আপু ঈদের মার্কেটিং করেছো ?





একটা সময় ছিল যখন ঈদ মানের বুঝতাম নিজেকে নতুন ভাবে সাজানো।নতুন শার্ট, প্যান্ট, স্যান্ডেল, সানগ্লাস, হাত ঘড়ি ইত্যাদি ইত্যাদি।নিজে যত বেশি কিনতে পারতাম তত বেশি খুশি হতাম। 



যখন নিজেকে একটু দায়িত্বশীল মনে হতে লাগলো তখন নিজের জন্য কেনাকাটা কমিয়ে দিলাম।আমার ছোট দুটি বোন আছে সালমা, শারমিন।ওদের আমি অত্যন্ত ভালোবাসি। ওরা আমার জান প্রান। ওদের মুখে ভাইয়া ডাক শুনার সাথে সাথে আমার অন্তরটা ঠান্ডা হয়ে যায়।বোন দুটিও আমাকে খুব ভালোবাসে। ছোট বোন হলেও কখনোই আমি ওদের শাসন করতে পারিনি।ওরা সর্বদা আমার আদর সোহাগ ও ভালোবাসাই পেয়েছে।ওদের সাথে আমি প্রচুর দুষ্টামী করি।নতুন কোথাও বেড়াতে গেলে অনেকে বিশ্বাসই করতে পারে না আমরা আপন ভাই বোন। 



যখন কোন মেয়ের গায়ে সুন্দর পোশাক দেখতাম তা আমি আমার ছোট বোন দুটিকে কিনে দেয়ার আপ্রান চেষ্ট করতাম সম্ভব হলে কিনে দিতাম।ঈদ এলে বোনদের মার্কেটে নিয়ে যেতাম।বড় ভাইয়া, বাবা থাকতেও ওরা আমার সাথে মার্কেটিং করতেই পছন্দ করতো।এমনকি ওরা কিছু পছন্দও করবে না।আমাকে পছন্দ করতে বলবে আমি যা পছন্দ করবো তাই কিনবে।আমার পছন্দ নাকি ওদের খুব ভালো লাগে। 



আবারো ঈদ এসেছে।নতুন জামা কাপড়ে ভরে উঠেছে মার্কেট।সবাই ইচ্ছে মত কিনছে।ইচ্ছে করছে বোনদুটিকে নিয়ে মার্কেটে যেতে। এই দোকান থেকে ঐ দোকানে ঘুরতে।প্রিয় বোন দুটিকে পছন্দের জিনিস কিনে দিতে।আমার নয়নমনি আপুরাও মনে হয় ভাইয়া কে খুব মিস করছে। 



যদিও আমার প্রিয় বোনদুটি আমার এই লেখা পড়বে না তুবও বলছি আপু যা যা প্রয়োজন কিনে নিও।প্রবাসী ভাইয়া কাছে নেই তাতে কি হয়েছে ? ভাইয়ারা তো বাহিরে বাহিরেই থাকে।দেশে এসে তোমাদের নিয়ে মার্কেটে যাবো তখন ভাইয়া পছন্দ মত কিনে দেবে।এখন তোমরা নিজেদের পছন্দমত কিনে নিও। 



ঈদের পূর্বে এই মুহুর্তে তোমাদের ভাইয়া তোমাদের খুব মিস করছে। তারও ইচ্ছে করছে তোমাদের নিয়ে মার্কেটে যেতে, এক সাথে ঈদ করতে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে কিন্তু প্রবাসী ভাইয়ার সব ইচ্ছা তো আর পূরন হবে না।তবে শুনে রেখো যদিও তোমরা এখন বড় হয়েছো বিয়ে হয়েছে বাচ্ছা হয়েছে, ভাইয়াও অনেক দুরে রয়েছে কিন্তু ভালোবাসায় কোন ঘাটতি হয়নি।এখনো তোমাদের ভালোবাসি আগের মতই। ভালো থেকো আপুমণি আমার।সুন্দর ভাবে ঈদ করো আর ভাইয়ার জন্য দোয়া করিও।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (2টি রেটিং)

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (2টি রেটিং)