বছরের সেরা দিনগুলো আসছে আবারও...

 সামহোয়ার ইনে ইসলাম সম্পর্কে আমার জ্ঞান নিয়ে যেভাবে কনফ্রন্টেড হয়েছিলাম আসার একেবারে দ্বিতীয় দিন, সেরকম আগে কোথাও হই নি। এক সময় খুঁজে খুঁজে যখন ইসলাম নিয়ে কিছু বলা হলেই জবাব দেয়া শুরু করলাম, তখন আস্তে আস্তে বুঝতে পারছিলাম, আমি কত কম জানি! 

একদিন তর্কাতর্কির মাঝেই হঠাৎ থমকে গেলাম এক অদ্ভূত উপলব্ধিতে... কুরআনটা আমার তখনও পর্যন্ত নিজের ভাষায় আগা গোড়া পুরাটা একবারে পড়া হয় নি! খতম করেছি তো ছোটবেলা, সে তো আছে। এখান থেকে সেখান থেকে দারস পড়েছি, ব্যাখ্যা শুনেছি, অনুবাদ পড়েছি, কিন্তু কি আশ্চর্য, যেই আমি হাজার পৃষ্ঠার সুনীল কিংবা তার চেয়েও মোটা গন উইথ দ্যা উইন্ড পড়ে ফেলতে পারি এক সপ্তাহে, সেই আমি জীবনের প্রায় দুই দশক পার হয়ে ফেলেছিলাম কুরআনের মাত্র ছয় হাজার শব্দ আগা থেকে গোড়া রিডিং না পড়েই! অদ্ভূত লজ্জা নিয়ে কুরআনের অনুবাদ পড়া শুরু করেছিলাম সেই রমজানে, কয়েক বছর আগে। শুরু থেকে একটু একটু আরবির সাথে অনেক বেশি করে অনুবাদ পড়া শুরু করলাম প্রতিদিন। আর সে কি বিষ্ময়! কুরআনে অনেক কিছু এত সুন্দর ভাবে বলা আছে, যেটা আমি আগে কখনও শুনি নি! যেমন-- সূরা বাকারায় আল্লাহ যখন মুসলিমদের কাবার দিকে ফিরে নামাজ পড়ার নির্দেশ দিচ্ছেন, তখন কি সুন্দর করে বললেন, "অবশ্যই নির্বোধ লোকেরা বলবে, “এদের কি হয়েছে, প্রথমে এরা যে কিব্‌লার দিকে মুখ করে নামায পড়তো, তা থেকে হাঠৎ মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে?  হে নবী! ওদেরকে বলে দাও, “পূর্ব ও পশ্চিম সবই আল্লাহর ৷ আল্লাহ যাকে চান তাকে সোজা পথ দেখান।"... প্রথমে যে দিকে মুখ করে তুমি নামায পড়তে , তাকে তো কে রসূলের অনুসরণ করে এবং কে উল্টো দিকে ফিরে যায় , আমি শুধু তা দেখার জন্য কিব্‌লাহ নির্দিষ্ট করেছিলাম।"(সূরা বাকারা: ১৪২ ও ১৪৩ এর কিছু অংশ)।

ব্লগে কত তর্ক করেছি যখন কাবার দিকে মুখ করে নামাজ পড়া নিয়ে লেখাগুলো আসতো, কিন্তু আমি যত কিছু বলেছি তার কিছু না বলে যদি এই দুইটা আয়াত বলে দিতাম, তাহলে সব বলা হয়ে যেত! আল্লাহ তো নিজেই বলছেন তিনি সব দিকে আছেন, কিন্তু তবু তিনি চান আমরা কাবার দিকে ফিরে নামাজ পড়ি শুধু মাত্র পরীক্ষা করার জন্য যে কে তাঁর কথা শুনে!

