মোবাইল ফোনে বাংলা ভাষা এবং বাংলাদেশ

বাংলা আমাদের মাতৃভাষা, প্রাণের ভাষা। এ ভাষার জন্য আমাদের ত্যাগ ও সংগ্রামের কথা সকলেরই জানা।  ১৯৫২ সালে রক্ত দিয়ে আমরা বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্রভাষার মর্যাদায় অধিষ্ঠিত করেছি। আমাদের ভাষা আন্দোলনের সম্মানে ইউনিসেফ ১৯৯৯ সালে ২১শে ফেব্রুয়ারিকে “আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস” হিসেবে পালন করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে এবং বর্তমানে বিশ্বের প্রতিটি দেশে ২১শে ফেব্রুয়ারি “আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস” হিসেবে পালিত হচ্ছে। এটা নিঃসন্দেহে আমাদের জন্য গৌরবের বিষয়। মাতৃভাষা হিসেবে ব্যবহারের দিক থেকে বাংলা ভাষার অবস্থান পৃথিবীতে ষষ্ঠ (উইকিপিডিয়া)। কিন্তু রাষ্ট্রীয় কার্যে ও ব্যক্তিগতভাবে ব্যবহারিক জীবনে আমরা বাংলা ভাষার যথোপযুক্ত প্রয়োগে সক্ষম হচ্ছি না। এখানে আমি সবগুলো সমস্যা/বিষয় উল্লেখ না করে শুধু মোবাইল ও ইন্টারনেট সংক্রান্ত কয়েকটি বিষয় উল্লেখ করব।

১. বাংলাদেশে বর্তমানে মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৫৮,৩৬০,০০০ (মে ২০১০, www.btrc.gov.bd)। তরুণ প্রজন্মের একটা বড় অংশ Multimedia সুবিধা সম্বলিত উচ্চমানের মোবাইল সেট ব্যবহার করে। কিন্তু উচ্চমানের হওয়া সত্ত্বেও এসব মোবাইল সেটে বাংলা ভাষা ব্যবহারের কোন সুযোগ নেই। উদাহরণ হিসেবে নকিয়া এন-সিরিজ, ই-সিরিজ ও অন্যান্য স্মার্ট ফোন এবং স্যামসাং, সনি-এরিকসন, মটোরোলা, এলজি ইত্যাদি কোম্পানির মোবাইল ফোনের কথা উল্লেখ করা যায়। ইন্টারনেট সুবিধা থাকা সত্ত্বেও আমরা এসব মোবাইল ফোন দিয়ে বাংলা ওয়েবসাইট বিশেষ করে বাংলা পত্রিকা, বাংলা ব্লগ, ইমেইল, ফেসবুক, উইকিপিডিয়া, গুগল ইত্যাদি বাংলা ভাষায় ব্যবহার করতে সক্ষম হচ্ছি না। কিন্তু আমাদের তরুণ প্রজন্ম মোবাইল ও ইন্টারনেটে বাংলা ভাষা ব্যবহার করতে চায়। উদাহরণ হিসেবে আমার ফেসবুক বন্ধুদের কয়েকটি মন্তব্য / বক্তব্য (status) এখানে উল্লেখ করলাম: Brazil ba Argentina kono doler e ebar final khela hobena/ Jodi notun kono jonmo thaka, pabo dujon dujonaka/ shanti chai/ Kal dka jachsi ইত্যাদি। এ বক্তব্যগুলোর মাধ্যমে এটাই প্রমাণিত হয় যে, তরুণ প্রজন্ম বাংলা ভাষা ব্যবহার করতে চায়, কিন্তু প্রযুক্তিগত সীমাবদ্ধতার কারণে পারেনা। ফলে তারা ইংরেজিতে অদ্ভুত এক বাংলার চর্চা করে। তারা হয়তো একদিন শুদ্ধ বাংলা ভুলে যাবে এবং এটাকেই “বাংলা ভাষা” বলে ভুল করবে। সুতরাং “মোবাইল এবং ইন্টারনেটে বাংলা ভাষার বিকাশ বাধাগ্রস্থ হচ্ছে” একথা নিঃসন্দেহে বলা যায়। সব মোবাইল প্রস্তুতকারক কোম্পানিরই সাধারণমানের কিছু মোবাইল সেট বাংলা ভাষা সাপোর্ট করে যেগুলো দিয়ে শুধু ফোন করা ও গ্রহণ করা যায়। কিন্তু এসব সেট ইন্টারনেট ব্যবহারের জন্য মোটেও উপযোগী নয় (দু’একটি ব্যতিক্রম ছাড়া)। শুধুমাত্র সাধারণমানের মোবাইল সেটে বাংলা ভাষা ব্যবহার করে প্রকারান্তরে মোবাইল প্রস্তুতকারক কোম্পানিগুলো বাংলা ভাষাকে অপমান করছে। বিভিন্ন জাতীয় দিবসে রেডিও-টেলিভিশনে এবং দৈনিক পত্রিকায় পূ্র্ণ-পৃষ্ঠা রঙ্গীন বিজ্ঞাপন দিয়ে তারা বাঙ্গালি সাজার চেষ্টা করে, বাংলা ভাষার জন্য তাদের দরদ প্রদর্শন করে; কিন্তু অন্তরে তারা মোটেও বাঙ্গালি নয়। সুতরাং সচেতন সমাজের কাছে আমার আকুল আবেদন, আপনারা বিষয়টি নিয়ে ভাববেন, পরিবারের সদস্য, বন্ধু-বান্ধব এবং অন্যদের সাথে আলোচনা করবেন, পত্রিকায় লিখবেন এবং সামাজিক সচেতনতা তৈরির চেষ্টা করবেন যাতে মোবাইল ফোন প্রস্তুতকারক কোম্পানিগুলো তাদের প্রস্তুতকৃত সকল শ্রেণীর মোবাইল সেটে বাংলা ভাষা ব্যবহার করতে বাধ্য হয়। কিছু মোবাইল সেটে বাংলা ভাষার যে ব্যবহার করা হয়েছে তা অতি নিম্নমানের, অপ্রচলিত ও হাস্যকর শব্দে ভরপুর। এগুলো সংশোধন করে প্রমিত বাংলা (বাংলা একাডেমী কর্তৃক অনুমোদিত বাংলা) ব্যবহার করতে হবে।

