"নিজের প্রতি অভিমান’"

মাঝে মাঝে নিজের প্রতি খুবই রাগ আসে আবার মাঝে মাঝে আমার স্বামির প্রতি আবার সেই রাগ বা অভিমান কমাতে চেষ্টা করি তিনি দুরে বলে। কিন্তু যখনই নিজের বিবেকের কাঠগড়ায় নানা প্রশ্নের সম্মুক্ষিন হই তখন নিজেকে বড় অসহায় মনে হয়। মনে আমি আল্লাহর কাছে আমার নিজের ব্যপারে কি জবাব দেব? কি জবাব দেব সন্তান পালনে কতখানি দ্বীনের বিধানের আওতাধীন হয়েছি? ভাই, বোন, ও আপন সন্তানকে অপরাধ করতে কতটুকু সহযোগীতা করেছি? আর কতটুকুই বা সুযোগ দিয়েছি অপরাধ কি তা বুঝাতে? আমার বিবেকের এই প্রশ্নে আমি যেন মাঝে মাঝে বোবা হয়ে যাই। কি করবো মাঝে মাঝে কোন জবাবই যেন খুজে পাইনা।

পরিবেশঃ- বর্তমান পরিবেশে মনের মাঝে প্রশ্ন আসে কি জন্য আজকের এই অপরাধ? কি কারনে মুসলমানের সন্তান আজকে নামাজ ফেলে খেলার মাঠে? আল্লাহকে ভুলে ইন্টারনেটে? এমন কি খাওয়া, দাওয়া, ঘুম পর্যন্ত বাদ দিয়ে আজকের ছেলেরা নেট নিয়ে বেশী ব্যস্ত? মেয়েরা তো আরো বেশি সারাবেলা কেটে যায় সাজ-সজ্জা আর টিভি দেখে, মা ডাকতে থাকেন এই কাজটা করে দে, আমাকে ওষুধ দিয়ে যা দেখে, আর মেয়ে টিভি টিভি আর টিভিতেই চোখ রেখে বসে থাকে যেন ইনসানুল অহী অবতীর্ণ হচ্ছে। বুঝিনা এসবের সুযোগ কি আমরাই করে দিচ্ছি না? কে দায়ী হবে হাশরের মাঠে? আমি, আপনি কি এসব সন্তানের জন্য, এসব ভাই বোনের জন্য দায়ী হবোনা? আল্লাহ কি আমাদের কাছে জবাব দিহিতা করবেন না? দু’চোখ বন্ধ করে ভেবে দেখি আর আপনারাও ভেবে দেখুন আমাদের জবাব আছে কিনা।

আমাদের স্রষ্টা মালিক আমাদের সবাইকে দ্বীন বুঝার মত জ্ঞান দান করুন, মানার মত ধৈর্য দান করুন, আর সবার ভালবাসা পাবার মত যোগ্যতা দান করুন। সবাই সবাইকে সৎকাজে সহযোগী আর অসৎ কাজের বাঁধা দান করি এবং আমাদের মুসলমান ভাই ও বোনদেরকে আখেরাতের আযাবের থেকে হেফাজত করতে সচেষ্ট হই মহান আল্লাহ আমাদের ঈমান আক্বিদা সঠিক পথে পরিচালনা করান। আমিন।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (3টি রেটিং)

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (3টি রেটিং)