ইরানের ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপ ও আহমাদিনেজাদের প্রতিক্রিয়া

শান্তিপূর্ণ কাজে পরমাণু প্রযুক্তি ব্যবহারের অধিকার সব দেশের থাকলেও আমেরিকা ও তার মিত্ররা ইরানকে সে অধিকার থেকে বঞ্চিত করার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। তাদের সাম্প্রতিক চেষ্টার বহিঃপ্রকাশ হলো-ইরানের ওপর ৪র্থ দফা নিষেধাজ্ঞা। বিস্তারিত
সম্প্রতি ইরান পাশ্চাত্যের প্রস্তাব অনুযায়ী তুরস্ক ও ব্রাজিলের সাথে পরমাণু বিনিময় সংক্রান্ত চুক্তি করার পর অনেকেই একে স্বাগত জানালেও মার্কিনীরা তাতে খুশী হয়নি। আর সেজন্যই বিভিন্ন দেশের সাথে অসংখ্য বৈঠক, চাপ, প্রলোভনের মাধ্যমে নতুন নিষেধাজ্ঞা আরোপের ব্যবস্থা করা হলো। যাহোক, ইরানের ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপের পর এক প্রতিক্রিয়ায় ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. মাহমুদ আহমাদিনেজাদ বলেছেন, নিষেধাজ্ঞা আরোপের মাধ্যমে তারা ইরানী জাতির কোন ক্ষতি করতে পারবে না। তিনি গতরাতে তাজিকিস্তানের রাজধানী দোশাম্বেতে এক সমাবেশে বলেছেন, পরমাণু অস্ত্রের অধিকারী দেশগুলোই এখন পরমাণু অস্ত্র তৈরীর প্রচেষ্টার ভিত্তিহীন অজুহাতে ইরানের বিরুদ্ধে একের পর এক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছে। তবে তাদের জেনে রাখা উচিত যে, ইরানী জনগণের কাছে এসব নিষেধাজ্ঞার কোন মূল্য নেই। বিস্তারিত

ইরানের ওপর নতুন নিষেধাজ্ঞার নিন্দা জানাই। পাশাপাশি নিষেধাজ্ঞা প্রস্তাবের বিপক্ষে ভোট দেয়ার জন্য তুরস্ক ও ব্রাজিলকে ধন্যবাদ জানাই। ইরানের ওপর নতুন নিষেধাজ্ঞা অতীতের মতোই অকার্যকর হোক এ কামনা করছি।

ছবি: 
আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3 (2টি রেটিং)

প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আহমাদিনেজাদ পরমাণু কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে ইরানের ওপর জাতিসংঘ-আরোপিত নতুন নিষেধাজ্ঞাগুলোকে ডাস্টবিনের উপযুক্ত ‘ময়লা রুমাল’ আখ্যা দিয়ে খারিজ করে দিয়েছেন। আহমাদিনেজাদ বলেন, ‘আমি (বিশ্ব শক্তিগুলোর) একটিকে জানিয়ে দিয়েছি যে তোমরা যে অবরোধ আরোপ করছ তা একটি ব্যবহূত রুমালের মতো, যা ডাস্টবিনে ছুড়ে ফেলা উচিত।’ তিনি আরও বলেন, ‘এগুলো ইরানের জনগণকে কোনো কষ্টই দিতে পারবে না।’ (সূত্র : প্রথম আলো)

এসব নিষেধাজ্ঞা দিয়ে কি হয়?

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3 (2টি রেটিং)