গত রমজানে মোবাইলেই আস্ত কুরআনটা  ঢুকিয়ে নিয়েছিলাম। খুব ব্যস্ত ছিলাম তখন অনার্স ফাইনাল নিয়ে। ইউনিতে যাওয়ার পথে ট্রেইনে কিংবা ল্যাবে এক্সপেরিমেন্টের ফাঁকে ফাঁকে আইপডে আরবি কুরআন শুনতাম আর সাথে সাথে ইংরেজি অনুবাদ পড়ে নিতাম মোবাইল থেকে। মুহাম্মদ (সা) এর কাছে কুরআন লিখিত ভাবে আসে নি, তাই কানে শুনাটা খুব গুরুত্বপূর্ণ মনে হচ্ছিল আমার। ঠিক যেভাবে তিনি শুনেছিলেন চোদ্দশ বছর আগে, সেভাবে শুনতে চাচ্ছিলাম! তাছাড়া যেই লিংক দিলাম, মিশারী রাশিদ আল আফাসের, ওঁর কুরআন শোনার অভিজ্ঞতাই অন্যরকম। কুরআন পড়ার সময় তিনি সুর বদলান, যেখানে ভালো লাগার কথা সেখানে একরকম, যেখানে ভয়ের কথা, সেখানে আরেক রকম। ছয় বছর আগে প্রথম ওনার তেলওয়াত শোনার আগ পর্যন্ত আমাকে কুরআন তেলওয়াত তেমন টানতো না! চ্যালেঞ্জ করলাম, একবার শুনে দেখেন! 

গত রমজানে পড়া একটা আয়াতের কথা এখনও মনে আছে... কুরআনে আল্লাহ বলেছেন কোন মেয়ের সত্বীত্তের ব্যাপারে মিথ্যা অপবাদ দেয়ার শাস্তি হচ্ছে আশি দোররা এবং অপবাদদানকারীকে সারা জীবনের জন্য মিথ্যাবাদী ঘোষণা দেয়া  (সূরা নূর: ৪)। শুধু তাই না, যারা শুধু অন্য জনের মুখে শুনে এই কথা আরেকজনকে বলে, তার ব্যাপারেও ভীষণ কঠিন সব কথা! ভীষণ রকমের অবাক হয়ে গিয়েছিলাম আয়াতটা পড়ে! বার বার পড়লাম! একটা মেয়ের ব্যাপারে একটা কথা উঠতে পারলেই হয়েছে, সত্য হোক মিথ্যা হোক, মেয়েটার সারা জীবন ধ্বংস হয়ে যায়.. এরকম ৮০% মুসলিমদের দেশে, প্রায় প্রতি বাড়িতে একটা করে কুরআন থাকা সত্ত্বেও! কি আশ্চর্য, মেয়েদের জন্য এত গুরুত্বপূর্ণ আয়াত আমি প্রথম শুনেছি/উপলব্ধি করেছি জীবনের দুই যুগ পার হয়ে যাওয়ার পরে!!! কি ভয়াবহ লজ্জা!!! তাও আমার হাতের কাছেই কুরআন থাকে, জ্ঞানের একসেস এত বেশি, তবুও! বাংলাদেশের যেই নিরপরাধ মেয়েগুলো মুখ বুজে দোররা খেয়ে যাচ্ছে, তাদের হাতে কি কেউ একটা করে কুরআন তুলে দিতে পারে না যুদ্ধ করার জন্য! 

রমজানে, বছরের সেরা দিনগুলোতে আল্লাহ কুরআন পাঠিয়েছিলেন আমাদের জন্য। প্রতি রমজানে তাই একটু একটু চেষ্টা করি কুরআন সম্পর্কে আরেকটু জানার। যত জানি, তত মুগ্ধ হই। 

এবার মিফরার কাছ থেকে দারুণ একটা আইডিয়া পেলাম। মিফরা কুরআন পড়বে কুরআন ঠিক যেভাবে এসেছে, সেভাবে। আমাদের কাছে এখন যেভাবে কুরআন আছে, সেভাবে কুরআন রাসুল (সা) এর কাছে আসে নি। অনেক সূরাই আগে পিছে, রাসুল (সা) সেটা পরে সাজিয়ে দিয়েছেন আল্লাহর নির্দেশে। সূরা ফাতিহা এসেছে অনেক পরে, কিন্তু একেবারে প্রথম সূরা এখন। সূরা আলাক এসেছে একেবারে প্রথমে, কিন্তু এখন একেবারে শেষের দিকে। কুরআন যেই অর্ডারে এসেছে, সেই অর্ডারে কুরআন পড়লে ঠিক কিভাবে ইসলাম রাসুল (সা) এর কাছে এসেছিল, সেই ধারণাটা পরিষ্কার হতে পারে অনেক। কুরআন নাজিলের অর্ডারটা পাওয়া যাবে এখানে  । 

