কী বিচিত্র আইনের শাসনঃ

সুদূর অস্ট্রেলিয়ায় বসে একজন শিক্ষক প্রধানমন্ত্রি-শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে
ফেসবুকে কটূক্তি করলে বিদ্যুৎগতিতে তার বিচার হয়,শাহবাগের বিরুদ্ধে ফেসবুকে
হুমকি প্রদানের অপরাধে ইসলামি মূল্যবোধের লেখক- ফারাবিকে গ্রেফতার করে
পর্যায়ক্রমে রিমান্ডে নেয়া হয়; কিন্তু মহান আল্লাহ্‌ ও রাসুল (সঃ) কে নিয়ে
অশ্লীল ব্লগের জন্য কোন বিচার হয়না। এর প্রতিবাদ করতে গিয়ে শত নির্দোষ আলেম
গ্রেফতার হন এবং তাঁরা জেলের ভেতর কুখ্যাত অপরাধীদের সঙ্গে বিনাবিচারে কারাভোগ করছেন।
প্রতিবাদ করতে গিয়ে একদিকে জীবন হারাচ্ছে মানুষ, অন্যদিকে প্রাণে বেঁচে গেলেও রাজাকার উপাধী দিয়ে জেলের ভাত খাওয়ানো হচ্ছে।
বর্তমান সরকার- কোরআন সুন্নাহ বিরোধী কোন আইন করা হবেনা মর্মে নির্বাচনী
ওয়াদা করে ২০০৯ সালে ক্ষমতায় আসে। আওয়ামী লীগ ২০০৭ সালে- ধর্ম অবমাননা আইন
করবে বলে ইসলামি দলগুলোর সঙ্গে একটি চুক্তি পর্যন্ত করে। অথচ এই আওয়ামি লীগ
অশুভ রাজনীতি ও নাস্তিকদের যাঁতাকলে পড়ে মহান আল্লাহ্‌ ও তাঁর রাসুলের
অবমাননার বিচারের দাবিকে তুচ্ছ রাজনীতির হিসাব-নিকাশের মধ্যে নিয়ে এসেছে।
মানুষের ধর্মীয় অধিকার তার সাংবিধানিক অধিকার। সে অধিকার নিশ্চিত করতে হবে
সরকারকেই। সরকারকে মনে রাখতে হবে, এটা শুধু পনেরো বা ষোল কোটি মানুষের
অধিকার নয়; বরং বিশ্বের একশ বিশ কোটি মুসলমানের অধিকার। তাই সরকারকে বলি,
ভাত-কাপড়-নিরাপত্তা কিংবা পানি-বিদ্যুৎ-গ্যাস না দিতে পারেন, অন্ততপক্ষে
মহান আল্লাহ্‌ ও প্রিয় নবীর সম্মান রক্ষার্থে আইন করে অপরাধীদের বিচার তো
করতে পারেন।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে বলি, আপনি কেন সারা দুনিয়ার তাবৎ
প্রধানমন্ত্রীর সম্মান মিলেও মহানবী ভিন্ন কথা তাঁর একজন নিন্মস্তরের
সাহাবীর পায়রে নখেরও সমান নয়। এমতাবস্তায় আপনি মহানবীর বিরুদ্ধে
কটূক্তিকারীদের বিচার না করে আপনার বিরুদ্ধে কটূক্তিকারীর বিচার করেন। আপনি
কী মহানবীর চাইতেও বেশী সম্মানী ?

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

বিচার প্রতি তোমার বিচার হবে রোজ হাশরে ।

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)