সতী নারীরা এমনই হয়



সতীসাধ্বী নারীর সম্ভ্রম খোয়ানো যায় না। নষ্ট করা যায় না তার ইজ্জত সম্মান। সতীত্ব ও সম্ভ্রম রক্ষার প্রশ্নে প্রয়োজনে সে অকাতরে জীবনটা পর্যন্ত বিলিয়ে দেয়। বিল্যে দেয় সব কিছু। এ চির সত্যটিই প্রমাণ করার জন্য ইমাম খাত্তাবী ( রহঃ ) তাঁর বিখ্যাত গ্রন্থ 'আদালাতুস সামা'য় একটি চমৎকার ঘটনা উল্লেখ করেছেন।
তিনি লিখেছেন আজ থেকে চল্লিশ বছর আগে বাগদাদ শহরে এক কসাই ছিল। ফজরের অনেক আগেই সে দোকানে চলে যেত। সেখানে ছাগল জবাই করত এবং রাত থাকতেই বাড়ি ফিরে আসত। অতঃপর কিছু বেলা উঠলে সবকিছু ঠিকঠাক করে গোশত বিক্রির জন্য দোকান খুলে বসত।
একদিন সে ছাগল জবাই করে বাড়ি ফিরছিল। তখনো রাতের আঁধার কাটেনি। আজ অনেক রক্ত লেগেছে তার জামা-কাপড়ে। পথিমধ্যে সে গলির মধ্যে একটা কাতর আর্তনাদ শুনতে পায়। আর্তনাদের আওয়াজ লক্ষ্য করে সে দ্রুত সামনে অগ্রসর হয়। কিন্তু কিছুদূর যাওয়ার পরই হঠাৎ একটা মানব দেহের সাথে ধাক্কা লেগে পড়ে যায়। কসাই বেচারা সোজা হয়ে দাঁড়ালো। সে দেখল একটা লোক মটিতে গড়াগড়ি খাচ্ছে। ছুরির আঘাতে মারাত্মকভাবে আহত। জখম গুরুতর। ওকে বাঁচাতে হলে দ্রুত চিকিৎসার প্রয়োজন। তখনও দরদর করে রক্ত বেরুচ্ছে। ছুরুটা এখনও গেঁথে আছে পিঠের উপরিভাগে। এক ঝটকা টানে ছুরিটা বের করে ফেললো কসাই। তারপর চিকিৎসার উদ্দেশ্যে লোকটিকে কাঁধে তুলে খুব দ্রুত চলতে শুরু করল। কিন্নতু লোকটির হায়াত শেষ হয়ে গিয়েছিল। তাই কসাইয়ের কাঁধেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করল। অল্প সময়ের মধ্যে সেখানে বেশ কিছু লোক জড়ো হল। কসাইয়ের হাতে ছুরি। মৃত লোকটার গায়ে টাটকা রক্ত। এসব দেখে লোকদের স্থির বিশ্বাস জন্মালো, হত্যাকারী এই কসাই-ই।
কসাই মনে মনে চিন্তা করলো, এখন আমি হত্যাকান্ডের বিষয়টি যতই অস্বীকার করি না কেন, কেউ মানবে না। আমার কথা বিশ্বাসই করবে না। বিশ্বাস করার কথাও না। তাই সে চুপ করে রইল। হ্যাঁ, না কিছুই বলল না। ফলে তাকেই হত্যাকারী হিসেবে অভিযুক্ত হতে হল। শেষপর্যন্ত বিচারে তার মৃত্যুদণ্ডের ফয়সালা হল এবং সে বুঝতে পারল, মৃত্ত্যু তার অবধারিত, এখনই তাকে হত্যা করা হবে । তখন সে সমবেত জনতার উদ্দেশ্যে বলে উঠল,
