বেলজিয়াম, বুরকা ব্যান, চরমপন্থী ও মধ্যপন্থী

ইংল্যান্ডের ভোট আগাচ্ছে, আর নানা প্রশ্নে রাজনীতিবিদদের দলে ভাগ করে ফেলা হচ্ছে। গত সপ্তাহে সেরকম একটা প্রশ্ন ছিল, ক্ষমতায় আসলে বুরকা ব্যানের চেষ্টা করবে কি না সরকার। বিএনপি, রক্ষনশীল আর কট্টরপন্থী হিসেবে পরিচিত দলটার এক প্রতিনিধির নির্দ্বিধা জবাব ছিল--হ্যা অবশ্যই!

 ফ্রান্সে তো মাঝে মাঝেই বিতর্কের ঝড় উঠে নিকাব বুরকা নিয়ে।

 আর বেলজিয়াম... তর্ক বিতর্কের পালা সেরে পার্লামেন্টের ১৪১ জনের মধ্যে ১৩৯ জনের ভোটে সিদ্ধান্ত হয়ে গেল, বেলজিয়ামের রাস্তা ঘাটে, পার্কে, কোন পাবলিক জায়গায় 'চেহারা অস্পষ্ট হয়ে যায়' এমন কোন 'কাপড়' পরা যাবে না। আইনে বলা নেই, কিন্তু অলিখিত সত্য হচ্ছে, এই আইনের আওতায় পড়ছে একমাত্র মুখ ঢেকে বের হওয়া মুসলিম মেয়েরা।

 বেলজিয়াম রাস্তা দেখিয়ে দিল। এখন আস্তে আস্তে ফ্রান্স, জার্মানী, ইংল্যান্ড সে পথে যাবে কি না, তা সময়ই বলে দিবে। বুরকা আর নিকাব ব্যানের যৌক্তিকতা যাচাই করার সময় এখনই। তাই কীবোর্ডে হাত দেয়া। 

 লেখার সুবিধার্থে কিছু শব্দ ব্যাখ্যা করে নেই যেন পাঠক আর আমি একই শব্দ দিয়ে একই জিনিস বুঝিয়ে থাকি। হিজাব হচ্ছে শুধু মাথার স্কার্ফ, ওড়না ইত্যাদি, যাতে পুরা মুখ খোলা থাকে। আর বুরকা দিয়ে সারা শরীরের সাথে সাথে মুখের পুরাটুকুই বা কিছু অংশ ঢাকা থাকে। নিকাবে শুধু চোখদু'টো খোলা থাকে। বুঝার সুবিধার্থে ছবি দিলাম। তর্ক বিতর্কগুলো নিকাব আর বুরকা ব্যান নিয়েই, হিজাব ব্যানের কথা এখনও কেউ বলছে না।

 এখানে উল্লেখ্য যে হিজাব ব্যানের কথা হচ্ছে না মোটেই। হিজাবের সাথে একই দলে পরে যাবে খ্রীষ্টিয়ান নানদের মাথার কাপড়, রক্ষনশীল ইউরোপিয়ান বুড়িদের মাথার স্কার্ফ, শিখদের আর মুসলিমদের মাথার পাগড়ী, তারপর একে একে খ্রীষ্টিয়ান ক্রস, জুইশ টুপি ইত্যাদি। কিন্তু নিকাব বা বুরকা জিনিসটা মোটামোটি স্বতন্ত্র্য। অন্য কোন ধর্মে ধর্মীয় কারণে মুখ ঢাকার চল নেই। তাই এই আইনের আওতায় শুধু মুসলিম মেয়েরা, তাও সমাজের খুব অল্প একটা অংশ আটকা পরে যাচ্ছে।

 প্রথম যুক্তি দেয়া হচ্ছে নিরাপত্তা। যার মুখ ঢাকা থাকে, তাকে চেনা যায় না, তাই দেশের নিরাপত্তা হুমকির মুখে পরে যায়।

যুক্তিটা প্রথমে খুব ই যুক্তিযুক্ত শোনায়। কারণ, সাধারণ চিন্তা বলে, এটাই সবচেয়ে সহজ ছদ্মবেশ। কিন্তু, সত্য হলো: আজ পর্যন্ত পশ্চিমা বিশ্বে যত স্বন্ত্রাসী কাজকর্ম হয়েছে, তার কোনটাতেই বুরকা বা নিকাবে মুখ ঢেকে 'অপারেশনে' নামে নি আক্রমনকারীরা। বুরকা পড়লে সন্দেহ বাড়বেই, যারা সন্ত্রাসী তারা আর কিছু না হোক, ছদ্মবেশের উপর ভালোভাবে রিসার্চ করে নেয়, বুরকার মত এত সহজ ছদ্মবেশে ঢুকবে না।

