পুলিশকে যুগোপযোগী করার লক্ষ্যে শুরু হচ্ছে কমান্ডো কোর্স

 

বাংলাদেশ পুলিশকে আধুনিক এবং দক্ষ করার
জন্য বিভিন্ন সময় বিভিন্নভাবে সরঞ্জাম, প্রশিক্ষন দেওয়া
হয়। এবার পুলিশ বাহিনেতে কমান্ডো ইউনিট গঠনের পরিকল্পনা করেছে। এরা ক্রাইসিস রেসপন্স টিম বা সিআরটি নামে কাজ করবে। বিভিন্ন পর্যায়ের ৪৪ জন সদস্যকে দেশে ও
বিদেশে প্রশিক্ষক হিসেবে বিশেষ প্রশিক্ষণ দিয়ে আনা হয়েছে। তারা প্রত্যেক কমান্ডোকে পিসিসি বা পুলিশ কমান্ডো কোর্সের আওতায় আট সপ্তাহের প্রশিক্ষণ দেবেন। পুলিশ সদর দফতর সূত্রে জানা গেছে, প্রশিক্ষিত কমান্ডো গড়ে তোলার লক্ষ্যে পিএসটিসিতে প্রাথমিকভাবে কমান্ডো কোর্স করানো হবে। পরে পর্যায়ক্রমে কমান্ডো ইউনিট ও
ব্যাটালিয়ন গঠন করা হবে। আগামী ১০ ফেব্রুয়ারি পিসিসির উদ্বোধন করবেন পুলিশ মহাপরিদর্শক এ কে এম শহীদুল হক। বিভিন্ন দেশের প্রশিক্ষণ মডিউলকে সমন্বয় করে আপাতত আট সপ্তাহের বেসিক কমান্ডো কোর্সের মডিউল তৈরি করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে অ্যাডভান্স কমান্ডোর মডেলও তৈরি করা হবে। এ কমান্ডো কোর্স সম্পন্ন করেছেন এমন সদস্যদের নিয়ে দেশের সব মেট্রোপলিটন ও
রেঞ্জে আপাতত ক্রাইসিস রেসপন্স টিম বা সিআরটি গঠন করা হবে। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের বর্তমান সোয়াত ইউনিটের মতো হবে সিআরটির কার্যক্রম। এরা সারা দেশে কাজ করবে। দুই মাসের এ
প্রশিক্ষণ শেষে এ
দুটি টিম অনেকটা সোয়াতের আদলে খুলনা মেট্রোপলিটন ও রংপুর রেঞ্জে কাজ করবে। তাদের প্রধান কাজ হবে শৃঙ্খলাজনিত ক্রাইসিস নিরসনে তাত্ক্ষণিক ঝটিকা পদক্ষেপ গ্রহণ। পর্যায়ক্রমে এ
রকম আরও অনেক টিমকে এ
কমান্ডো প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। কমান্ডো ইউনিট গঠনের অংশ হিসেবে সর্বপ্রথম গত বছরের শুরুর দিকে ভারতের উত্তরপ্রদেশের চীন সীমান্তে অবস্থিত ইন্দো-তিব্বতিয়ান ট্রেনিং সেন্টারে নয় সপ্তাহের একটি বিশেষায়িত কমান্ডো প্রশিক্ষণ নিয়েছেন পুলিশের দুজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাইমুল হাসান ও মারুফাত হোসেন। ওই প্রশিক্ষণ একাডেমি থেকে ভারতে স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্স—এসপিজি প্রশিক্ষণ নিয়ে থাকে। বিশ্বে প্রতিনিয়ত অপরাধ ও অপরাধীদের ধরন পাল্টে যাচ্ছে। তাদের সঙ্গে পাল্লা দিতে পুলিশকে যুগোপযোগী করার একটি ধাপ কমান্ডো কোর্স।

ছবি: 
আপনার রেটিং: None

Rate This

আপনার রেটিং: None