সাইক্লোন-ঘূর্ণিঝড়ের পূর্ব সতর্কতা এখন মোবাইল ফোনে

 

 

বায়ুর তাপমাত্রা, আবহাওয়া
শুষ্ক থাকবে, নাকি বৃষ্টি হবে, সাইক্লোন-ঘূর্ণিঝড়ের
সতর্কতা সংকেত, কৃষি আবহাওয়া, বন্যার
ধারা, শৈত্যপ্রবাহ—এসব তথ্য জানতে চায়
সবাই। ঘাঁটাঘাঁটি করলে হয়তো মেলেও। আবহাওয়ার আগাম ও নিখুঁত সর্তকবার্তা জানাতে বাংলাদেশ
আবহাওয়া অধিদফতর চালু করেছে একটি মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন। প্রাকৃতিক দুর্যোগে জানমালের
ক্ষয়ক্ষতি কমাতে এবং নৌ ও বিমান চলাচলের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এ

সেবা চালু করা
হয়। BMD
Weather App নামের অ্যাপটির মাধ্যমে দেশের যেকোন জায়গায় বসে আবহাওয়ার
সর্বশেষ তথ্য জানা যাবে।দেশের ৪২টি স্থানে স্থাপিত স্বয়ংক্রিয় আবহাওয়া যন্ত্রের সঙ্গে
এই অ্যাপের মাধ্যমে স্মার্টফোনে সরাসরি সংযোগ স্থাপিত হবে। আবহাওয়া অধিদফতরের ডপলার
রাডার, আবহাওয়া স্যাটেলাইটের সর্বশেষ আবহাওয়ার তথ্য  যেকোনো
সময়, যেকোনো স্থান থেকে এই অ্যাপের মাধ্যমে মোবাইল ফোনে পাওয়া
যাবে। অ্যাপ্লিকেশনটির মাধ্যমে এলাকাভিত্তিক সর্বশেষ বাতাসের তাপ, চাপ, গতি, বৃষ্টির পরিমাণ ইত্যাদি
খুব সহজেই তাৎক্ষণিকভাবে পাওয়া যাবে। এছাড়া এই অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করে ঘূর্ণিঝড় সর্তকবার্তা,
ঝড়ের অবস্থান, তীব্রতা, গতিপথ,
ভুমিকম্প, কৃষি আবহাওয়া, হাইড্রোলজি, শৈত্যপ্রবাহ, খরা ইত্যাদি
সম্পর্কিত তথ্য খুব সহজেই জানা যাবে। অপেক্ষাকৃত নিখুঁত আবহাওয়ার পূর্বাভাস ও সর্তকবার্তা
প্রচারের মাধ্যমে নিরাপদ নৌ ও বিমান চলাচলসহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগে জানমালের ক্ষয়ক্ষতি
কমিয়ে আনতে এই অ্যাপ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। অ্যাপ্লিকেশনটি ডাউনলোড করতে মোবাইলে
ইন্টানেট সংযোগ দিয়ে প্রথমে গুগল প্লে স্টোরে যেতে হবে। তারপর সার্চ বক্সে BMD
Weather App লিখলে চলে আসবে বাংলাদেশ আবহাওয়া অ্যাপ। এরপর ইনস্টল করে
নিতে হবে অ্যাপটি। এই আবহাওয়া তথ্যসেবা পর্যায়ক্রমে ২০২১ সাল নাগাদ কৃষক পর্যায়সহ সর্বস্তরের
জনগণের কাছে পৌঁছে দিতে সব উপজেলা সদরে এ সেবা নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।
স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা বাড়ি, অফিস, গাড়ি,
লঞ্চ, স্টিমার, বিমান এবং
ট্রেনে বিএমডি চালুর মাধ্যমে সর্বশেষ আবহাওয়া তথ্য পাবে। পাশাপাশি যেকোনো সময় স্মার্টফোন
স্ক্রিনে ডপলার রাডার এবং আবহাওয়া স্যাটেলাইট তথ্য দেখা যাবে। সর্বোপরি আবহাওয়াসংক্রান্ত
পূর্বাভাস এবং সতর্কতা সংকেত ব্যবস্থা ঝড়ের গতি-প্রকৃতি (অবস্থান, দিক ও তীব্রতা) নির্ধারণের সক্ষমতা আরো জোরদার করা হবে এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগের
কারণে জীবন ও সম্পদের ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনার ক্ষেত্রে এটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন
করবে। এই মোবাইল অ্যাপস সেবা প্রদানের মাধ্যমে বাংলাদেশ সরকার ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ নির্মাণের অঙ্গীকার বাস্তবায়নে আরো
এক ধাপ এগিয়ে গেল।

 

 

 

 

আপনার রেটিং: None

Rate This

আপনার রেটিং: None