 সব ধরণের ছদ্মবেশ থেকে দেশকে মুক্ত রাখার পরবর্তী ধাপ হতে পারে এরকম: বেলজিয়ামে ঢুকার সাথে সাথেই সবার দাড়ি গোফ কেটে পরিষ্কার করতে হবে। বেলজিয়ামের ভিসা পাওয়ার পূর্ব শর্ত হবে সাথে ক্লীন শেভড একটা ছবি থাকতে হবে। আফটারঅল, সব সন্ত্রাসী আর ক্রিমিনালরাই ছদ্মবেশের শুরু করে দাড়ি গোঁফ দিয়ে…

 দ্বিতীয় খুবই কমন কিন্তু একই রকম উদ্ভট যুক্তি হচ্ছে, নিকাব, বুরকা মেয়েদের জন্য অবমাননাকর। যেই মেয়েটা বুরকা পড়ছে, সে কি নিজের অস্তিত্ব নিয়ে বিব্রত? মুখ ঢাকতে হবে কেন? নিকাব আর বুরকার মত অপমান থেকে মেয়েদের বাঁচাতে রাষ্ট্রের হস্তক্ষেপ আবশ্যক।

 এই যুক্তিটা যারা দেয়, তারা বলে না, বেলজিয়ামে মাত্র ৩০ জন মেয়ে নিকাব পরে! 

ধরে নিলাম নিকাবে সেই ৩০ জনের নারীত্বের ভয়াবহ 'অবমাননা' হচ্ছে। কিন্তু তার চেয়েও অনেক বেশি সংখ্যক 'বেলজিয়ান' মেয়েরা প্রতিদিন আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজেদের প্রকৃতি প্রদত্ত চেহারা নিয়ে অশ্রুজল ঝরাচ্ছে। হাজার হাজার টাকা হাতে নিয়ে ছুটে যাচ্ছে কসমেটিক সার্জারী করে ভোঁতা নাককে খাড়া করতে, মোটা ঠোঁটকে চিকন করতে, নিচু বুককে উঁচু করতে আর উঁচু বুককে নিচু। মুখের কুঁচকানো চামড়াকে টেনে সোজা করতে। ব্রিটেনে প্রতি বছর ১ লক্ষ প্লাস্টিক সার্জারী হয়, আমেরিকায় ২০০৭ সালে ১২ মিলিয়ন প্লাস্টিক সার্জারী হয়েছিল। প্রতিদিন এর চেয়েও আরও অনেক বেশি মেয়ে ছুটছে চুলের রং, নখের রং, গায়ের রং, ভুরুর আকার বদলাতে। প্লাস্টিক সার্জারীর বিজ্ঞাপন হিসেবে একটা ওয়েবসাইটে লেখা:

"Cosmetic surgery is about perception and self esteem. The perception of looking and feeling good about your body image sends a signal to the world that you are confident and successful." (কসমেটিকপ্লাস্টিক ডট কো ডট ইউকে)।

 মহা আশ্চর্য হয়ে ভাবতে হয়, এত ভয়াবহ কথাগুলো স্পষ্ট করে বলার পরেও প্লাস্টিক সার্জারী আর বিউটি পার্লারের রমরমা ব্যবসার কিছুই হয় না, বেলজিয়ামের, ফ্রান্স আর ব্রিটেনের লক্ষ লক্ষ মেয়ে ছুরি কাঁচির যন্ত্রনা সহ্য করে যায় নিজেদের চেহারা নিয়ে 'লজ্জা' কাটাতে, আর দেশের মাত্র ৩০ জন মেয়ের চেহারা নিয়ে লজ্জাবোধ কাটাতে একেবারে পার্লামেন্টের আইন পাশ! বাহ!