অনেক সময় কুরআন পড়তে গেলে খুব রিপিটিটিভ ঠেকে, মনে হয় একই কথা তো পড়ে এসেছি দশ পাতা আগেও! কিন্তু সেই কথাটা কেন আল্লাহ আরেকবার বলছেন দশ পাতা আগে, সেটা যদি জানা যায় কুরআনের ব্যাখ্যা পড়ে, তাহলে নিজেরই মাথায় বাড়ি দিতে ইচ্ছা করে স্রেফ পুনরাবৃত্তি ভাবার জন্য! ইবনে কাসিরের তাফসীরের বাংলা অনুবাদ কেমন আমি জানি না। আপাতত আমি ইবনে কাসিরের ইংরেজি অনুবাদ পড়ছি, যত পড়ছি, ততই মুগ্ধ হচ্ছি! 

আরেকটা জিনিস আমার হয়তো এই রমজানে ধরা হবে না, কিন্তু খুব ইচ্ছা আছে কখনও শুরু এবং শেষ করার! এই ওয়েবসাইটে মাত্র কয়েক শ' শব্দ আছে, যেগুলো শিখলে কুরআনের ৮০% শব্দ শিখা হয়ে যাবে (কারণ কুরআনে একই শব্দ অনেকবার এসেছে)! আমি ভাবতেও পারি না, যেই কুরআন যুগ যুগ ধরে আমরা মাটিতে ছুঁতে দেই নি, সবচেয়ে উঁচু শেলফে রেখে দিয়েছি, ওজু ছাড়া ছুঁয়েও দেখিনি, সেই কুরআনের ৮০% শুধু মাত্র পড়েই বুঝে ফেলার অনুভূতি কেমন হবে! কিন্তু সত্যি, খুব ইচ্ছা করে সেই অভিজ্ঞতা পাওয়ার... Sad:(:(। 

বছরের সেরা দিনগুলোর আসতে মাত্র এক সপ্তাহ বাকি... যখন ছোট ছিলাম, তখন রোজা আসত আর যেতো, না খেয়ে থাকার একসাইটমেন্ট আর ঈদের নতুন জামার আনন্দের চেয়ে বড় কিছু রমজান থেকে পাই নি। আস্তে আস্তে যখন জানলাম, এটা শুধু 'রমজান' না, বছরের সেরা দিনগুলো... তখন দিনগুলো চলে গেলে ভীষণ বিষণ্নতায় ভুগতাম। কেন জানেন? এই দিনগুলোতে শয়তানগুলো বন্দী থাকে সব। কিন্তু কি আশ্চর্য, শয়তানের অনুপস্থিতিতেও আমার কাজে, চিন্তায়, মেজাজে বড় সড় ধরণের কোন পরিবর্তন আসতো না! যখন ভিতরে চোরা ভয়টা ঢুকে যাওয়া শুরু করলো, শয়তানটা আসলেই হয়তো আমার মনটাকে ইচ্ছে মত বাগিয়ে নিয়েছে, তখন থেকেই ঈদের দিন যত আগাতো তত বেশি বিষণ্নতায় ভুগতাম! 

এবার ভীষণ ইচ্ছা ঈদের দিন জোরে সোরে একটা 'আলহামদুলিল্লাহ' বলা... এই সুন্দর মাসের পূর্ণ সদ্ব্যবহার করে তারপরে। পারব কি না জানি না!!! 