হে উপস্থিত জনতা! আমি আসলে এই লোকটিকে হত্যা করিনি। তবে আজ থেকে বিশ বছর আগে আমি দু"টি হত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে ছিলাম। আজ যদি আমার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়, তাহলে তোমরা ধরে নিও আমার এই মৃত্যুদণ্ড মোটেই এই হত্যাকাণ্ডের পরিবর্তে নয়, বরং পূর্বের হত্যাকাণ্ডের পরিবর্তে। লোকজন তার সেই পূর্বের হত্যাকাণ্ডের বিবরণ শুনতে চাইল। সে বলতে লাগল, আজ থেকে বিশ বছর আগে আমি ছিলাম এক টগবগে যুবক, নৌকা চালাতাম। লোকজনকে নদী পারাপার করতাম। একদিন এক ধনবতী যুবতী তার মাকে নিয়ে আমার নৌকায় পার হল। পরদিন আবার তাদেরকে পার করলাম। এভাবে প্রতিদিনই আমি তাদেরকে আমার নৌকায় পার করতাম। এ পারাপারের সুবাদে যুবতীর সাথে আমার আন্তরিকতা ও ভালবাসার সম্পর্ক গড়ে উঠল। ধীরে ধীরে আমরা একে অপরকে গভীরভাবে ভালবেসে ফেললাম। একসময় আমি তার পিতার নিকট বিবাহের প্রস্তাব নিয়ে গেলাম। কিন্তু আমার মত দরিদ্র মাঝির কাছে মেয়ে বিয়ে দিতে তিনি অস্বীকার করলেন। এরপর আমাদের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেলো। যুবতী আর এদিকে আসত না। তার মাও না। সম্ভবত যুবতীর বাবা নিষেধ করে দিয়েছিলেন। আমি অনেক চেষ্টা করেও তাকে ভুলতে পারলাম না। এভাবে কেটে গেল দুই থেকে তিন বছর। একদিন আমি নৌকা নিয়ে অপেক্ষা করছিলাম। এমন সময় এক মহিলা ছোট্ট একটি মেয়েকে নিয়ে ঘাটে উপস্থিত হল এবং আমাকে নদী পার করে দিতে অনুরোধ করল। আমি তাকে নিয়ে রওয়ানা দিলাম। মাঝ নদীতে এসে তার চেহারার দিকে পূর্ণ দৃষ্টিতে তাকালাম। চিনতে পারলাম, সে আমার পূর্বেকার সেই কাঙ্খিত যুবতীটি। আমি তখন মনে মনে ভাবলাম, যদি ওর পিতা আমাদের মাঝে বিচ্ছেদের পর্দা টেনে না দিতেন, তাহলে সে আজ আমারই স্ত্রী থাকত। যাহোক এতদিন পর তাকে আমি যারপর নাই আনন্দিত হলাম। জিজ্ঞেস করতে লাগলাম বিগত জীবনের নানা কথা। সে খুব সতর্কতার সাথে জবাব দিচ্ছিল।
একটু  পর সে জানাল, সে বিবাহিতা এবং সঙ্গের শিশুটি তারই মেয়ে। বিবাহের কথা শুনে আমার মন বড়ই অস্থির হয়ে গেল। আমি নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারলাম না। একটা অশুভ ইচ্ছা আমাকে তাড়া করল। আমি  তাড়িতও হলাম। কামনার আগুন জ্বলে উঠল আমার হৃদয় মনে। তাই এক পর্যায়ে আমি স্বীয় বাসনা নিবৃত্ত করার জন্য তার উপর চাপাচাপি শুরু করলাম। তখন সে আমাকে মিনতি করে বলল, ভাই! আল্লাহকে ভয় কর। আমার সর্বনাশ করো না। আমি তো আরেকজনের বিবাহিতা স্ত্রী। আমি মানলাম না। আমি তার দিকে হাত বাড়ালাম। তখন অসহায় নারীটি শরীরের সমস্ত শক্তি দিয়ে আমাকে প্রতিরোধের চেষ্টা করল। আর শিশুকন্যাটি শুরু করে দিল বুকফাটা আর্তনাদ। আমি তখন তখন তার শিশুকন্যাটির মুখ চেপে ধরলাম। বললাম, তুমি আমার আহবানে সাড়া না দিলে তোমার সন্তানকে আমি পানিতে ডুবিয়ে মারব। তখন সে ডুকরে কেঁদে উঠল। হাত জোড় করে মিনতি জানাতে