২. কাগজে-কলমে বাংলাদেশে মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা প্রায় ছয় কোটি হলেও ধারনা করা হয় সক্রিয় ব্যবহারকারীর সংখ্যা প্রায় তিন কোটি। অর্থাৎ বাংলাদেশে তিন কোটি মোবাইল সেট ব্যবহৃত হচ্ছে। সুতরাং বিদেশ থেকে মোবাইল সেট আমদানি না করে আমাদের বাংলাদেশে প্রস্তুতকৃত মোবাইল সেট ব্যবহারের সময় হয়েছে। নকিয়া, স্যামসাং, সনি-এরিকসন ইত্যাদি কোম্পানি চীন, ভারত, ভিয়েতনাম প্রভৃতি দেশে তাদের নিজস্ব মোবাইল কারখানা/প্ল্যান্ট স্থাপন করেছে। বাংলাদেশেও যদি অনুরূপ কারখানা স্থাপিত হয়, বাংলাদেশের দক্ষ ও অদক্ষ জনশক্তির কর্ম-সংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে এবং বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রার সাশ্রয় হবে। এ বিষয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, টেলিযোগাযোগমন্ত্রী এবং অর্থমন্ত্রী মহোদয়ের সুদৃষ্টি কামণা করছি।

৩. প্রায় সবকটি বাংলা পত্রিকা ওয়েব সংস্করণ বের করে। কিন্তু সবাই ইউনিকোড ভিত্তিক ফন্ট ব্যবহার না করায় বাংলা সমর্থিত মোবাইল ফোনেও ঐগুলো পড়া সম্ভব হয় না। তাছাড়া কম্পিউটারে ইন্টারনেট ব্যবহারের ক্ষেত্রেও ইউনিকোড ভিত্তিক ফন্ট ব্যবহৃত না হলে অনেক সময় বিড়ম্বনায় পড়তে হয়। এ সমস্যার সমাধানে  পত্রিকা-সম্পাদকবৃন্দের সুদৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