মিফরা মেয়েটা থেকে আরেকটা আইডিয়া পেয়েছি, এটা বলে শেষ করছি। রমজানে দোআ কবুলের সময়ের ছড়াছড়ি। রোজা রাখলে ইফতারে আগে দোআ কবুলের সময়, তারাবীর পরে, সেহেরীর আগে, শেষ দশ দিনের রাতগুলোতে। এই সময়গুলোতে আল্লাহর কাছে হাত তুলে কিছু চাইলে সত্যি মনে হয় আল্লাহ শুনছেন! অসংখ্য প্রমান আছে আমার নিজের জীবনে, অসম্ভব সব কিছু চেয়ে দিব্যি পেয়ে গিয়েছি... এক বিন্দুও বাড়িয়ে বলছি না কিন্তু...। যারা ওই সময়গুলো মিস করছেন, তারা সত্যিই মিস করছেন... :|। 

মিফরা এবার বললো, যত যা কিছু আছে, একটা লিস্ট করে প্রতিদিন চেয়ে যাও। আল্লাহ যদি একদিন দোআ কবুল করেন, তাহলে বাকি ঊনতিরিশ দিনে কোন কারণে তোমার রোজা আল্লাহ পছন্দ না করলেও অসুবিধা নেই, ওই একদিনে তো দোআগুলো সব কবুল হয়ে যাবে! 

আইডিয়াটা সত্যিই খারাপ না! Smiling

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (8টি রেটিং)

লিঙ্ক গুলো অনেক কাজে লাগবে, ধন্যবাদ।

ইবনে কাসিরের বাংলা একটা অনুবাদ আছে সম্ভবত আকরাম ফারুকের করা, ভালোই লাগে। আমার সবচেয়ে ভালো লেগেছে কোরআনের ব্যক্ষা কোরআন দিয়ে করার পদ্ধতি, সাথে অন্যান্য মতামতের তুলনা মুল্ক আলোচনা। অবশ্য আমার দৌড় প্রথম খন্ড পর্যন্ত।

কোরআন ডাউনলোড করে নিয়েছি, দেখি মোবাইলে কাজ করে কিনা।

আমার অভিজ্ঞতা বলে, মাঝে মাঝে শিখে আরবী শেখাটা অনেক কঠিন। আমার টার্গেট আছে কিছুদিন মিডলইষ্টে চাকুরী করা... রথ দেখা কলা বেচা আর কি Smiling

প্রতিবার রমজানের আগে লম্বা লম্বা প্ল্যান করি, রোজা শেষে কতটুকু বাস্তবায়িত হলো তার  হিসাব করে দেখা যায় প্রায় কিছুই হয় নাই... Sad

অফটপিক একটা জিজ্ঞাসা ছিল, আপনি খুররম মুরাদের 'Early Hours' বইটার বাংলায় অনুবাদের নাম আর প্রাপ্তিস্থান জানাতে চেয়েছিলেন। সেটা জানতে পেরেছেন কি?

 

ঠিক একই কারণে ইবনে কাসিরের ব্যাখ্যা আমার এত ভালো লাগে... এত রেফারেন্স! মিডল ইস্টে চাকরি করলে অবশ্যই কাজ হবে, তবে কুরআনের আরবির জন্য মনে হয় তবু বিশেষ ট্রেনিং লাগবে! আমারও একই কান্ড হয়, কিন্তু প্রতি রমজানের মত এবারও রোজা শুরু হওয়ার আগে মনে হচ্ছে, পারব ইনশাআল্লাহ Smiling
না আমি পাই নি বইটার বাংলা নাম আর প্রাপ্তিস্থান। আপনি জানেন?

