সম্প্রতি অভিনব কায়দায় প্রতারিত হচ্ছে আমাদের সমাজের নারীরা।

বর্তমানে আমাদের সমাজের নৈতিক চরিত্রের বড় অধপতন লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এই নৈতিক অবক্ষয় এমন এক পর্যায়ে গিয়ে পৌঁছেছে যা এখন আর বলার অপেক্ষা রাখেনা। সম্প্রতি আমাদের সমাজে মানুষকে ফাঁদে ফেলে তার সর্বস্ব কেড়ে নেয়ার জন্য তৈরি হচ্ছে নিত্য নতুন ফাঁদ। আর এই ফাঁদে বেশীর ভাগই পড়ে যাচ্ছে সহজ সরল লোকজন। এবং তাদের মধ্যে বেশীর ভাগই নারী। বিশেষ করে নারীরা জন্মসূত্রে একটু কোমল হৃদয়ের অধিকারী। আর এই সুযোগে একটি কুচক্রী মহল তাদের সর্বস্ব ক্ষতি সাধনে উঠে পড়ে লেগেছে। সম্প্রতি কুচক্রী মহলটি নতুন এক পদ্ধতি অবলম্বন করছে। তারা এক্ষেত্রে ব্যাবহার করছে শিশুদের। ছিন্নমূল শিশুদের একজনকে ভাড়া করে এনে রাস্তায় একটি ঠিকানা হাতে ধরিয়ে দেয়। এবং তাকে শিখিয়ে দেয়া হয় তুমি এখানে দাঁড়িয়ে কাঁদেতে কাঁদতে থাকবে যদি কোন মানুষ একা একা চলতে শুরু করে, তখন তাকে বলবে তোমাকে যেন এই ঠিকানায় পৌঁছে দেয়। আর কোন সহজ সরল মানুষ তাকে সে ঠিকানা অনুযায়ী নিয়ে গেলে সে সর্বস্ব হারিয়ে ফিরে আসে। আর এই অভিনব প্রতারণার শিকার হচ্ছে আমাদের সমাজের কোমলমতি মা-বোনরা। আসুন আমরা সবাই সমাজের এ সমস্ত কুচক্রী মহল থেকে নিজেরা বাঁচি এবং অন্যকে বাঁচাতে সাহায্য করি। 

সম্প্রতি দূর পাল্লার যাত্রীরা একধরণের অভিনব প্রতারণার শিকার হচ্ছে। আর তা হল একদল ডাকাত রাস্তার পাশে ওঁত পেতে থেকে রাস্তার মধ্যে একধরণের ছোট ছোট রড টুকরো করে রাস্তার উপরে ফেলে রাখে, যখন কোন দূরপাল্লার বাস অথবা ক্যাব ঐ রাস্তা পাড়ি দেয় তখন রডের একপাশ এসে গাড়ীর নিচে আঘাত করে এতে করে প্রচণ্ড একটা শব্দ হয়। আর এই শব্দ শুনে ড্রাইভার সাধারণত তার গাড়ী একপাশে রেখে পরীক্ষা করার জন্য নিচে নেমে আসে। আর এই সুযোগে ওঁত পেতে থাকা ডাকাত দল আড়াল থেকে বেরিয়ে এসে ড্রাইভারকে জিম্মি করে ডাকাতি করে। এক্ষেত্রে আমরা যেন আমাদের ড্রাইভারদেরকে সতর্ক করি এবং তাদেরকে নিরাপদে গিয়ে গাড়ী পরীক্ষা করার পরামর্শ দেই। 

কিছুদিন পূর্বে একটি টেলিভিশন চ্যানেলে চোখ রাখতেই এক অভিনব উপায়ে চাঁদাবাজির কথা শুনে আঁতকে উঠি। সেই কথা মনে পড়লে আমার এখনো পুরো শরীর শিউরে উঠে। সেটা হল ট্রেনের ছাদে বসে ভ্রমণ করা যাত্রীদের সাথে। একদল চাঁদাবাজ খুব অত্যাধুনিক কিছু চুড়ি নিয়ে ট্রেনের ছাদে সাধারন যাত্রী সেজে বসে থাকে। তারপর ধীরে ধীরে আলাপ আলোচনার মাধ্যমে পরিচয়, এবং খোঁজ খবর নিতে থাকে। একপর্যায়ে এসে সাথে থাকা চুরিটা বের করে তার কাছ থেকে সব কেড়ে নিয়ে যায়। আর কেউ যদি টাকা, পয়সা, মোবাইল ইত্যাদি দিতে অস্বীকার করে তাহলে তাকে ট্রেনের উপরেই মেরে ফেলা হয় এবং পরবর্তীতে নিরজন এক স্থানে ফেলে দেয়া হয়। তার পরিবার পর্যন্ত জানতে পারেনা তার এই নিকটজনের কোন খোঁজ। এইভাবে প্রতিদিন আমাদের সমাজে অভিনব কায়দায় প্রতারণা শুরু হয়েছে। তাই আসুন আমরা সবাই সচেতন হই এবং অন্যকে এসব ব্যাপারে সচেতন করে তুলি। 

উপরের তথ্যগুলো সম্পূর্ণ সত্য এবং বাস্তবতার নিরিখে। 
আসুন নিজেরা সচেতন হই অন্যকে সচেতন করে তুলি।

ট্যাগ/কি-ওয়ার্ড : আসুন নিজেরা সচেতন হই অন্যকে সচেতন করে তুলি।
আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (4টি রেটিং)

সালাম

আপনাকে অসংখ্য অসংখ্য ধন্যবাদ

সবাইকে সতর্ক করার জন্য

আল্লাহ আপনাকে যাযায়ে খায়ের দান করুন।

-

▬▬▬▬▬▬▬▬ஜ۩۞۩ஜ▬▬▬▬▬▬▬▬
                         স্বপ্নের বাঁধন                      
▬▬▬▬▬▬▬▬ஜ۩۞۩ஜ▬▬▬▬▬▬▬▬

আপনাকেও অনেক ধন্যবাদ। আমরা সবাই নিজ উদ্যোগে সবাইকে সচেতন করার চেষ্টা করি, তাহলেই ইনশাআল্লাহ্‌ আমরা একদিন সফল হব।

-

 


 

সালাম

 

ধন্যবাদ ।

 

কিছু  প্রতারকের জন্য   কোন মানুষ সত্যিকারের  বিপদে পড়লেও  অনেক সময় সাহায্য পায় না।

 

আল্লাহ আমাদের হেদায়েত করুন ।

 

কোন  শিশুকে  রাস্তায়  কাঁদতে  দেখলে  আমরা  যেন  স্থানীয়  থানায় নিয়ে যাই ; তা না হলে  সে যদি সত্যিই   হারিয়ে গিয়ে  থাকে তাহলে  পরে  তার বিপদ বাড়বে ।

ধন্যবাদ আপনাকে অনেক সুন্দর একটি কথা বলেছেন, তবে সে ক্ষেত্রে অবশ্যই আমাদের লক্ষ্য রাখতে হবে আসলেই কি বাচ্চাটি হারিয়ে গেছে কিনা? কারণ সাধারণত হারিয়ে যদি যায় তাহলে তার হাতে ঠিকানা না থাকারই কথা।

-

 


 

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (4টি রেটিং)