এক সাবেক মুসলিম নারীর প্রতিক্রিয়া : কেন ব্রিটিশ নারীরা মুসলমান হচ্ছেন ?

সালাম

এক সাবেক মুসলিম নারীর প্রতিক্রিয়া : কেন এত আধুনিকা পেশাজীবী ব্রিটিশ নারীরা মুসলমান হচ্ছেন ? - ইভ আহমেদ ব্রিটনের ডেইলী মেইল কাগজের মহিলা সাংবাদিক যার বাবা পাকিস্তানী মুসলিম ও মা ব্রিটিশ অমুসলিম । ছোট থাকতে তিনি মুসলমান হিসাবে বড় হোন ।

ইসলামের বিধি - নিষেধকে তার একদমই ভাল লাগতো না । কোন ছেলেবন্ধু থাকতে পারবে না , নাচের পার্টিতে যাওয়া যাবে না , খোলামেলা কাপড় পরা যাবে না - এসব তার একদমই পছন্দ হয় নি । তাই ১৮ বছর বয়সে তিনি ইসলাম ধর্ম ত্যাগ করেন । এরপর থেকে অধিকাংশ ব্রিটিশ নারী যেভাবে জীবন কাটায় যেমন মদ পান করা , পুরুষ সাথীদের নিয়ে পার্টি করা অর্থাৎ পশ্চিমা সভ্যতা মোতাবেক আধুনিকা নারীর জীবন যাপন তিনি করছেন । আজ তিনি হতভম্ব হয়ে দেখছেন যে ধর্মকে তিনি একদিন অস্বীকার করেছিলেন , আজ তারই দেশের স্বাধীন , শিক্ষিতা , পেশাজীবী নারীরা নিজেদের ইচ্ছায় সেই ধর্মের ছায়াতলে এসে হিজাব করছেন ।

তিনি অবাক হয়ে দেখছেন কিভাবে ব্রিটিশ নারীরা তথাকথিত আধুনিকতা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন । তিনি তাদের অনেকের সাথে কথা বলেছেন জানার জন্য কেন তারা এমন এক ধর্মকে বেছে নিয়েছেন যে ধর্ম থেকে তিনি বেরিয়ে এসেছেন । এই নও – মুসলিম বোনেরা তাকে নির্দ্বিধায় জানিয়েছেন পশ্চিমা সভ্যতা যাকে নারী স্বাধীনতা বলে তা আসলে কিছুই না , বরং তা বিকৃত যৌনতা , অশালীনতা । এই আধুনিকতা সত্যিকার অর্থে প্রচন্ড এক শূন্যতার সৃষ্টি করে মনের গভীরে ।

 যারা জীবনের সত্যিকার অর্থ খুঁজে পেতে চান , ইসলাম তাদেরকে সেই দিক – নির্দেশনা দেয় । আজ তারা জানেন জীবনের উদ্দেশ্য কী । তারা একমত যে হিজাব নারীদের বন্দী করে না বরং হিজাবের মধ্যেই আছে প্রকৃত স্বাধীনতা । এমন একজন হলেন পাকিস্তানের ক্রিকেট খেলোয়াড় ইমরান খানের সাবেক বান্ধবী ক্রিস্টিন বেইকার ( ৪৩ ) । তিনি ছিলেন বিখ্যাত মিউজিক চ্যানেল এমটিভির উপস্থাপিকা । যদিও তাদের মধ্যে সম্পর্ক স্থায়ী হয় নি , ক্রিস্টিন পাকিস্তান সফরে গিয়ে মুসলমানদের আধ্যাত্মিক জীবন আদর্শ দেখে মুগ্ধ হোন ।

তিনি পেশাগত কাজে সারা দুনিয়া সফর করে বেড়াতেন , তবুও মনের গভীরে এক শূন্যতা ছিল তার । অবশেষে ইসলামের আদর্শের মধ্যে তিনি শান্তি পান । ক্রিস্টিন বলেন , এখানে আমরা ব্রিটিশ নারীরা কাপড় পরি অন্য মানুষকে মুগ্ধ করার জন্য । ইসলামে সবকিছুর মুল লক্ষ্য হচ্ছে স্রষ্টাকে সন্ত্তষ্ট করা । সব কাজের লক্ষ্য হচ্ছে মানুষ নয় , বরং স্রষ্টা । এভাবে পশ্চিমা আদর্শ থেকে ইসলাম একদমই আলাদা । তিনি তার আধ্যাত্মিক যাত্রার উপর বই লিখেছেন , নাম হলো called From MTV To Mecca । ক্রিস্টিন বলেন , ইসলাম তার জীবনকে অনেক পবিত্র করেছে ।

 ক্যামিলা লেল্যান্ড ( ৩২ ) যোগব্যায়ামের শিক্ষিকা । তিনি ইসলামকে বেছে নিয়েছেন বুদ্ধিবৃত্তিক ও নারীবাদী ধর্ম হিসাবে । ক্যামিলা বললেন , আমি জানি ইসলাম ও নারীবাদ একসাথে বললে মানুষ খুব অবাক হবে । কিন্ত্ত এটাই সত্যি যে ইসলাম নারীদেরকে সমান অধিকার দিয়েছে । মানুষ আসলে ধর্ম ও কোন দেশের সংস্কৃতিকে এক করে দেখে । অনেক মুসলমান সমাজে নারীদের কোন স্বাধীনতা দেয়া হয় না । আবার এটাও ঠিক যে এই পশ্চিমা সমাজে বড় হওয়ার সময় আমি অনেক বেশী অন্যায়ের মুখোমুখি হয়েছি ।

 ( হিজাব পরিহিতা ক্যামিলা )

এই সমাজে নারীদের উপর এক বোঝা চাপায় যে তাদেরকে পুরুষদের মতো মদ খেতে হবে , বিয়ে না করেই শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে । ইসলাম এটা নিষেধ করে ।  ক্যামিলা যখন ইসলাম গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেন , তার পরিবার ও বন্ধুরা বিশ্বাস করতে পারছিল না কিভাবে আধুনিকা এক সাদা ব্রিটিশ নারী নিজের ইচ্ছায় মুসলমান হতে চাচ্ছে ?

 http://www.dailymail.co.uk/femail/article-1324039/Like-Lauren-Booth-ARE-modern-British-career-women-converting-Islam.html

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (2টি রেটিং)

পৃথিবীর কোথাও কোন একজন অমুসলিম ইসলামের ছায়াতলে আশ্রয় পেয়ে‍ছে; এ খবর সত্যিই বুকটা ঠান্ডা করে দেয়। বহু বহু দূর থেকে অন্তরে অন্তরে সালাম জানাই সেসব ভাই-বোনদেরকে।

-

"নির্মাণ ম্যাগাজিন" ©www.nirmanmagazine.com

সত্যিই কেউ অমুসলিম থেকে মুসলিম হলে, মনের কোথাও যেন তৃপ্ততা অনুভূত হয়। আর কষ্ট হয় আমরা মুসলমান এটা ভেবে যে, আজ মুসলমানেরা এই পথ থেকে ধীরে ধীরে সরে পরছে।

আপনাকে অসংখ্য অসংখ্য ধন্যবাদ, সুন্দর এ পোষ্টের জন্য

''সাদামেঘ''

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (2টি রেটিং)