 যারা উপরের যুক্তিটা দিয়েই নিজেদের ভুল বুঝতে পারেন, তারা নিজেদের শুধরে নেন নিচের যুক্তিটা দিয়ে: অনেক মেয়েকে জোর করে নিকাব পড়ানো হয়। বাবা, স্বামী বা ভাই, সোজা কথা পুরুষ আত্মীয়দের এই অন্যায় অবিচার থেকে মেয়েদের রক্ষা করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব।

 এই যুক্তির সাথে আমি পুরাপুরি একমত। আমার এক বিন্দু দ্বিমত নেই সত্যি।

 যেই মেয়েদের জোর করে, ইচ্ছার বিরুদ্ধে নিকাব পড়ানো হয়, বুরকায় আবৃত করা হয়, তাদের মুক্তির দায়িত্ব অবশ্যই সরকারের।

 কিন্তু বুরকা ব্যান কি আসলেই সমস্যার সমাধান? যেই মেয়েরা মুখ থেকে একটা পাতলা কাপড় সরাতে পারে না পুরুষ আত্মীয়দের ইচ্ছার বিরুদ্ধে গিয়ে, বুরকা ব্যান করলেই কি ওদের মুক্তি হবে? না। তখন সেই পুরুষ আত্মীয়রা তাদের 'সম্মান' আর 'ধর্ম' রক্ষার খাতিরে তাদের ঘর থেকেই বের হতে দিবে না। বুরকা পড়ে ঘর থেকে বের হওয়ার স্বাধীনতাটুকু তো ওরা অন্তত: ভোগ করতে পারত, প্রয়োজনে সরকারী বেসরকারী সংস্থাগুলোর সাহায্য নিতে পারত, বেলজিয়ান সরকার সেই পথটুকুও সেঁটে বন্ধ করে দিল।

 আর নারী আন্দোলন, আর নারী মুক্তির কথা যারা বলে, তারা কিভাবে এই আইনকে সমর্থন করছে, যেখানে পশ্চিমে বেশির ভাগ নিকাব পরিহিতাই নিজের ইচ্ছায়, জেনে বুঝে নিকাবকে গ্রহন করে? আমি সিডনীতে মাত্র দুইজন নিকাবীকে চিনি। এদের দুইজনই টিনেজ থাকা অবস্থায় ইসলামে এসেছে। একজনকে নিয়ে একবার লিখেছিলামও। এরা অধিকার সচেতন, আত্মসচেতন, আত্মবিশ্বাসী, সফল, বুদ্ধিমতী মেয়ে। নিকাব ওদের নিজেদের বেছে নেওয়া। ওদের কাছ থেকে নিকাবের অধিকার কেড়ে নেওয়া মানে হচ্ছে একটা মেয়ে যা 'উম্মোচন' করতে চাইছে না, তা উম্মোচন করতে তাকে বাধ্য করা। নিকাব দিয়ে শুরু এই আধুনিক বর্বরতা।

 একটা আইন করার আগে ভবিষ্যতে এর প্রভাব কি পরতে পারে, সেটা ভাবতেই হবে। অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের মত মানবাধিকার সংস্থাগুলো বেলজিয়ামের নিকাব ব্যানের বিরোধিতা করেছে, প্রতিবাদ করেছে, সুদূরপ্রসারী ঋনাত্মক প্রভাবের ভয়ের কথা জানিয়েছে। চিন্তা করে দেখুন, ফেইথ মরিসদের যখন রাষ্ট্রীয় ভাবেই আইনের রক্ষকেরা যখন ওদের পথে ঘাটে, পার্কে আইনের দোহাই দিয়ে মুখ খুলতে বাধ্য করে অপমান করবে, তখন সাধারন মানুষেরা কি করবে? বর্ণবাদী, রেইসিস্ট, অজ্ঞ মানুষের কি অভাব আছে, যারা আইনকে নিজের মত করে ব্যাখ্যা করবে? সরকার যেখানে নিজেই বলে দিচ্ছে মুখ ঢাকতে হলে সেই দেশের মাটিতে জায়গা হবে না, সেই মানুষগুলোর প্রতিক্রিয়া তখন কেমন হবে? বিবিসির একটা অপিনিয়ন পোলে একজন বেলজিয়ান আইনের সার্থকতা যাচাই করেছিলেন এক বাক্যে: 

"This law will offend those who want to wear headscarves, crucifixes or other symbols of their religion, and only benefit those who are somehow offended by seeing the symbols of other people's beliefs in public."

