পহেলা বৈশাখ ও ইসলামী দৃষ্টিভঙ্গি পর্ব-৫

বৈশাখী উৎসবের একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ হল মঙ্গল শোভাযাত্রা। মঙ্গল শোভাযাত্রা কি ইসলামী সংস্কৃতি? এটা স্পষ্ট একটি হিন্দুয়ানী ও শিরকী সংস্কৃতি।

অনেকে মনে করেন যে, এই মঙ্গল শোভাযাত্রা আমাদের মধ্যে মঙ্গলের বার্তা বয়ে নিয়ে আসবে। মঙ্গল শোভাযাত্রায় পেঁচা, ময়ূর ও বিভিন্ন বিকৃত মুখোশ যা মূর্তিরই নামান্তর নিয়ে মিছিল করা হয়। এটা ভারতীয় সনাতন ধর্মাবলম্বী দাবীদারদের ধর্মীয় বিশ্বাসের মৌলবাদী সংস্কৃতির প্রতিফলন। তারা ধারণা করে পেঁচা ও বিভিন্ন বিকট মুখোশ গুলো সব অমঙ্গলের প্রতিচ্ছবি। বছরের প্রথম দিনে এদেরকে নিয়ে শোভাযাত্রা করলে তারা খুশি হবে এবং সারা বছর তারা এই শোভাযাত্রীদেরকে আর উৎপাত করবে না। নাউযুবিল্লাহ। এবার আপনিই চিন্তা করেন আসলে এই বিশ্বাসটাও মুসলমানদের নয়, কারণ মুসলমানদের বিশ্বাস হল আমাদের মঙ্গল করতে চাইলে একমাত্র আল্লাহ তা’আলাই করতে পারেন এবং অমঙ্গল করতে চাইলে একমাত্র আল্লাহ তা’আলাই করতে পারেন। অন্য কেউ নয়। অন্য কোন ভাবে নয়। কোন শোভাযাত্রার মাধ্যমে নয়, কোন প্রদীপ জ্বালিয়েও নয়। আল্লাহ তা’আলার এরশাদ-

“ পরবর্তী ও গুরুবর্তী সব মঙ্গলই একমাত্র আল্লাহরই হাতে”  _ সূরা নজম-২৫

এটা আল্লাহ তা’আলার একক সত্তা বা তাওহীদের একটি গুণ। এর সাথে অন্য কিছু সংযোজন করা হল শিরক। জেনে বা না জেনে আমরা শিরকই করে ফেলছি। ভা মন্দের প্রতীক তৈরী করা মানেই শিরক। আমাদের দেখতে হবে এ সঅম্পর্কে রাসূল ( সাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ) থেকে কোন হাদীস ব আমল আছে কিনা। আমাদের সকল কাজ রাসূল ( সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের ) সুন্নত তরীকায় করতে হবে। আল্লাহ তা’আলা বলেন-

“ যে কেউ রাসূলের বিরুদ্ধাচারণ করে, তার কাছে সরল পথ প্রকাশিত হওয়ার পর এবং সব মুসলমানের অনুসৃত পথের বিরুদ্ধে চলে, আমি তাকে ওই দিকেই ফেরাব, যে দিক সে অবলম্বন করেছে এবং তাকে জাহান্নামে নিক্ষেপ করব। আর তা নিকৃষ্টতর গন্তব্যস্থল”।  ( সূরা নিসা-১১৫ )

লাত-উজ্জা ( যা আরবের মুশরিকরা পূজা করত ) এগুলোও প্রাণীর অবয়বে ভাল-মন্দের প্রতীকী মূর্তি ছিল। রাসূল ( সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ) সেগুলো কিন্তু নিজ হাতে ভেঙ্গেছিলেন... নিজ হাতে...!! আপনি হয়তো ভাবছেন, সব বন্ধুরা যাবে আর আমি যাব না এটা হয় কিভাবে? মনে রাখবেন- আপনার জান্নাত জাহান্নাম আপনার কাছে, তখন কিন্তু বন্ধুদের পাবেন না! আল্লাহ তা’আলার এরশাদ-

“বন্ধুবর্গ সেদিন একে অপরের শত্রু হবে, তবে খোদাভীরুরা নয়”

- সূরা আয যুখরুফ-৬৭

এই গুনাহ কিন্তু মাফ হওয়ার নয়, এই এক গুনাহই যথেষ্ট আপনাকে জাহান্নামে নিতে।

( মুফতী যুবায়ের আহমেদ )
আপনার রেটিং: None

Rate This

আপনার রেটিং: None