আল কুরআন সম্পর্কে ড: মরিস বুকাইলী - ১

..... ইসলামের শুরু থেকেই মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর বিরুদ্বে এ অভিযোগ উত্থাপন করে আসা হচ্ছে যে, তিনি বাইবেলের বর্ণনা হুবহু নকল করে কুরআন রচনা করেছিলেন। কিন্তু কুরআনের বাণী ও বাইবেলের বক্তব্যের মধ্যে ইতিপুর্বে বর্ণিত ব্যবধানই প্রমাণ করে যে এ অভিযোগ সম্পুর্ন অমুলক। বিশেষত বিশ্ব সৃস্টির ব্যাপারে বাইবেল ও কুরআনের বাণীর এ আলোচনার দ্বারা এটাই প্রমাণিত হয় যে, মুহাম্মাদ সা: এর বিরুদ্বে এ অভিযোগ একেবারেই ভিত্তিহীন আর যদি এ অভিযোগ সত্য বলে ধরে নেয়াও হয় তাহলে যে প্রশ্নটির উত্তর না দিয়ে এক পা ও অগ্রসর হবার জো নেই তাহলো চৌদ্দশত বছর আগে আবির্ভুত হয়ে কি করে একজন মানুষের পক্ষে বাইবেলের বাণীর ভুল ক্রটি এমন যথাযথভাবে সংশোধন করা সম্ভব? কিভাবে তার পক্ষে সম্পুর্ণ নিজের জ্ঞানবুদ্ধি মোতাবেক বাইবেল থেকে বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিতে ত্রুটিপুর্ণ বাণীসমুহ বাদ দিয়ে এমনসব বাণী ও বক্তব্য রচনা করে কুরআনে সন্নিবেশিত করা সম্ভব, যা এতদিন এতকাল পরে কেবলমাত্র আধুনিক বিজ্ঞানের পরীক্ষা নিরীক্ষা ও গবেষণার দ্বারা সত্য বলে প্রমাণ হতে পারছে। ...... সবচেয়ে বড় কথা এসব বিষয়ের আলোচনায় বাইবেলের ভুলের পরিমাণ যেখানে পর্বতপ্রমাণ সেখানে কুরআনের কোনো আয়াতের একটা মাত্র ভুলও আমি খুজে পাইনি। বিস্ময়ে বিমুঢ় হয়ে পদে পদেই আমাকে থেমে যেতে হয়েছে এবং প্রতিটি পর্যায়ে নিজেকেই আমি প্রশ্ন না করে পারিনি যে সত্যি সত্যিই কোনো মানুষ যদি এ গ্রস্থ রচনা করে থাকেন, তাহলে সপ্তম শতাব্দীতে বসে কিভাবে তিনি জ্ঞান বিজ্ঞানের এতসব বক্তব্য এত সঠিকভাবে রচনা করতে পারলেন? - ড: মরিস বুকাইলী, বাইবেল কুরআন ও বিজ্ঞান, পৃষ্ঠা 162-165 (অনুবাদ: আখতারুল আলম)

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3 (2টি রেটিং)

আতাউর রহমান ভাই, আপনার পোষ্টগুলো দৈর্ঘ্যে এক নিঃশ্বাসে পড়ার মত, মৌলিক এবং প্রতিটি লেখাতেই নতুন কিছু পাওয়ার মত। ব্লগিংয়ে যা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বিসর্গ ব্লগারদের জন্য অনেক ‍খোরাক রয়েছে আপনার লেখায়। জাযাকাল্লাহ্ খায়ের।

-

"নির্মাণ ম্যাগাজিন" ©www.nirmanmagazine.com

সালাম

অমুসলিম হয়েও  যিনি    কুরআনের  উপর  এত সুন্দর বই লিখেছেন ,  আল্লাহ  তাকে  হেদায়েত করে   যেন  ইসলামে  নিয়ে  আসেন , আমীন ।

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3 (2টি রেটিং)