'...   এই আইনটা শুধু তাদের উপকারে আসবে যারা অন্যদের বিশ্বাসের প্রকাশ্য চিহ্ন দেখতে অস্বস্তি বোধ করে'। 

দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধে ছয় লাখ ইহুদীকে ধুঁকে ধুঁকে মারার প্রক্রিয়াটা একদিনে শুরু হয় নি। দীর্ঘদিন ধরে জার্মানদের বুঝানো হয়েছে, ইহুদীরা পঁচা, ওদের জার্মানীতে থাকার অধিকার নেই। আস্তে আস্তে একদিন ইহুদীদের থাকার জায়গাগুলোর চারপাশে দেয়াল তুলে দেয়া হলো। ইহুদীদের গায়ে হলুদ রঙের তারা ঝুলিয়ে ঘুরতে হতো, সীল ছাপ্পড় দেয়া জন্তুর মত। ইউরোপ এই ভয়াবহ গণহত্যার সাক্ষী, তাই একটা জাতিকে কিভাবে সেই পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া হয় সেটা ইউরোপ খুব ভালো বুঝে।

তারপরেও, মানুষ বার বার ইতিহাসের নিদারুণ ভুল চক্র ধরে হাঁটতে থাকে।

ছবি: 
আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.3 (4টি রেটিং)

খুব সম্ভবত মুসলিমদেরও একটা বিরাট অংশ নিকাবের বিরোধী। ফলে এ ধরনের আইন করতে ওদের অসুবিধা হচ্ছে না।

তবে কনট্রাস্টটা খুব চোখে পড়ে..... একদিকে প্রচন্ড রকমের বেলেল্লাপনা, অন্যদিকে পুরো শরীর আবৃত রাখা। মধ্যমপন্থায় বোধহয় উৎকৃষ্ট। কিন্তু বিষয়গুলো এমন এটাকে মোটেই আইন করে সীমারেখা ঠিক করা উচিত নয়। যে যেটা দ্বারা কনভিন্স থাকবেন তারা সেটাই ফলো করবেন। অন্যরা যখন আমাদের ফিকহি ব্যাপারগুলোকে ঠিক করতে আইন করে দেয় সেইটা তো কষ্টকরই।

-

বিনয় জ্ঞানীলোকের অনেকগুলো ভাল স্বভাবের একটি

এটা আমার খুব দু:খজনক লাগে যে মুসলিমরা এটার বিরুদ্ধে কিছুই বলে না। অন্তত: এতটুকু তো বলতে পারে, এটা একটা ভিন্ন ইন্টারপ্রিটেশন, আমি সেই ইন্টারপ্রিটেশন ফলো করি না, কিন্তু সেই ইন্টারপ্রিটেশন ফলো করার স্বাধীনতা থাকতেই হবে! 

অবশ্যই থাকতে হবে। প্রতিবাদ করা উচিত!

-

বিনয় জ্ঞানীলোকের অনেকগুলো ভাল স্বভাবের একটি

এখন নিকাব ব্যান করেছে, এভাবে একটা উদ্ভট আর খোঁড়া যুক্তিতে ভরা আইন পাশ হয়ে গেল। এরকম মগের মুল্লুকীয় আইন পাশ করতে থাকলে, এক সময় 'উদারপন্থী' মুসলিমেরাও কোণঠাশা হয়ে যাবে। রেসিজম একটা ভয়ংকর ব্যাপার, গোঁড়াতেই বন্ধ না করে দিলে বিষ ছড়াতেই থাকবে। 

আপনার লেখার স্টাইল ও ভাষা প্রয়োগ ভাল লাগে যদিও বিষয়বস্তুর সাথে সবসময় একমত হতে পারি না।

-

বজ্রকণ্ঠ থেকে বজ্রপাত হয় না, চিৎকার-চেঁচামেচি হয়; অধিকাংশ সময় যা হয় উপেক্ষিত।

যে বিষয়বস্তুগুলো নিয়ে আপনি একমত নন, সেগুলো তুলে ধরলে আমরাও আলোচনায় অংশ নিতে পারতাম। Smiling

ভালো লেগেছে লেখাটা। শুধু ছোট্ট একটি কারেকশন: হিজাব ব্যান করা নিয়েও কিন্তু ইউরোপের বিভিন্ন দেশে বেশ বিতর্ক হচ্ছে এবং হয়েছে। ফ্রান্সে কিছু কিছু জায়গায় হিজাব ব্যান করা হয়েছে, তুরস্কে তো হিজাব ইস্যু নিয়ে সরকারের সাথে আদালতের রীতিমত যুদ্ধ হয়ে গেল (এবং আপাতত আদালত জয়ী)।

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.3 (4টি রেটিং)