শাড়িতে – কামিজে বাংলাদেশের লাল – সবুজের পতাকা নেই কেন ?

সালাম

 

শাড়িতে – কামিজে  বাংলাদেশের  লাল – সবুজের পতাকা  নেই কেন ?

   

বিশ্বকাপ  ক্রিকেট  নিয়ে  বাংলাদেশের  নারী – পুরুষ  সবাই  উত্তেজনায়  মেতে আছেন ।  নানাভাবে  আবেগের প্রকাশ  ঘটাচ্ছেন  তারা । এর  একটি  হলো  বাংলাদেশের  খেলোয়াড়দের   জার্সির  মত  নিজেরাও  সেই  একই  ধরণের  পোশাক  পরছেন । 

 

 ছেলেরা  পুরুষ  খেলোয়াড়দের মত  কাপড় পড়লে  তাতে দোষের  কিছু  নেই  ;   কিন্ত্ত  এখন ক্যামেরার সামনে , খবরের  কাগজে   গেন্জ্ঞি গায়ে  হাসিমুখে  তরুণীরা  ছবি তুলছেন  ,  সেটা  দেখে  মনে  হলো    তারা  ভাবছেন     দারুণ  একটা  কাজ  করা হলো । 

 

  দেশের  খেলোয়াড়দের  সমর্থন  দেয়ার  জন্য  বাংলাদেশের  মেয়েরা  কি  আর  কোন   পোশাক   খুঁজে  পেলেন না ? সেলোয়ার – কামিজ – ওড়না  বা  শাড়িতে  কি বাংলাদেশের  লাল- সবুজ  পতাকার  ডিজাইন    করা যেত  না ?     আমাদের সব   ফ্যাশন  ডিজাইনাররা    কোথায়  ?  

  

এখনো  পর্যন্ত     এমন  ডিজাইনের  কাপড় পড়া    মহিলা  দর্শকদের    টিভি পর্দায়  বা  কাগজের  ফ্যাশন পাতায়  দেখলাম না  ।  নাকি   ক্যামেরা  শুধু  বেছে বেছে      অতি  - আধুনিকাদেরকেই   দেখাচ্ছে ?   

 

 বাংলাদেশের  ফ্যাশন  জগত ও মিডিয়া   নিয়ন্ত্রণ  করছে  কারা ?   কেন  মুসলিম প্রধান  একটি  দেশে     যে  পোশাক  (  গেন্জ্ঞি – প্যান্ট )   আমাদের  ধর্মীয় – সামাজিক  জীবনে  মেয়েদের  জন্য  গ্রহণযোগ্য  নয়  ,    সেসব  পড়তে  মেয়েদের  উৎসাহ  দেয়া হচ্ছে ?     নির্লজ্জতা  ছড়িয়ে  পড়ার  জন্য  যা  যা  সহায়ক  সেসব   ধারণা  ও  কাজকে  উৎসাহ  জোগানোর  জন্য  পৃষ্ঠপোষকদের   কোন  অভাব  এদেশে  হয়  না   । 

  

যাই  হোক ,   আমাদের মনে রাখতে হবে   আল্লাহর  রাসূল  صلى الله عليه وسلم      সেই নারী – পুরুষকে  অভিশাপ দিয়েছেন  যারা   একে অন্যের মত  অর্থাৎ নারীরা পুরুষের  মত  ও পুরুষরা নারীর  মত   সাজসজ্জা ও পোশাক পরেন ।  মুসলমান   নারীদের   পোশাক  পরার  সময় সতর্ক থাকতে  হবে যেন তা  এত পাতলা  না হয়  যে  শরীর দেখা যায়  অর্থাৎ  কাপড়  পড়েও  উলংগ – এমনটি হওয়া  থেকে সাবধান । কাপড়  অবশ্যই  ঢিলা  হবে   ,  অমুসলিমদের  অনুকরণে   বা তাদের  ধর্মীয় - সংস্কৃতির প্রকাশ  ঘটাচ্ছে এমন  কাপড়  পরবেন  না ।

 

বাংলাদেশের  মুসলিম  নারীরা   দেশপ্রেমের   নামে  ধর্মীয়  বিধি- নিষেধ  নাই  বা    অগ্রাহ্য  করলেন ।  মানুষ  ক্ষ্যাত  বলবে ?  বলুক  ।   পৃথিবীর  সব মানুষের  কাছ   থেকে  সুন্দর  ও আধুনিকা  হিসাবে  প্রশংসা   পেলেও  কোন  লাভ নেই  যদি এক আল্লাহ  অখুশী  হন ।   আল্লাহ  ফ্যাশনের নামে  অতি- আধুনিকা  হওয়ার  অভিশাপ  থেকে   মুসলমান  মা – বোনদের  রক্ষা  করুন , আমীন ।

  

“  হে নবী ;  তুমি  তোমার  স্ত্রীগণকে , কন্যাগণকে  ও  বিশ্বাসী নারীদেরকে বল , তারা যেন  তাদের  চাদরের  কিছু অংশ  নিজেদের  উপর  টেনে  দেয় .... (  ৩৩ :  ৫৯ )  ।

 

বিশ্বাসী  নারীদের বল , তারা  যেন  তাদের  দৃষ্টিকে সংযত  করে  ও  তাদের  লজ্জাস্থান  রক্ষা করে  , তারা যা সাধারণত  প্রকাশ  করে  থাকে  তাছাড়া  তাদের  আভরণ  প্রদর্শন  না করে , তাদের  গ্রীবা  ও  বুক যেন  মাথার  কাপড়  দিয়ে  ঢেকে  রাখে  ....(  ২৪: ৩০-৩১)

 

 

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3 (2টি রেটিং)

দেশকে খুব ভালবাসেন বুঝি?

-

"প্রচার কর আমার পক্ষ হতে, যদি একটি কথাও (জানা) থাকে।" -আল হাদীস

সালাম

 

দেশকে  কিছু ভালবাসি তো অবশ্যই  , তারচেয়েও  বেশী ভালবাসি  আমার  মুসলমান

ভাই-বোনদের  - তারা যে দেশেরই  হোক  না কেন ।    আমার   বোনরা  দেশের প্রতি ভালবাসার  নামে  যে পোশাক  পরছে ,  তা সমর্থন করতে পারছি না ।  বোনদের অভিভাবকরাও  নির্বিকার  । সত্যিই  দু:খজনক ।

 

 

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3 (2টি রেটিং)