পৃথিবীর দিনগুলো: ১৮ এপ্রিল ২০১২

মানব চরিত্র সম্পর্কে একটু বেশীই আগ্রহ বোধ হয় আমার। তাই কারো সাথে প্রথম সাক্ষাতেই একটা সাময়িক হিসাব-নিকাষ সেরে নেই। হয়ত সবাই তাই করে। কিন্তু আমার প্রথম হিসাব-নিকাষের পরই একটা সিদ্ধান্তে পৌঁছে যাই যে, এর সাথে আমার কতদূর চলবে। বন্ধুত্বের এমন অনেক সিঁড়িয়ে পেরিয়েছি যেখানে পিছলে পড়তে হয়েছিল। সেই প্রশ্ন রেখেছিলাম- "ভালবাসায় কতভাগ অভিনয়?" -সে হিসেবে এসব বন্ধুত্বের ক্ষেত্রে অভিনয়টা ছিল একটু বেশী এবং পোক্ত। তাই প্রথম দর্শনে ধরা দেয়নি আসল পরিচয়। বহু সময় লেগেছে, কিন্তু হিসেব ঠিকই মিলেছে।

আরেকটা অভিজ্ঞতা ভাগাভাগি করতে পারি। বন্ধুত্ব, ভালবাসা যত গভীরই হোক, তাতে কিছু না কিছু অভিনয় থাকছেই। ঠিক কতটা অভিনয় আর কতটা ভালবাসা তা পরিমাপ করার জন্য একটা পদ্ধতি পেয়েছি। তা হলো ছোটখাটো অথবা মাঝারী আকারের একটা ঝগড়া হওয়া দরকার। তাতেই দেখা যাবে সঠিক তথ্যগুলো বেরিয়ে আসবে। জলের মত বেরিয়ে আসবে তাতে কোথায় কোন কোন পয়েন্টে আপনি তার কি কি ক্ষতি করেছেন অথবা করতে চেয়েছেন, কোন কোন ক্ষেত্রে তাকে ঠকিয়েছেন, কোথায় কোন দিন কতটা অবহেলা করেছেন ইত্যাদি ইত্যাদি। মোটামুটি আপনার সম্পর্কে সে যে ধারনা গুলো মনে মনে পোষণ করে সেসব উগলে দেবে রাগের মাথায়। আর এভাবেই খুব সহজেই দেখে নেয়া যায় বন্ধুত্বের নিখাঁদ রূপ।

হাঁ, এ ক্ষেত্রে শিক্ষারও কিন্তু বিশাল একটা সুযোগ রয়েছে। কারণ আপনার বন্ধু আপনাকে যে কথাগুলো এতদিন বলেনি, আজ রেগে গিয়ে বলে ফেলেছে। তাতে আপনি জানতে পারলেন তার কাছে আসলে আপনি কি এবং কতটুকু। ধরে নিলাম সবটুকু সঠিক নাইবা হলো, সঠিক নাও হতে পারে, কিন্তু নিজের বিবেচনায় আনা দরকার সবগুলো বিষয়। যেগুলো নিজের মধ্যে আছে, সেগুলোর সংশোধনের একটা সুযোগ এতে আসে। আর যেগুলো নাই সেগুলো যাতে না আসতে পারে আপন চরিত্রে, সে সম্পর্কেও সতর্ক হওয়া যায়। চিন্তাগুলো আজকাল এসব ক্ষেত্রেই ঘুরপাক খাচ্ছে বৈশাখী বাতাসের মত।

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)

সালাম

আপনাকে ধন্যবাদ, মন্তব্যে বলবো যে,

যে কেউ কারো সম্পর্কে ভাল ভাবে না জেনে, শুধু সন্দহ করে কোন অপরাধ চাপিয়ে দিলে তো এমনটি হওয়াই স্বাভাবিক, তবে  মানুষ অনেক সময় অনেক কিছু বাড়িয়ে বলেও মনে শান্তি পায়, এতে করে অপরাধ না করেও অপরাধী হওয়ার যে কষ্ট তা কিছুটা লাঘব হয়। যে সন্দহ করল তার এসব ভাবা উচিৎ

-

▬▬▬▬▬▬▬▬ஜ۩۞۩ஜ▬▬▬▬▬▬▬▬
                         স্বপ্নের বাঁধন                      
▬▬▬▬▬▬▬▬ஜ۩۞۩ஜ▬▬▬▬▬▬▬▬

সন্দেহ তো সন্দেহই। তবে বিচার-বিশ্লেষণে অনেক সময় দেখা যায় সন্দেহ সত্য হয়ে যায়।
কিন্তু এটা সত্য যে, জনে জনে এসব অবস্থা বিভিন্নরূপ হয়। তাই সবগুলোকে এক মাপেও ধরা যাবে না।

-

আমার প্রিয় একটি ওয়েবসাইট: www.islam.net.bd

সালাম

শুধুমাত্র সন্দেহের ভিত্তিতে কারো উপর অপরাধ চাপানো উচিৎ নয়, কারন আপনিই্ তো বলেছেন সব বিষয়কে একমাপেও ধরা যাবেনা। তাই এটা ভাবা উচিৎ যে, পৃথিবীর সবারই তাঁর নিজ চরিত্রে  আলাদা আলাদা গুণেগুণান্বিত থাকে, তাই একজনের জন্য আরেকজনকে দোষারোপ করা যাবেনা। এক ব্যক্তির জন্য এক শ্রেনীকে দোষারোপ করা যাবেনা। আর এক শ্রেনীর জন্য এক জাতিকে দোষারোপ করা যাবেনা।
সন্দেহ থাকলে সরাসরি জেনে নেয়াই ভাল। এতে করে অনেক পেরেশানি থেকে মুক্ত থাকা যায়।

ধন্যবাদ আপনাকে

-

▬▬▬▬▬▬▬▬ஜ۩۞۩ஜ▬▬▬▬▬▬▬▬
                         স্বপ্নের বাঁধন                      
▬▬▬▬▬▬▬▬ஜ۩۞۩ஜ▬▬▬▬▬▬▬▬

ঠিকই তো সন্দেহ করে কারো উপর দোষ চাপিয়ে, পরে যদি জানা যায় যে, সে, সে ধরনের নয় তবে বহুমুখী ঝামেলার আশংকা থাকে, আর যার সম্পর্কে সন্দেহ করা হল সে তো কষ্ট পেয়ে কিছু বলাটাই স্বাভাবিক, এতে করে সবচেয়ে ভাল হয় খোলাখুলি ভাবে জেনে নেয়া কার কি চরিত্র? কার কি পছন্দ? কে কি করতে বলতে ভালবাসে? দুরের লোক হলে তো সমস্যা কমই হয়, আর খুব কাছের হলে সমস্যা বেশী হওয়াই যথার্থ।

আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ

সন্দেহ থেকে বাঁচার জন্য সহজ উপায় হলো সম্পর্ককে স্বাভাবিক করে তোলা। ব্যাপারটা সবাই পারে না।

-

আমার প্রিয় একটি ওয়েবসাইট: www.islam.net.bd

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 5 (টি রেটিং)