দূর্যোগপূণ আবহাওয়া চট্টগ্রাম বন্দর বহির্নোঙ্গর ও সন্দ্বীপ চ্যানেলে ডুবে গেছে ৩ টি লাইটারেজ জাহাজ

দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে চট্টগ্রাম বন্দর বর্হিনোঙ্গর এবং সন্দ্বীপ চ্যানেলে তিনটি লাইটারেজ জাহাজ দূর্ঘটনার কবলে পড়েছে। এরমধ্যে একটিকে উদ্ধার করতে সক্ষম হলেও ডুবে গেছে ২টি জাহাজ। একটি জাহাজের ১৩ জন ক্রু’র মধ্যে ১০ জন উদ্ধার হলেও শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত ৩ জনের খোঁজ মেলেনি। বৃহস্পতিবার রাতে গভীর রাতে এসব জাহাজ ডুবি’র ঘটনা ঘটেছে।

বন্দর কর্তৃপক্ষ এবং সংশ্লিষ্ট সুত্র জানায় বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ১১টার দিকে বন্দরের বহির্নোঙ্গরের আলফা অ্যাংকরেজ পয়েন্টে দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে এমভি চট্টগ্রাম নামে সিমেন্ট ক্লিংকার বোঝাই একটি লাইটারেজ জাহাজ ডুবে যায়। জাহাজটিতে ১৩ জন ক্রু ছিল। একজন রাতে অন্য একটি জাহাজে উঠে উপকূলে উঠতে সক্ষম হন। বাকী ১২ জনের মধ্যে শুক্রবার সকালে সীতাকুন্ডে ভাটিয়ারী এলাকা দিয়ে ৬ জনসহ বিভিন্ন এলাকায় মোট ৯ জনকে উদ্ধার করা হয়।

তারা হলো জাহাজের মাস্টার সুফিয়ান ক্রুরা হলেন-মোস্তফা, রহমত উল্লাহ, টিপু, সালাউদ্দিন, সোহেল, নুরুদ্দিন, আব্দুর রশিদ, আব্দুর রহিম ও জাকির হোসেন। নিখোঁজ ৩ জন হলেন, ড্রাইভার কুদ্দুস, গ্লিসার জামাল উদ্দিন ও লস্কর রফিক।

ডুবে যাওয়া জাহাজটির মালিকানাধনি প্রতিষ্ঠান চিটাগাং ট্রেড এজেন্সি’র ব্যবস্থাপক মো.খলিল জানান, শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে ভাটিয়ারী এলাকা থেকে জাহাজের ৬জন ক্রুকে উদ্ধার করা হয়। সাগরে লাইফ জ্যাকেট পরে ভাসা অবস্থায় উদ্ধার করা হয় দুইজনকে। এছাড়া কোস্টগাড উদ্ধার করেছে একজনকে। এদিকে জাহাজটি উদ্ধারের জন্য নৌ-বাহিনী কোস্টগার্ড এবং বন্দর কর্তৃপক্ষ ঘটনাস্থলে গেলেও জাহাজটির ঠিক কোন জায়গায় ডুবে গেছে তা নির্নয় করা যাচ্ছে না।

এব্যাপারে চট্টগ্রাম বন্দরের ডেপুটি কনজারভেটর ক্যাপ্টেন নাজমুল আলম বলেন, সাগরে জোয়ার থাকায় এবং দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে বন্দরের সার্ভে টিম কাজ করতে পারছে না। ফলে জাহাজটি আলফা এ্যাংকরেজের ঠিক কোন স্থানে ডুবেছে তা নির্ধারণ করা যাচ্ছে না। তিনি বলেন, ভাটার সময় সার্ভে টিম আবারো কাজ শুরু করবে বলে জানান তিনি।

এদিকে গভীর রাতে বর্হিনোঙ্গরের বি-এ্যাঙ্কারেজ এলাকায় জিপসার সার বোঝাই “এম ভি  তানিয়া” নামে অপর একটি লাইটার জাহাজ বিকল হয়ে ডুবে যাওয়ার সময় বন্দর কর্তৃপক্ষের নিজস্ব টাগবোট কান্ডারী-১ এর সাহায্যে এটিকে নিরাপদে উদ্ধার করা হয়েছে।

জাহাজ চলাচল পর্যবেক্ষণকারী সংস্থা ডব্লিউটিও (ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট সেল)এর নির্বাহী পরিচালক মাহবুবুর রশিদ খান জানান, ডুবে যাওয়ার আশংকায় অপর লাইটারেজ এমভি তানিয়াকে কান্ডারীর (উদ্ধারকারী জলযান) সাহায্যে উদ্ধার করা হয়েছে। তিনি জানান, এটি বর্হিনোঙ্গরে তেল শেষ হয়ে গেলে বিকল হয়ে ডুবতে বসেছিল।

এছাড়া বৃহস্পতিবার ভোর রাতে বঙ্গোপসাগরের সন্দ্বিপ চ্যানেলের কাছে পণ্য পরিবহণ কালে “আল-হেলাল” নামে অপর একটি লাইটারেজ জাহাজ সাগরে ডুবে গেছে। কোস্টগার্ড নৌবাহিনীর উদ্ধার দল গিয়েও এটিকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি বলে জানান নৌ-বাহিনীর স্টাফ অফিসার হাবিবুর রহমান।

বন্দর সচিব সৈয়দ ফরহাদ উদ্দিন জানান, জাহাজ ডুবির কারণে বন্দর চ্যানেল এলাকায় জাহাজ চলাচলে কোন সমস্যা হচ্ছেনা।

স্টেটনিউজবিডি.কম

http://www.statenewsbd.com/?p=14238

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4 (টি রেটিং)

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4 (টি রেটিং)