লুণ্ঠিত আজ মানবতা শোন হে নওজোয়ান, হাঁকিছে ভবিষ্যত তুমি হও আগুয়ান!!!

চারিদিকে আজ শুনি মজলুমের আত্মধ্বনি, আহাজারি আর সেই আত্মনাদ শুনে হায়নাদের উল্লাস, অট্ট হাসি, সে হাসিতে যেন প্রতিধ্বনিত হচ্ছে আকাশে  বাতাসে, হৃদয়ের কান্না যেন ছড়িয়ে পড়ছে দিক থেকে দিগন্তে,  আজ আর কেউ শুনতে পায় না সেই আহাজারি। সবাই যেন নিরব দর্শকের মত দাঁড়িয়ে দেখছে আজ, এই কান্নার আওয়াজ ধ্বনিত হচ্ছে মানবতার আকাশে, আহ!  আসসোস!  আর দেখি লুণ্ঠিত হচ্ছে মানবতা, আজ যেন মানুষের কোন মূল্য নেই এই ধরায়, অথচ মানুষই শ্রেষ্ঠ, স্রষ্ঠার এক মহাদান। আমি দেখেছি মানবতা, দেখেছি মনুষ্যত্ব, শুনেছি জীবনের জয়গান, কোথায় হারিয়ে গেলো আজ স্রষ্টার শ্রেষ্ঠ সেই মহাদান!

 সৃষ্টির মাঝে করুণাময় আল্লাহ মানুষকে দামী করে বানিয়েছে। তাদের মর্যাদা দিয়েছেন সব সৃষ্টি কুলের উপরে। আর সমস্ত সৃষ্টিকুলকে যেন মানুসের আজ্ঞাবহ করে দিয়েছে। এ এক মহা করুণা মহান প্রভুর আল্লাহর পক্ষ থেকে। কিন্তু দেশ, জাতি, ধর্ম, বর্ণ, নির্বিশেষে এই মহা নেয়ামত আমরা সকলে ভোগ করছি। এই মহা বিশ্বের মাঝে আমরা সকলে জ্ঞাতির সম্পর্কে বেঁচে আছি। আর এ বেঁচে থাকা সার্থক হবে তখনই যখন মনুষ্যত্ব মানবতা বজায় রেখে পৃথিবীতে সুখ আর শান্তির বাগিচা রচনা করা যাবে, ঠিক তখনই গড়ে উঠবে আত্মীয় বেশে বেঁচে থাকা। কিন্তু আজ দেখি চারিদিকে হানাহানি, অন্যায়, অত্যাচার এমন ভাবে মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে, যা সীমাহীন মাত্রা চেড়ে  গেছে, আজ যেন মানুষের কোন মূল্যই নেই, জ্ঞানী-গুনীজনরা যেন আজ অবেহেলিত, তাদের জ্ঞানগর্ভের কথা গুলো যেন বইয়ের পাথায় সীমাবদ্ধ, আজ মনুষ্যত্বের কথা বললে যেন  অবাক দৃষ্টিতে তাকায়, সত্য যেন আজ চিড়িয়াখানার পশুতে পরিণত হয়েছে।

এই যদি হয় কথিত মানবতা, তাহলে মানবতার সর্বশেষ আশ্রয়টুকু যেন জীবন্ত কবরে পরিণত হয়েছে। দেশে দেশে আজ অন্যায় অবিচার এমন ভাবে মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে, চারিদিকে যেন বুলেট বেয়নেট আর বজ্র প্লেনের ধ্বনিতে কাঁপিয়ে তুলছে। কেন এই নেশা, কি ধন লোভে, জীবন্ত মানবতা তিলে তিলে পুতে পেলছে মাটির গহব্বরে। কে ধরবে আবার মানবতার হাল, কে উঠাবে পাল, যাত্রীরা আজ হুশিয়ার, কখন হবে পারাবার, সত্য সন্ধানী যারা তারা আজ নির্বাক, এই যদি হয় সভ্যতার হিংস্র রূপ, তাহলে একদিন সত্যি সত্যি মানবতার কবর রচনা করে সেই জাহিলিয়াতের অন্ধকার গহ্ববরে হারিয়ে যাবে সব কিছু। ওহে সভ্যতা বিনির্মাণের নওজোয়ানেরা তোমরা কোথায়, তোমরা জেগে উঠো নতুন পৃথিবীর জন্য, তোমাদের আর ঘুমিয়ে থাকার সময় নেই, রাত্রি যে প্রায় শেষ, পূর্ব দিগন্তে সোনালি আলো জেগে উটবে, আর সেই আলোর মিছিলের ভরিয়ে দিবে এই নববায়....

*** তোমাদের অনুপ্রেরণায় আমার লেখনির কিছু লাইন উৎসর্গ করলাম।

শান্তির পথে বিঘ্নকারীরা চক্রান্তে লিপ্ত আজ

সজাগ হয়ে ভেঙ্গে দিও ওহে মুজাহিদ

তোমরা কর পণ আমাদের মাঝ

কাঁপছে থরথর হুংকার শুনে

বজ্রের ধ্বনিতে ঝংকার তুলে

তোরা এগিয়ে চল যে আজ

জেগে উঠো ওহে বীর জেগে উঠো আজ

বাতিলের প্রহসন ধ্বংস করে গড়ো সমাজ

ওরে ভয় নেই তোরা এগিয়ে চল আজ

সত্যের পথে দৃঢ় প্রত্যয়ে আগুয়ান হও যে আজ

বাতিল পালাবে অন্ধকারে মাথায় পড়বে বাজ

ওরে! ভয় নেই তোরা এগিয়ে চল আজ

অন্যায়ের প্রতিবাদে বজ্র কন্ঠে হুংকার দে তোরা আজ

ভয় কিসে তোদের আছে আল্লাহর বিধান 

তোরা এগিয়ে চল আজ।

সমগ্র বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠায় এই লেখনি, আর সকলের হৃদয় ফুটে উঠুক শান্তি প্রতিষ্ঠার অনুপ্রেরণা, আর শান্তির জন্য সকল হৃদয় হয়ে উঠুক চির বসন্ত রূপে।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4 (টি রেটিং)

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4 (টি রেটিং)