ক্লাস টেনে থাকা অবস্থায় আমি কুর'আন আগাগোড়া পুরোটা শেষ করেছিলাম তাফসীর [তাফহীম] সহ। এরপর আর কখনো পুরোটা পড়া হয়নি। উদ্যোগ নিয়েও বার বার ফেল করছি। ইবনে কাসির পড়া শুরু করেছিলাম। বাকারাটাও শেষ করতে পারিনি। অধ্যয়ন করা এবং মুখস্ত করার দন্দ্বে। এখন একটু বেশী বেশী মুখস্ত করার চেষ্টায় আছি।
খুররম মুরাদের "Way to the Qur'an" কুর'আন অধ্যয়নের জন্য ভাল গাইড। বাংলায় পাওয়া যায় "কুর'আন অধ্যয়ন সহায়িকা" নামে।
নীচের বলা কথাগুলো গুরুত্বপূর্ণঃ
===========
কি আশ্চর্য, মেয়েদের জন্য এত গুরুত্বপূর্ণ আয়াত আমি প্রথম
শুনেছি/উপলব্ধি করেছি জীবনের দুই যুগ পার হয়ে যাওয়ার পরে!!! কি ভয়াবহ
লজ্জা!!! তাও আমার হাতের কাছেই কুরআন থাকে, জ্ঞানের একসেস এত বেশি, তবুও!
===========
আমরা অনেক কিছুই খুঁজে বেড়াই এখানে সেখানে। কিন্তু হাতের কাছেই আছে তা। শুধু একটু যত্ন করে খুঁজে বের করা লাগে।
মুসলিম দেশগুলোতে লোকজন দুনিয়ার তামাম আদর্শের পেছনে ঘুরে নিজেদের সময়, শ্রম আর মেধার অপচয় করছে মানুষের শান্তির জন্য। অথচ, কুরআনের ধারে কাছেও ঘেষতে চায়না। প্রতিবার কুর'আন পড়ার পর মনে হবে নতুন কিছু আবিষ্কার করলাম। কুর'আন বুঝার জন্য কিছু সাহিত্য পড়লেও তাই হয়। আমি একবার পুরো কুর'আন পড়েছি তাফসীর সহ - আগেই বলেছি। এরপর যখন ইবন তাইমিয়ার [রহিমাহুল্লাহ] "উবুদিয়্যাহ" এবং "আক্বিদাহ ওয়াসিতিয়্যাহ" এবং "আল-ফুরক্বান বাইনা আউলিয়া আর-রহমান ওয়া আউলিয়া আশ-শায়তান" পড়া শুরু করেছি তখন মনে হয়েছে উনি যে সমস্ত আয়াতগুলো নিয়ে এসেছেন এগুলো আমার আগে পড়া হয়নি।  সুবহানাল্লাহ।
পোস্টের জন্য জাজ়াকিল্লাহ!

মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ। আমারও সেরকম মনে হয়। কিছু কিছু মানুষের বক্তৃতা শোনার সময় বিশেষ করে মনে হয়। মনে আছে ইয়াসির ফাজাগার একটা দুই দিনের কোর্সে গিয়ে কেমন লেগেছিল। উনি কুরআনের খুব পরিচিত সব আয়াত নিয়ে এসে এমন ভাবে ব্যাখ্যা করছিলেন, যে খুব আফসোস হচ্ছিল। মনে হচ্ছিল কুরআনের গভীরতা এত বেশি, আমি একটা আঙ্গুলও আজ পর্যন্ত ডুবাতে পারি নি, তাহলে পুরাপুরি ডুব দিতে কেমন লাগবে! 
খুররম মুরাদের বইটার ইংরেজি অনুবাদটা পড়েছি। ওনার সবগুলো বইয়ের মতই প্রতিটা লাইনই দাগিয়ে ফেলেছিলাম। 

গতকাল এ পোষ্টে একটা মন্তব্য লিখছিলাম, বেশ বড় হয়ে যাচ্ছিল, পরে মনে মনে এ মন্তব্যটিকে পোষ্টের আকার দেয়ার ভাবনা দানা বাঁধতে শুরু করেছিল। কিন্তু একসময় বিনা নোটিশে মজিলা ব্রাউজারটি বন্ধ হয়ে গেল, হারিয়ে গেল লেখাগুলো।

মাঝে মাঝে খুব ভাবনায় পড়ে যাই, 'কেন এই হারিয়ে যাওয়া?', কি কল্যাণ, অকল্যাণ লুকিয়ে আছে এই হারিয়ে যাওয়াতে, ইত্যাদি ইত্যাদি।

জীবনের প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তিগুলোকে আমাদের সীমাবদ্ধ জ্ঞানে বিচার করি বলে কখনো কষ্ট পাই আবার কখনো উল্লসিত হই। কিন্তু আসল সত্য ও নিগুঢ় রহস্য তো মহিয়ানের চিন্তায় রয়েছে। পাওয়া-না পাওয়ার এ হিসাব কখনও মেলাতে পারে আবার কাখনও মোটেই পারি না।

লেখাটি ভাল লাগলো।

-

আমার প্রিয় একটি ওয়েবসাইট: www.islam.net.bd

আমারও হিসাব মিলে না, কিন্তু খুব আশা করি যে যেই সময়ে মিলা দরকার সেই সময়ই মিলে যাবে! না হলে সত্যিই কোন হারানোরই কোন অর্থ থাকবে না‍! 

