খলিফাতুল মোসলেমিন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব

প্রিয় পাঠক, আপনারা হয়তো জানেন কিছুদিন আগে একটা বই প্রকাশিত হয়েছে যার নাম-

"সত্য সমাগত মিথ্যা হোক বিলুপ্ত, পবিত্র কোরআন-হাদিসের আলোকে খলিফাতুল মোসলেমিন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব"।
-লেখক হায়দার আলী চৌধুরী।

কত বিভ্রান্তিকর লেখা এতে আছে তা না পড়লে বিশ্বাস করাই কঠিন হওয়ার কথা। আমার মনে হয় অনেকেই এই বইটা পড়েছেন, আর যদি কেউ না পড়ে থাকেন তাহলে শুধু ভূমিকাটাই একটু পড়ে দেখুন এতে কি আছে!

আপনারা যদি আগ্রহ প্রকাশ করেন তাহলে বইটির কিছু কিছু অংশ আপনাদের সাথে শেয়ার করার ইচ্ছা রইলো।

বইটির ভূমিকা হুবহু তুলে ধরা হল-

ভূমিকা
এ বইয়ের মূল বিষয়বস্তু স্বপ্ন যোগে লেখক আদিষ্ট হয়েছেন। তাই বইটির কোন অংশ কারো মনকষ্টের কারণ হলেও তার জন্য লেখকের পক্ষে ক্ষমা চাওয়ার কোন সুযোগ নাই। শতকরা ৮৫%মুসলিম অধ্যুষিত বাংলাদেশ কিভাবে সংখ্যালঘুদের মন আকৃষ্ট করতে পারবে এবং পৃথিবীর বুকে আদর্শ রাষ্ট্র হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হবে তা হযরত রাসূলুল্লাহ (সাঃ) তাঁর মক্কা কিজয়ের ইতিহাস আমাদের জন্য অনুকরণীয় হিসেবে রেখে গেছেন। তা থেকে শিক্ষা গ্রহণ করা সকলেরই ঈমানী দায়িত্ব। ধর্মের নামে কোন ঊন্মাদনা এবং সীমা লঙ্ঘন ইসলাম অনুমোদন করে না। ধর্মীয় ফেরকা সৃষ্টি করতে কোন দলবাজীরও ইসলামে অনুমোদন নাই। হযরত রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন,
আখেরী জামানায় তাঁর উম্মতদের মধ্যে ৭৩দলের ৭৩ফেরকা হবে। তৎমধ্যে কেবল একটি দল জান্নাতে যাবে।

দেশের ও জনগনের কল্যাণের স্বার্থে সম্মানিত পাঠক পাঠিকাদের প্রতি পরমতসহিঞ্চুতা, ভিন্ন মতের প্রতি সহনশীলতার অনুরোধ করছি। নিজের মতবিরুদ্ধ কোন বক্তব্য পড়া বা শুনামাত্র চটে যাওয়া গোঁড়ামীর লক্ষণ। এটা কখনও ঐতিহাসিক বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিভঙ্গি হতে পারে না। গোঁড়ামী সর্বেক্ষেত্রে বিকাশ ও অগ্রগতির প্রতিবন্ধক। বিরুদ্ধমত গ্রহণ বা অর্জনের আগে গুরুত্ব সহকারে তা বিশ্লেষণ ও অনুধাবনে আমাদের অভ্যস্ত হতে হবে।

অলৌকিক ক্ষমতা

সিয়াম সাধনার মাস রমজানে অযুর সাথে এ বইটি রচিত হয়েছে। যে কোন পাঠক নিয়মিত এ বইটির কিছু কিছু অংশ পাঠ করলে তার যে কোন মুশকিল আসান হবে, ইনশায়াল্লাহ। এটা পরীক্ষিত।

মনে রাখতে হবে, বইটি একজন মহাপুরুষের জীবনী। নিয়মিত পাঠকারীর বিপদ-আপদ, বালা-মসিবত, আসমানী বালা-জমিনী বালা, যাদু-বান-টোনা, নজর-আছর, শত্রুর শত্রুতামী, দুশমনের দুশমনী, হিংসুকের হিংসা, প্রতারকের প্রতারণা, রাহুর-দশা-ফাঁড়া, শনির দশা-ফাঁড়া, অভাব অনটন, দঃখ-দুর্দশা, বাত-ব্যাধি, ব্যথা-বেদনা, রোগ-শোক দূর হবে, ইনশায়াল্লাহ। পরিবারের সুখ শান্তি ও আর্থিক স্বচ্ছলতা ফিরে আসবে। এটি পরীক্ষিত।
হায়দার আলী চৌধুরী
লেখক, গবেষক ও সংস্কারক

প্রিয় পাঠক আমি কোন মন্তব্য না করে আপনাদের উপরই সেই দায়িত্ব ছেড়ে দিলাম।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 1 (টি রেটিং)

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 1 (টি রেটিং)