মদীনার ভালোবাসা পর্ব- ২

ভাবছিলাম এই নিয়ে আর লিখবনা কিন্তু বিবেকের কাছে কেমন জানি অপূর্ণতার ছোবলের ধকল সইতে না পেরে অবশেষে ২য় পর্বের লেখা লিখতে বাধ্য হলাম। এমনিতেই আমার লিখার অভ্যাস কম কিন্তু মাশাআল্লাহ বাগ্মীতা ভালোই আছে, তাও লোক মুখে শুনা। যাক ভণিতা রেখে মূল কথায় আসি।

কেন বাকি নামাক স্থানে পরকালের ঘাঁটি বানাতে চাইলাম? কেন ঈদের দিন পরাপারে যেতে চাইলাম, আর কেনই বা হুযাইফি ভাইকে সালাত এ যানাযার দায়িত্ব দিতে চাইলাম ইত্যকার প্রশ্নের অসমাপ্ত যবনিকা রেখে পরবর্তীতে বিদাআতের রাস্তা উন্মুচোন এর সুযোগ না দিতেই এই পর্বের চয়ন।

প্রথমতঃ জান্নাতুল বাকিতে আমার রাসূল (সাঃ) এর পায়ের ধূলি, বরকতি হাতের পরশমাখা বালি আর বাকির পাশে দাঁড়িয়ে উনার মাগফিরাতের দোয়া কয়জনের নিসব এ আছে। তাছাড়া অসংখ্য নামী দামী সাহাবা, আশারায়ে মুবাশ্শারা সহ আছেন তাবেয়িন, তাবেতাবিয়িন আর স্পেশাল বোনাস হচ্ছে প্রতিদিন হাজারো তীর্থাথীর দোয়া এবং মসজীদে নববী থেকে বিশুদ্ধ-সুরললিত কোরানের ধ্বণী, যা কিনা মাগফিরাতের একটা অসীলা স্বরুপ আশাকরা যায়।

দ্বিতীয়তঃ ঈদের দিনে মসজিদে নববীতে সবচেয়ে বেশী লোকের সমাগম হয়। তাই এই দিনের জানাযায় সবচেয়ে বেশী লোকের অংশগ্রহণ আশাকরা যায়। তা ছাড়া হাদীস থেকা জানা যায় ঈদের দিন আল্লাহ তার বন্দাহ কে নিষ্পাপ করে দিন। আর এই দিনে সবার মন ভালো থাকে বলে মাগফিরাতের দোয়া করতে তারা মোটেই কার্পণ্য করবে না বলে আমর বিশ্বাস। অতএব এটাও একটা পরকালিন মুক্তির অবলম্বন হতে পারে বিধায় এই দিনটির প্রতি এত লোভ।

তৃতীয়তঃ আমি মনে করি আল্লামা হুযাইফি আল্লাহ রাব্বূল আলামীনের একজন হিদায়াত প্রাপ্ত বান্দা। কারণ তার তিলাওয়াতকৃত কোরান শুনলে মন জুড়িয়ে যায়. তার প্রতি ভালোধারণা জন্মে। তাছাড়া লোকমুখে তাঁর অসংখ্য গুনগান শুনতে পাই বিধায় আমার বিধায়ের নামাযটা তাঁর হাতেই অর্পণ করে মাগফিরাতের একটা অবলম্বন বানাতে চাই। আমি জানি রাসূল(সাঃ) বলেছেন যতই আমল থাকুক তোমরা কেই তার আমল দ্বারা মুক্তি পাবেনা এমন কি আমিও না, যদি না আল্লাহ রাব্বুল আলামিন তার বান্দার প্রতি রহম না করেন। আমি অবশ্যই আমার আল্লাহর সেই রহমতের আশা করি এবং পাশা পাশি অসংখ্য মুক্তির অপায় নিয়ে আমার মাবুদের দরবারে হাজির হতে চাই, যাতে কোন না কোন উপায়ে তিনি আমার মুক্তির ব্যবস্থা করে দেন।

তার কারণ আমি আল্লাহর আযাব কে ভয় করি, তার রহমতের আশাকরি।

ওয়ামা তাওফীক্কি ইল্লাবিল্লাহ।

ছবি: 
আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (2টি রেটিং)

প্রথমতঃ জান্নাতুল বাকিতে আমার রাসূল (সাঃ) এর পায়ের ধূলি, বরকতি হাতের পরশমাখা বালি আর বাকির পাশে দাঁড়িয়ে উনার মাগফিরাতের দোয়া কয়জনের নিসব এ আছে। তাছাড়া অসংখ্য নামী দামী সাহাবা, আশারায়ে মুবাশ্শারা সহ আছেন তাবেয়িন, তাবেতাবিয়িন আর স্পেশাল বনাজ হচ্ছে প্রতিদিন হাজারো তীর্থাথীর দোয়া এবং মসজীদে নববী থেকে বিশুদ্ধ-সুরললিত কোরানের ধ্বণী, যা কিনা মাগফিরাতের একটা অসীলা স্বরুপ আশাকরা যায়।


সত্য ভাই সকলের মন চাই।

প্রথমতঃ জান্নাতুল বাকিতে আমার রাসূল (সাঃ) এর পায়ের ধূলি, বরকতি হাতের পরশমাখা বালি আর বাকির পাশে দাঁড়িয়ে উনার মাগফিরাতের দোয়া কয়জনের নিসব এ আছে। তাছাড়া অসংখ্য নামী দামী সাহাবা, আশারায়ে মুবাশ্শারা সহ আছেন তাবেয়িন, তাবেতাবিয়িন আর স্পেশাল বনাজ হচ্ছে প্রতিদিন হাজারো তীর্থাথীর দোয়া এবং মসজীদে নববী থেকে বিশুদ্ধ-সুরললিত কোরানের ধ্বণী, যা কিনা মাগফিরাতের একটা অসীলা স্বরুপ আশাকরা যায়।


সত্য ভাই সকলের মন চাই।

আপনার লেখাগুলোর ওজন অনুভব করতে পারছি।
ধারাবাহিক দীর্ঘ হোক।

ভালো লেগেছে মদীনার ভালোবাসা লেখাটি।

-

"এই হলো মানুষের জন্য স্পষ্ট বর্ণনা ও হেদায়াত এবং মুত্তাকীদের জন্য উপদেশ।" [আলে-ইমরান: ১৩৮]

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (2টি রেটিং)