আমি ভাবছি লেখাটা বেশি সুন্দর না টাইটেলটা।

আচ্ছা এমন কোন সাইটের লিংক দিতে পারবেন যেখান থেকে খুব সহজেই কুরআনের বিষয় ধরে অনুসন্ধান করা সহজ হবে?

-

বিনয় জ্ঞানীলোকের অনেকগুলো ভাল স্বভাবের একটি

http://www.usc.edu/schools/college/crcc/engagement/resources/texts/muslim/search.html
আমি সব সময় এই সার্চ ইঞ্জিনটা ব্যবহার করি। এই ওয়েবসাইটে শুধু কুরআনের না, বুখারী আর মুসলিম শরীফেরও সার্চ ইঞ্জিন আছে! এটা আমার খুবই কাজে লাগে! 

অনেক ধন্যবাদ... লিংকটা কাজে লাগছে Smiling

-

বিনয় জ্ঞানীলোকের অনেকগুলো ভাল স্বভাবের একটি

রমজানের তারাবীতে কুরআনে যে তিলাওয়াত হয় সেটা অন্য সব সময়ের চাইতে যেন সর্বদা ভিন্ন।

-

আড্ডার দাওয়াত রইল।

> > > প্রতি শুক্রবার আড্ডা নতুন বিষয়ে আড্ডা শুরু হবে।

এই ব্লগের লিংক পাই ফেসবুকে। নেহায়েত কৌতুহল বশে এই লিখাটি পড়ার জন্য ক্লিক করলাম। সন্ধ্যাবাতির অসাধারণ এই লিখাটি পড়তে পড়তে এতটাই অভিভূত হয়ে যাই যে তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্ত নিলাম এই ব্লগে রেজিস্ট্রেশন করাতে হবে শুধু এই একটি লিখা প্রিয়তে রাখার জন্য। দীর্ঘ দুইদিন প্রচেষ্টার পর যখন লগইন করে এখানে এলাম, দেখি প্রিয়তে লিখা জমা রাখার কোনো অপশনই নাই। আমি পুরোপুরি হতাশ!!!!!!!!!!!Cry

-

নির্ঝরের স্বপ্নভঙ্গ

অনেক সম্মানিত বোধ করছি ভাইয়া/আপু। ব্লগ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করছি--শোকেজ তৈরি করা যায় কি?
ব্লগটা এখনও নতুন টাইপের, অনেক ইনফ্রাস্ট্রাকচারেই সমস্যা আছে, এজন্য এই ব্লগের একজন ব্লগার হিসেবে আমি দু:খিত :(। লিখতে শুরু করে দিন, হয়তো এখানকার অন্যরকম ফীচারগুলোই ভালো লাগতে পারে... 

আপনার দেয়া কুরআন তেলাওয়াতের লিংক সত্যিই অসাধারণ তেলাওয়াত।

সন্ধ্যাবাতি-কে আন্তরিক ধন্যবাদ এবং  অনেক ভাল লাগলো ব্লগে এসেই প্রথমে আপনার লেখাটি পড়ে। সামুতেও আপনার লেখা পড়েছি, কিন্তু সামুতে তো ভয়ঙ্কর,  মনে হয় কিছু ব্লগার থাকেই ওঁত পেতে ইসলাম সম্পর্কে কিছু দেখলেই কনফ্রন্ট করতে। তবে আসল কথা হল, যেটা আপনিও বলছেন যে, আমরা কত কম জানি!! আমরাই বড় অলস। Frown

ব্লগিংয়ের এই রোগটার কোন চিকিৎসা বোধ হয় এখনো আবিস্কার হয়নি।

রোগটা হলো- কিছুদিন অত্যন্ত আবেগ নিয়ে ব্লগিংয়ের পর ধীরে ধীরে আগ্রহ হারিয়ে ফেলা। Undecided

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (8টি রেটিং)