লাগলো। কিন্তু আমি এমন অমানুষে পরিণত হলাম যে, নারীর অশ্রু ও কান্না কিছুই আমার কাছে আমার প্রবৃত্তিকে চরিতার্থ করার চেয়ে মূল্যবান মনে হল না। আমি নিষ্ঠুরভাবে শিশুকন্যাটির মাথা পানির ভিতর চেপে ধরলাম। মরার উপক্রম হতেই আবার বের করে আনলাম। বললাম, জলদি রাজী হও! নইলে একটু পরেই এর লাশ দেখবে। কিন্তু সন্তানের মায়ায় এবং সতীত্বের ভালবাসায় অশ্রু ও বিলাপের অস্ত্র সে বারবার ব্যবহার করতে লাগল, যা ছিল আমার কাছে একেবারে অর্থহীন। আমি আবার শিশুটির মাথা পানিতে চেপে ধরলাম। শিশুটি তখন হাত পা নাড়ছিল। জীবনের বেলাভূমিতে আরও অনেক দিন হাঁটার স্বপ্নে দ্রুত গা নাড়ছিল। কিন্তু ওর জানা ছিল না কেমন হিংস্রের হাতে পড়েছে। এবার আমি তার মাথাটা তুলে আনলাম না, ফলে যা হবার হয়ে গেল। চিরদিনের জন্য চলে গেল এই সুন্দর পৃথিবী ছেড়ে। আমি এবার যুবতীর মুখের দিকে তাকালাম। কিন্তু মেয়ের করুণ মৃত্যু তাকে নরম করতে পারলো না। সে তার সিদ্ধান্তে অনড় অবিচল। ওর দৃষ্টি যেন বলছিল, সন্তান গিয়েছে, প্রয়োজনে আমিও যাব, জান দিব। তবু মান দিব না। কিন্তু আমার মনুষত্ব সেদিন হারিয়ে গিয়েছিল। ভোঁতা হয়ে গিয়েছিল আমার বিবেক-বুদ্ধি। আমার মাঝে তখন কাজ করছিল পশুসত্তা। আমি নেকড়ের মত তার দিএক এগিয়ে গেলাম। চুল মুষ্টিবদ্ধ করলাম। তারপর তাকেও পানিতে চেপে ধরলাম। বললাম, ভেবে দেখো জলদি, জীবনের মায়া যদি করো তবে আবার ভাব। সে ঘৃনা ভরে না করে দিল। আবারও প্রত্যাখ্যান করলো আমার প্রস্তাব, আমিও তাকে চেপে ধরে রাখলাম। একসময় আমার হাত ক্লান্ত হয়ে যায়। সাথে সাথে ওর দেহটাও নিথর হয়ে গেলো। আমি ওকে পানিতে ফেলে দিয়ে ফিরে এলাম।
আমার এই অপরাধের কথা এক আল্লাহ ছাড়া কেউ জানল না। এই করুণ কাহিনী শুনে সবার দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে এল। কারও কারও গাল বেয়ে গড়িয়ে পড়লো দুই ফোটা তপ্ত অশ্রু। এরপর তার শিরচ্ছেদ করা হল।

( মাসিক মইনুল ইসলাম, অক্টোবর-২০১৪ )
আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 2.5 (2টি রেটিং)

অনেক সুন্দর একটি ঘটনা,
কপি করলাম.
আরো এরকম পোস্ট চাই

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ ভাইয়া।
সুন্দর ও শিক্ষনীয় ঘটনা এরকম আরো পোস্ট চাই। নিয়মিত লিখুন আর এই লেখা হোক আপনার চির মুক্তির উছিলা। আল্রাহ সহায় হোন। আমিন।

-

▬▬▬▬▬▬▬▬ஜ۩۞۩ஜ▬▬▬▬▬▬▬▬
                         স্বপ্নের বাঁধন                      
▬▬▬▬▬▬▬▬ஜ۩۞۩ஜ▬▬▬▬▬▬▬▬

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 2.5 (2টি রেটিং)