বিএনপি সরকারের ব্যর্থতা (১৯৯১-১৯৯৬)- ১/২

খালেদা জিয়া সরকারের সূচনালগ্নে জনগণের প্রত্যাশা
ছিল বাংলাদেশ এবার স্থায়ীভাবে রাজনৈতিক সংকট থেকে মুক্তি পাবে। সামরিক শাসনামলের সমাপ্তি ঘটবে এবং সত্যিকারের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত
হবে। কিন্তু অনেক অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার ফলে পুনরায় দেশে রাজনৈতিক অচলাবস্থাসহ
বিভিন্ন ধরনের সমস্যা দেখা যায়। এসব অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার উদ্ভব খালেদা জিয়া সরকারের
ব্যর্থতার পরিচয় বহন করে।

 

১. তৎকালীন খালেদা জিয়া সরকারের গুরুত্বপূর্ণ সংকট
ও ব্যর্থতা হিসেবে সর্বপ্রথমে যে বিষয়টি উল্লেখ করা যায় তা হলো প্রধানমন্ত্রী
হিসেবে খালাদা জিয়ার শাসনামলে বিএনপি’র সঙ্গে প্রধান বিরোধী দলসমূহের
হৃদ্যতাপূর্ণ সম্পর্কতো ছিলই না বরং অযোক্তিকভাবে অত্যন্ত বৈরি সম্পর্ক বিদ্যমান
ছিল। জাতীয় সংসদের অধিবেশন থেকে বিরোধী দলগুলো অধিকাংশ সময়ই ‘ওয়াকআউট’ করেছে। ভিন্নমতের প্রতি শ্রদ্ধা ও সহিষ্ণুতার অভাবই এরূপ
অসমতাকে স্থায়ীভাবে প্রতিষ্ঠা করেছে বলে সুধী মহল মনে করেন।

২. বিরোধী দলসমূহের সদস্যগণ একসময় স্থায়ীভাবে
সংসদের অধিবেশন বর্জন করলে দেশে চরম রাজনৈতিক অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়।

৩. প্রধান বিরোধী দল আওয়ামী লীগ সংসদে ইনডেমনিটি
বিল বাতিলের দাবী উত্থাপন করলে খালেদা জিয়া সরকার তা এড়িয়ে যাবার চেষ্টা করে।
অনেকের মতে বিএনপি মুখে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার কথা বললেও বাস্তবে গণতন্ত্রকে
প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে ব্যর্থ হয়।

৪. তৎকালীন চলমান রাজনৈতিক অচলাবস্থা, অসন্তোষ
এবং বিরোধী দলসমূহের সংসদ থেকে পদত্যাগের পরেও সরকার শুধুমাত্র সরকারী দলের সংসদ
সদস্যদের দ্বারা সংসদ অধিবেশনে অর্থ বিলসহ অন্যান্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিল উত্থান
ও পাস করে নেয়। এরূপ অগণতান্ত্রিক আচরণ কোন গণতান্ত্রিক সরকারের পক্ষে শোভন তো নয়ই
বরং তা গণতন্ত্রের অবমাননার সামিল।

৫. খালেদা জিয়া সরকারের শাসনামলে (১৯৯১-১৯৯৬) দেশের
রাজনৈতিক, সামাজিক ও অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে দলীয়করণের নীতির বিশেষ
প্রভাব পরিলক্ষিত হয়েছে। দলীয় সদস্য বা সমর্থক কোন ব্যক্তি সে অদক্ষ বা অযোগ্য যাই
হোক না কেন, তাকে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব অর্পণের ফলে ঐ সকল
কর্মকাণ্ডের উদ্দেশ্য ব্যর্থ হয়েছে। ফলে সার্বিকভাবে উন্নয়নের ক্ষেত্রেও দেশ
পিছিয়ে পড়েছিল।

৬. বিএনপি’র
তৎকালীন শাসনামলে ছাত্রসমাজ ও তাদের সমর্থিত তরুণ যুবক শ্রেণী তাদের রাজনৈতিক দলের
এবং ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিলের জন্য নানাধরণের অসামাজিক এবং সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে
জড়িয়ে পড়ে। খালেদা জিয়া সরকার এসব অসামাজিক অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের প্রতিকার করতে
সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়। খালেদা জিয়া সরকার সন্ত্রাস দমন আইন প্রণয়ন করে দেশে শান্তি
শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠার কথা বললেও বাস্তবে তা কার্যকরী করতে ব্যর্থ হয়েছে।

৭. সরকার সমর্থক এবং সরকার সমর্থিত এক শ্রেণীর আমলা
ও পদস্থ কর্মকর্তা বিভিন্ন কৌশল অবলম্বনে জনগণকে নানাভাবে বঞ্চিত ও অপদস্থ করে
নিজেদের স্বার্থ হাসিল করেছিল। প্রশাসনে দুর্নীতি ও নৈরাজ্য বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও
দফতরের কর্মকাণ্ডকে বিপর্যস্ত করে দিয়েছিল।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)