ে যাচ্ছে তাদের
নিত্যদিনের জীবন-জীবিকার সঙ্গে। পুরুষের পাশাপাশি গ্রামীণ নারীরাও দিন দিন আগ্রহী হয়ে
উঠছে প্রযুক্তির ব্যবহারে। রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশ নারী উন্নয়নে
ব্যাপক সক্রিয়। নারীর ক্ষমতায়নে সরকারের ইতিবাচক ও আন্তরিক ভূমিকার
কথা সর্বজনবিদিত। আর সে কারণে সরকারের খ্যাতি দেশের গণ্ডি ছাড়িয়ে
বিশ্বব্যাপী সমাদৃত।  এই
সমাজেরই কিছু মানুষের কাছ থেকে নারীরা এখনো যথাযথ সম্মান পাচ্ছে না। তারা মনে করে পুরুষদের
ইচ্ছার উপর নারীকে চলতে হবে। নারীদের আলাদা কোনো সত্ত্বা থাকবে না। পুরুষদের পাশাপাশি
নারীরা এগিয়ে যেতে পারবে না। ধর্মের নাম নিয়ে যারা রাজনীতিতে সক্রিয় তারা যেমন নারীদের
উদার দৃষ্টিভঙ্গিতে দেখতে নারাজ তেমনি অতি উগ্র ইসলাম পন্থিরাও নারীদের ক্ষমতায়নে বরাবর
বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। অথচ ইসলামে নারীদের কাজ করতে কোনো বাধা নেই। উল্লেখ্য, খাদিজা
(রা.) একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী ছিলেন। পৃথিবীতে যা কিছু মহান
সৃষ্টি চির কল্যাণকর, অর্ধেক তার করিয়াছে নারী অর্ধেক তার নর’ -নারী ও পুরুষকে এভাবেই
দেখেছেন জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম। ইসলাম ধর্মসহ প্রায় সব ধর্মেই নারীকে গুরুত্ব
দেয়া হয়েছে। নারী হলেন মায়ের জাতি। যে মায়ের গর্ভ থেকে আমাদের জন্ম সে মায়ের জাতিকে
যদি মর্যাদা না দেয়া হয় তাহলে তা কলঙ্কজনক। কোন সমাজ ও রাষ্ট্র কতটা সভ্য বা উদার তা
নির্ভর করে সেখানকার নারীদের পারিবারিক, সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় অবস্থানের উপর।


 

আপনার রেটিং: None

Rate This

আপনার রেটিং: None