ফেসবুকে জীবন -- রফিকুল ইসলাম জসিম

সময় এগিয়ে আসছে আর এক ধাপ। আর সময় বদলে দেয় সবকিছু।  কালের করাল থাবা থেকে রেহাই পায় না মানুষ,  জীবনযাপন।  মৌলিক চাহিদা না হলেও মানুষের স্বাভাবিক চাহিদা না হলেও মানুষের বেঁচে থাকার অন্যতম উপদান বিনোদন।  সময়ে সঙ্গে বতমার্ন বিনোদনের অন্যতম স্থান হলো ফেসবুক।  শুধু কি বিনোদন এর অন্যতম হচ্ছে  যোগাযোগের এক অনন্য মাধ্যাম এখন ফেসবুক ।  মুঠোফোনের ক্ষুদে বার্তা আর মেইল আদান -প্রদানের অনেক কাজ ও এখানে দিব্যি সেরে নিচ্ছেন অনেকে।  একই সঙ্গে জড়িয়ে পড়াছেন  সম্পর্কের এক মায়াজালে ।  আপনি মানুন আর না- ই মানুন - ফেসবুকে এখন আমাদের জীবনে নতুন এক বাস্তবতা। আমরা একটি জীবনের অধিকারী, একবার জন্মগ্রহণ করি এবং একবার মৃত্যুবরণ করি।  আমাদের সমগ্র জীবনের বাসনা হল,  সুখে শান্তিতে আনন্দে দিক কাটতে।  বর্তমানে সময়েও আনন্দের পাশাপাশি ভালো দিক গ্রহন করা যায়।  ফেসবুকে বা অন্যান্য সবক্ষেত্র  প্রায় সব আবিস্কারেরই ভালো মন্দ দুটি দিক থাকে।  কোনটি গ্রহন করতে করবেন সে সিন্ধান্ত আপনাকে নিতে হবে।  কারও কারও মতে বিকল্প গণমাধ্যম।  কিন্তু কতটুকু ফেসবুকনির্ভর হবে আমাদের জীবন? প্রশ্নটা আদতে সরল মনে হলেও উত্তর খানিকতা জটিল। জীবন অনেক মূল্যবান।  জীবনের প্রতিটি মূহর্ত কীভাবে খরচ করবেন  সেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে আপনাকে।  বিনোদনের সময়টুকু বা আন্দের টুকরো টুকরো মহূর্তগুলো শেয়ার করতে পারেন বন্ধদের সঙ্গে।  ফেসবুকে ভালো দিকগুলো  নিজেরদের  উপর বিশ্বাস রাখুন।  পৃথিবীকে জয় করতে জন্ম হয়েছে আপনার।  ফেসবুকে সয়ম কাটতে বেছে নিন অবসর সময়।  

ছবি: 
আপনার রেটিং: None

Rate This

আপনার রেটিং: None