নবধর্ষণের বছর ২০১৩ !!!!

নবধর্ষণের বছর ২০১৩ !!!!



আমাকে কেউ ভুল বুঝবেন না প্লিজ? ৩১ ডিসেম্বর রাতের হইচই পার করে আমরা ২০১৩ সালকে কতোইনা ঘটা করে স্বাগত জানালাম এবং সারাবছর সবার মঙ্গল কামনা করলাম, তাইনা! 


কত রকম যে, এসএমএস পাঠিয়ে আপনজনদের শুভেচ্ছা জানালাম যেনো নতুন বছর তাদের ভালই কাটে!! 



কিন্তু নতুন বছরের শুরু থেকেই কী দেখছি আমরা?? অবুঝ শিশু, কিশোরী, যুবতীদের ওপর নবদ্যোমে চলছে ধর্ষণ ও গণধর্ষণের মহোৎসব। 



এইকি আমাদের নববর্ষের উপহার!! এমন নববর্ষের কী দরকার তবে, বলতে পারেন? 



নতুন বছরেই বা এবার এমন মহোৎসব কেনো শুরু হয়েছে, কেউ বলতে পারেন। একজন পুরুষ কেন একজন অবুঝ শিশুকে সন্তান না ভেবে শুধুই যৌনযন্ত্র ভাবছে? একজন মানুষ হয়ে একজন ক্ষুদে শিশুকে যৌনখাদ্য ছাড়া এরা কেনই বা আর কিছু ভাবতে পারেনা? 



আর মানুষের গড়া আইন দিয়ে কী হবে, রাজবাড়ীতে ধর্ষণচেষ্টা মামলায় জামিনে বের হয়ে যদি একই ধর্ষক আবার শিশুশ্রেনীর সেই বাচ্চাটিকেই পুনঃধর্ষণ করে হত্যা করে, তবে সেই আইন কেন দরকার? কেন দরকার সেই আদালতকে যে, খুনী বা ফাঁসির আসামী শুধুই নয় ধর্ষককেও অবলীলায় জামিন দিয়ে অপরাধে উস্কে দেয়?? 



আমার মতে, আল্লাহর সেই বর্বর (?) আইন এবং একজন খোমেনীর এখন খুবই দরকার, যে এমন ধর্ষক- খুনীদের জামিন না দিয়ে শরীর আধা মাটিতে পুঁতে পাথর ছুড়েই মারবে !! 



তাই আজ আবার বলছি--জয় হোক, নবধর্ষণের বছর ২০১৩!!! 



 

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3 (টি রেটিং)

বাকশালীরা ক্ষমতায় আসলেই ধর্ষণ খুন অন্য সব সময়ের তুলনায় বহুগণ বেড়ে যায়।

ধর্ষণ ঠেকানোর জন্য যা যা ঠেকানো দরকার সেসবের মধ্যে বাকশালীদের রাখতে হবে এক নম্বরে।
-

বজ্রকণ্ঠ থেকে বজ্রপাত হয় না, চিৎকার-চেঁচামেচি হয়; অধিকাংশ সময় যা হয় উপেক্ষিত।

শ্লোগান তোলেন:
বাকশাল হটাও!
পরিবার বাঁচাও!

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3 (টি রেটিং)