৪. বর্তমান দৈনিক পত্রিকাগুলোতে কম্পিউটার বা তথ্য-প্রযুক্তি বিষয়ে সাধারণত একটি অংশ বরাদ্দ থাকে। এটা নিঃসন্দেহে একটা ভাল দিক। কিন্তু এখানে মাঝেমাঝে ইংরেজি শব্দের কিছু বাংলা পরিভাষা ব্যবহার করা হয় যা অনেক সময় শ্রুতিমধুর হয় না (উদাহরণ:  download এর পরিবর্তে নামিয়ে নিন, touch screen এর পরিবর্তে স্পর্শকাতর পর্দা ইত্যাদি)। আমরা মেডিকেলে পড়তে গিয়ে দেখেছি কিছু মূল শব্দের বাংলা পরিভাষা এতটাই জটিল যে, মূল শব্দটা ব্যবহার করা তার চেয়ে অনেক সহজ (উদাহরণ: সুষুম্নাকাণ্ড, জঙ্ঘাস্থি ইত্যাদি)। সুতরাং সব শব্দের পরিভাষা করার চেষ্টা না করে কোন্ কোন্ শব্দ অবিকৃত অবস্থায় ব্যবহৃত হবে এবং বেশি প্রচলিত শব্দগুলোর  গ্রহণযোগ্য পরিভাষা কী হবে তা ঠিক করলে ভাষার মাধূর্য বজায় থাকবে এবং বিভ্রান্তি দূর হবে। এ ক্ষেত্রে একটা সার্বজনীন নীতিমালা প্রণয়ন করা প্রয়োজন বলে আমি মনে করি।

আশাকরি, উপরোক্ত বিষয় গুলো বিবেচনা করে বাংলা ভাষাকে এবং বাংলাদেশকে আরো এক ধাপ এগিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে প্রযুক্তি-বান্ধব বর্তমান সরকার, তথ্য-প্রযুক্তিবিদ, সংবাদ-কর্মী, সাংস্কৃতিক-কর্মী এবং সর্বোপরি সচেতন সমাজ যথাযথ ভূমিকা পালন করবেন। যেহেতু এ বিষয়গুলোতে কথা বলার মতো যথেষ্ঠ জ্ঞান এবং সুযোগ আপনাদের আছে, সেহেতু এটা করা আপনাদের একটা দায়িত্ব, আপনাদের কাছে নতুন প্রজন্মের অধিকার এবং বাংলা ভাষার প্রতি সম্মান প্রদর্শনের একটা সুযোগ।
আমরা ফেসবুকে "Establish BANGLA Language in Mobile Phones"  নামে একটা সাপোর্ট গ্রুপ তৈরি করেছি। ফেসবুক  ব্যবহারকারীরা এতে যোগ দিয়ে বাংলা ভাষার সম্মান বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখতে পারেন। Link: http://www.facebook.com/group.php?gid=106184239427558
সকলের মঙ্গল কামনা করে এবং সর্বস্তরে বাংলা ভাষার সুন্দর ব্যবহারের প্রত্যাশায় শেষ করছি। ভাল থাকবেন।

ডাঃ মোবাশ্বেরুল ইসলাম (সোহাগ),
সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ।
dr.shohag@gmail.com

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.2 (5টি রেটিং)

বিসর্গে স্বাগতম।

একসময় মোবাইলে/কম্পিউটারে  বাংলা নিয়ে আমার কিছু গবেষনা করার প্ল্যান ছিল, । ৫ বছরের বেশি সময় ধরে দেশের বাইরে থাকায় সেটা আর বাস্তবায়ন  করার সুযোগ হয়নি।

 সময়পেলে এখানেই শেয়ার করার চেষ্টা করব।

আপনার  উদ্দ্যোগের সফলতা কামনা করছি।

 

আপনাকে ধন্যবাদ। দয়াকরে আপনার ভাবনাগুলো এখানে শেয়ার করুন। আমরা আমাদের
দাবিকে একটা জাতীয় দাবিতে পরিণত করতে চাই।

বেশিরভাগ মোবাইল ফোনেই বাংলা অক্ষরসহ ফন্ট ব্যবহারের সুযোগ নেই। আমার ফোনে ইউনিকোড আরবি সুন্দর করে আসে কিন্তু বাংলার বেলায় বক্স দেখা যায়। এ সমস্যা সমাধানে অপেরা ব্রাউজার খুব সুন্দর একটা ব্যবস্হা করেছে। ব্রাউজারটি ইউনিকোডের লেখাগুলো ছবিতে কনভার্ট করে মোবাইলে দেখায়। এতে আপনার পছন্দমত ফন্টে দেখা না গেলেও কাজ চলে Smiling

আপনাকে ধন্যবাদ। নিচে ওপেরা মিনির ব্যাপারে সবার জন্য একটা ব্যাখ্যা দেয়া হল। 

ভাষাকে নিজস্ব স্বকীয়তায় টিকিয়ে রাখতে হলে জাতীয় উদ্যোগের বিকল্প নেই। কিন্তু আমাদের বাংলা একাডেমীকে সে পদক্ষেপে এখনো পঙ্গু বলতে হবে। অবশ্য এ দায় সরকারের উপরই বর্তায়।

