নজরুল – রবীন্দ্রনাথের প্রতি ভালবাসা যেন উপাসনায় পরিণত না হয়

   সালাম ,  

রবীন্দ্রনাথের    দেড়শত  বছর জন্মবার্ষিকীর  উৎসব    শুরু  হয়েছে  ভারত – বাংলাদেশে ।  কোটি  টাকা  খরচ  করে   বাংলাদেশে সারা  বছর  ধরে  জাতীয়ভাবে  এই  উৎসব  পালন  করা  হবে । 

 

এ  নিয়ে   অনেক   বিখ্যাত     কবি- শিল্পী - লেখকদের  সাক্ষাতকার  খবরের  কাগজে  পড়ছি ।   এসব  গুণীজনদের  আবেগময়     কিছু কথা  পড়ে  বেশ   অবাক  হলাম ।   কথাগুলি  এরকম :  

আমার  পুরো মন  জুড়ে  আছেন  রবীন্দ্রনাথ ;  রবীন্দ্রনাথের  প্রতি   এই ভালবাসা  বুকে  নিয়ে যেন  মরতে  পারি  ;  জীবনের সব   ক্ষেত্রেই  রবীন্দ্রনাথ  থেকে  দিক – নির্দেশনা  পাই ;  রবীন্দ্রনাথের   লেখা  না  পড়লে জীবন  অসম্পূর্ণ  থাকতো  ইত্যাদি  ।

 

এসব  পড়ে মনে হলো  কোন  মুসলমানের  সারা  মন জুড়ে যদি থাকে  রবীন্দ্রনাথ ,  তবে  সেখানে  আল্লাহ  ও  তারঁ  রাসূল  صلى الله عليه وسلم  এর   জন্য  জায়গা কোথায় ?

   আল্লাহর   চেয়েও  তাঁর  কোন   সৃষ্টিকে  বেশী  ভালবাসা ,  পুরো  মন  জুড়ে   আল্লাহর  এক  বান্দার    গান – কবিতা – দর্শনকে   স্থান দেয়া  ,   জীবনে  চলার  পথে  আল্লাহর  নির্দেশ  বা  তাঁর  রাসূল  صلى الله عليه وسلم  এর

আদর্শ  নয়  ,  বরং  কোন  মুসলিম বা অমুসলিমের  কবিতা-   গল্প –নাটক - উপন্যাসকে  পথপ্রদর্শক  হিসাবে গ্রহন করা  কতটুকু  যৌক্তিক ?   

  

রবীন্দ্রনাথ বা  নজরুল  বা  অন্য কারো  বিখ্যাত  কবি –লেখকের  সৃষ্টিকর্ম   কারো ভাল লাগতেই  পারে ,    তবে  সতর্ক  থাকতে হবে    কবি-লেখক – শিল্পীদের  ভালবাসতে  গিয়ে  আমরা  যেন তাদের  উপাসনা  শুরু  করে  না  দেই ।  

 

  প্রিয়  কবি- ব্যক্তিত্বের   কোন  দোষ  ছিল  না – নেই , তার   রচনা  মহৎ  ,  একজন  মুসলমান    জীবনের  আদর্শ  খুঁজবে  কুরআন  নয়  বরং এসব  কবি-লেখকদের    কাছ  থেকে , এমনটি যেন  না হয় ।   আমরা  যেন   আমাদের    প্রিয় – শ্রদ্ধেয়  কাউকে  নিজের  মনে   আল্লাহর  চেয়ে  বেশী  সম্মানের  আসনে  না  বসাই । 

  নিশ্চয়ই  আল্লাহ  তারঁ  সাথে  শরীক  করা  মাফ করেন  না  ( সুরা নিসা : ৪:৪৮ ) 

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4 (টি রেটিং)

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4 (টি রেটিং)