'আরমান সাইফুল' -এর ব্লগ

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসী বিভাগের (১৮ তম ব্যাচ ) মেধাবী ছাত্রী সামশাদ পারভিন অনুর চতুর্থ মৃত্যু বার্ষিকী নীরবে চলে গেল ..

২০১০
সালের ২৩ জানুয়ারী দুপুর ২.৩০ টার দিকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বুধপাড়া
এলাকায় মর্মান্তিক ট্রেন দুর্ঘটনায় ফার্মেসী বিভাগের (১৮ তম ব্যাচ ) মেধাবী
ছাত্রী সামশাদ পারভিন অনু দুনিয়া থেকে বিদায় নেয় । সেদিনের স্মৃতি অনেক
কষ্টদায়ক , সকাল থেকে এক সাথেই ক্লাস করছিলাম ; খুব সম্ভবত
ওর সর্বশেষ ক্লাসটা ছিল মারুফ আহমেদ স্যার এর । সেদিন স্যার সেকেন্ড
ইয়ারের ক্লাস নিচ্ছিলেন ; পড়াচ্ছিলেন TCA cycle । স্যার ক্লাসের মাঝে
জিজ্ঞেস করলেন , ক্লাসের ফার্স্ট কে ? ভয়ে ভয়ে দাঁড়িয়ে গেল কলি আক্তার ।
উত্তর পেরেছে কিনা ঠিক মনে নেই । তারপর স্যার ক্লাস শেষ করে চলে গেলেন ।
স্যার যাওয়ার সাথে সাথে অনু হাসতে হাসতে বলতে লাগল ''বুঝলি... একেই বলে
খ্যাতির বিড়ম্ভনা '' ।

সেদিন আমরা মোটেও বুঝতে পারিনি তার কয়েক ঘণ্টা পরে সে মারা যাবে । সদা প্রাণোচ্ছল মেয়েটি হারিয়ে গেল আমাদের মাঝ থেকে ।

ট্রেন দুর্ঘটনার পর সেখানে হাজির হলেন আমাদের সম্মানিত শিক্ষকমণ্ডলী । সে

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3 (টি রেটিং)

democracy নাকি demo crazy ?

২০০৮ সালে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠটার মাধ্যমে ক্ষমতায় আসে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ লিডিং মহাজোট সরকার । মানুষ অনেক আসায় বুক বেঁধেছিল দেশ এগিয়ে যাবে । কিন্তু "বেশি আশা ভালো না " গ্রাম্য মানুষের সেই কথাটিকে সত্যিতে পরিণত করল মহাজোট সরকার । সরকারের নেতিবাচক দিকগুলোর কথা না বলে মূল কথায় আসি ; সরকার সংখ্যাগরিষ্ঠতার বলে গায়ের জোরে বাতিল করল তত্তাবধায়ক  সরকার ব্যবস্থা ; যা এদেশের সাধারণ মানুষ মেনে নেয় নি , এমনকি আওয়ামীলীগের অনেক প্রবীণ নেতাও এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছিল । কিন্তু পদ হারানোর ভয়ে প্রকাশ্য প্রতিবাদ করে নি । গণভোটের ব্যবস্থা এদেশে নেই যদি থাকতো তাহলে সরকার বুঝত দেশের মানুষ তত্তাবধায়ক  সরকার ব্যবস্থা বাতিলের সিদ্ধান্তের কতোটা বিরোধী ।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

বাস্তবতার মুখোমুখি

31
dec , 2013 রাত নয়টার পর বাসে উঠলাম গন্তব্য স্থল রাজশাহী ; ঘণ্টা ছয়েক এর
পথ । ভাবলাম মহাসড়কে দুই - আড়াই ঘণ্টার জ্যাম মিলে ভোর রাতে গিয়ে পোঁছাবো ।
মাঝ রাস্তায় গিয়েও দেখি জ্যাম নেই । যেন আফসোস কারণ জ্যাম না হলে তো আমাকে অসময়ে গিয়ে পোঁছাতে হবে ।

সময় গড়িয়ে রাত সাড়ে তিনটা রাজশাহী বাস ষ্টেশনে পোঁছলাম । কোথায় যাবো এত
রাতে ; নিজ বাসায় এখনি গেলে হয়ত মাঝপথে টহল পুলিশ বা যৌথবাহিনীর সম্মুখে পড়বার ঝুঁকি আছে । কি দরকার অযথা ২ ঘণ্টার জন্য ঝামেলার ঝুঁকি নেয়া ।
তড়িৎ সিদ্ধান্ত নিয়ে চলে গেলাম বাস ষ্টেশনের পাশেই রাজশাহী রেল ষ্টেশনে ।

চারদিকে নিরবতা ,শুধু পিন পিন বাতাস কাঁপিয়ে দিচ্ছে ৫ ফুট ৬ ইঞ্চির এই
আদম বংশধরকে । যতই খিঁচুনি দিয়ে চাদর মুড়ি দেই ততই যেন ঠাণ্ডা বাড়ছে ।

ভূগোলিক অবস্থানের কারণে অন্যান্য অঞ্চলের তুলনায় রাজশাহীতে শীত বেশ ভালই পড়ে ।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.5 (2টি রেটিং)
Syndicate content