-

আড্ডার দাওয়াত রইল।

> > > প্রতি শুক্রবার আড্ডা নতুন বিষয়ে আড্ডা শুরু হবে।

আপনাকে ধন্যবাদ। ভাষার স্বকীয়তা বজায় রাখতে হলে জাতীয় উদ্যোগের বিকল্প
নেই। সরকার, বাংলা একাডেমী এবং শিক্ষিত-সচেতন সমাজ সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

** Opera Mini দিয়ে বাংলা ওয়েবসাইট দেখার একটা বিকল্প ব্যবস্থা আছে। তার
জন্য Opera Mini তে গিয়ে address bar-এ লিখতে হবে opera:config এবং
Ok/Enter চাপতে হবে। এরপর Power user settings নামে একটা পেজ আসবে। ঐ পেজের
একদম নিচের দিকে Show Bitmap Fonts for complex scripts অপশনে Yes সিলেক্ট
করে Save করতে হবে। এখন আপনি Unicode ভিত্তিক যেকোন বাংলা ওয়েবসাইট দেখতে
পাবেন। তবে আপনার হয়তো লেখাগুলো পড়তে সমস্যা হতে পারে, কারণ এক লাইনের
উপর অন্য লাইন লেপ্টে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে। সাধারণভাবে Opera-তে কোন page
লোড হতে ২০ কিলোবাইট ডাটা নিলে, এভাবে বাংলা প্রদর্শন করতে নিবে ৩০০ থেকে
৪০০ কিলোবাইট ডাটা। উদাহরণ হিসেবে বলা যায় আমার নকিয়া 5800XpressMusic বা
5230 তে Opera Mini 4.2 এর মাধ্যমে "প্রথম আলো" লোড হতে লাগে প্রায় ৫০০
কিলোবাইট ডাটা যার বিল দশ টাকার উপরে (P1 প্যাকেজে প্রতি কিলোবাইট দুই
পয়সা হিসেবে) যা মোটেও কাম্য নয়। তাছাড়া এভাবে Opera ছাড়া Menu,
Message বা অন্য কিছুতে বাংলা দেখা সম্ভব নয়। সুতরাং এটাকে আমরা মোবাইলে
বাংলা সাপোর্ট বলতে পারব না। আমরা চাই স্বাভাবিক বাংলা সাপোর্ট যাতে কোন
কৌশল অবলম্বন ছাড়াই মোবাইলে বাংলা পড়তে ও লিখতে পারি। নকিয়ার তৈরি
বেশিরভাগ মোবাইলে হিন্দি, উর্দু, আরবি, মালয়, ফিলিপিনো, মান্দারিন/চীনা,
জাপানি, কোরিয়ান ইত্যাদি এশিয়ান ভাষা সাপোর্ট থাকে (Firmware ভেদে কম/
বেশি হতে পারে)। বাংলা ভাষার অবস্থান আরবি ও মান্দারিন ছাড়া সবগুলোর উপরে।
সুতরাং বাংলা ভাষা সাপোর্টের যৌক্তিকতা ভেবে দেখবেন। সবাইকে ধন্যবাদ।

অন্যান্য দেশের সরকার বা কর্তৃপক্ষ তাদের নিজ নিজ ভাষা অন্তর্ভূক্ত করার জন্য তৎপর থাকেন। এক্ষেত্রে বাংলাদেশের সরকার যেহেতু "রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা" বিঘ্নিত হবার আশংকায় থাকেন, তাই আমাদের এগিয়ে আসতে হবে।

হ্যান্ডহেল্ড ডিভাইসে বাংলাকে সহজলভ্য করার জন্য উবুন্টু'র মতো কোন ওপেনসোর্স প্লাটফর্ম কি আছে?

মোবাইল ফোনের জন্য কি কি ব্রাউজার আছে? এই পোস্টে তার একটা লিস্ট থাকতে পারে।

আপনাকে ধন্যবাদ। হ্যান্ডহেল্ড ডিভাইসে বাংলাকে সহজলভ্য করার জন্য উবুন্টু'র মতো কোন
ওপেনসোর্স প্লাটফর্ম আছে বলে আমার জানা নেই। এ বিষয়ে আমার ভাল জ্ঞান না থাকায় বিশেষজ্ঞদের মতামত কামনা করছি।

মোবাইল ফোনের জন্য সাধারণত একটা বিল্ট-ইন ব্রাউজার থাকে। এছাড়া Opera Mini, Opera Mobile, Skyfire, UC Browser ইত্যাদি ব্যবহার করা যায়।

বোল্ট নামের একটা ব্রাউজার আছে বোধহয়। এখানে দেখতে পারেন।

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.2 (5টি রেটিং)