কোরআন মানব রচিত কোন গ্রন্থ নয় বরং তা আল্লাহরই কালাম এবং রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সর্বশেষ্ঠ মুযেযা

প্রথম কারণঃ "এতদসম্পর্কে যদি তোমাদের কোন সন্দেহ থাকে যা আমি আমার বান্দার প্রতি অবতীর্ণ করেছি, তাহলে এর মত একটি সুরা রচনা করে নিয়ে এস। আর যদি না পার- অবশ্য তা তোমরা কখনও পারবে না, তাহলে সে দোযখের আগুন থেকে রক্ষা পাওয়ার চেষ্টা কর, যার জ্বালানি হবে মানুষ ও পাথর।" (বাক্বারাঃ ২৩, ২৪)

আরবের নেতৃস্থানীয় লোকগুলো কোরান ও ইসলামকে সম্পুর্ণ উৎখাত এবং রাসূল (সাঃ) কে পরাজিত করার জন্য সর্বশক্তি নিয়োগ করেছিল কিন্তু তারা এ সামান্য চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে সক্ষম হল না। তাই আল্লাহতা'লা ঘোষনা করেনঃ

"বলুন, যদি মানব ও জ্বীন এই কোরানের অনুরূপ রচনা করে আনার জন্য জড়ো হয়, এবং তারা পরষ্পরের সাহায্যকারী হয়; তবুও তারা এর অনুরূপ রচনা করে আনতে পারবে না।" (বনী ইসরাঈলঃ ৮৮)

দ্বিতীয় কারণঃ কোরআন কিছু গায়েবী সংবাদ এবং ভবিষ্যতে ঘটবে এমন অনেক ঘটনার সংবাদ দিয়েছে, যা হুবহু সংঘঠিত হয়েছে। যেমন- রোম ও পারস্যের যুদ্ধে রোমকরা পরাজিত হওয়ার পর কোরআন ঘোষনা করেছে, কয়েক বছরের মধ্যে রোম পারস্যকে পরাজিত করবে। (সুরা আর রূমঃ ২- ৪)। এ আয়াত নাযিল হওয়ার পর মক্কার সর্দারগন হযরত আবু বকর (রাঃ) এর সাথে বাজী ধরে। শেষ পর্যন্ত কোরানের ভবিষ্যতবাণী অনুযায়ী রোম জয়লাভ করল এবং বাজীর শর্তানুযায়ী যে মাল দেয়ার কথা ছিল, তা তাদের দিতে হল। অবশ্য রাসূল (সাঃ) এ মাল গ্রহণ করেন নি। কেননা এরূপ বাজী ধরা শরীয়ত অনুমোদন করে না।

তৃতীয় কারণঃ কোরআনকে বারংবার পাঠ করলেও মনে বিরক্তি আসে না। বরং যত বেশি পাঠ করা হয় ততই তাতে আগ্রহ বাড়তে থাকে। দুনিয়ার যত ভাল ও আকর্ষণীয় পুস্তকই হোক না কেন, দু-চারবার পাঠ করার পর তা আর পড়তে মন চায় না।

চতুর্থ কারণঃ কোরআন ঘোষনা করেছে যে, কোরানের সংরক্ষণের দায়িত্ব স্বয়ং আল্লাহ গ্রহণ করেছেন। কেয়ামত পর্যন্ত এর মধ্যে বিন্দুবিসর্গ পরিমান পরিবর্তন- পরিবর্ধন না হয়ে তা সংরক্ষিত থাকবে। 

"নিশ্চয়ই আমি কোরআন নাযিল করেছি এবং আমিই এর নিশ্চিত রক্ষক।" 

(হিজরঃ ৯)

পঞ্চম কারণঃ কোরআনে এলম ও জ্ঞানের যে সাগর পুঞ্জীভূত করা হয়েছে, অন্য কোন কিতাবে আজ পর্যন্ত তা করা হয়নি। ভবিষ্যতেও তা হওয়ার সম্ভাবনা নেই। এই সংক্ষিপ্ত ও সীমিত শব্দসম্ভারের মধ্যে এত জ্ঞান ও বিষয়বস্তুর সমাবেশ ঘটেছে যে তাতে সমগ্র সৃষ্টির সর্বকালের প্রয়োজন এবং মানবজীবনের প্রত্যেক দিক পরিপূর্ণভাবে আলোচিত হয়েছে। আর বিশ্বপরিচালনার সুন্দরতম নিয়ম এবং ব্যক্তিগত ও সমষ্টিগত জীবন থেকে সমাজ ও রাষ্ট্রীয় জীবনের নির্ভুল বিধান বর্ণিত হয়েছে। এছাড়াও জীব-বিজ্ঞান, উদ্ভিদ বিজ্ঞান, রাজনীতি, অর্থনীতি ও সমাজনীতির সকল দিকের পথনির্দেশ সম্বলিত এমন সমাহার বিশ্বের অন্য কোন আসমানী কিতাবে দেখা যায় না।

কোরআনের অনন্য বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে যথাযোগ্য বিস্তারিত আলোচনা সম্ভব না হলেও যতটুকু বলা হলো, এতেই সুস্থ বিবেকসম্পন্ন ব্যক্তিমাত্রই একথা স্বীকার করতে বাধ্য হবে যে, কোরআন আল্লাহরই বানী এবং  রাসূল (সাঃ) এর সর্বশ্রেষ্ঠ মু'জেযা।

(উৎসঃ মারেফুল কোরআন)

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4 (2টি রেটিং)

সালাম

ঠিক  বলেছেন  ।  আল্লাহ  আমাদের   কুরআন  বুঝতে  ও  সেই  অনুযায়ী  চলার  তওফীক  দিন ।

আমিন। পাঠ এবং মন্তব্যের জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। 

-

আবদুল আউয়াল

পূর্ববর্তী কিতাবসমূহ বিলুপ্ত বা পরিবর্তিত হয়ে যাওয়ার পিছনে কারণ ছিল, এগুলো সংরক্ষণের দায়িত্ব আল্লাহ মানুষের উপর (অর্থাৎ আলোমদের উপর) অর্পণ করেছিলেন। আরা তারা তা খেয়ানত করেছিল। অপরদিকে সর্বশেষ গ্রন্থ আল কোরআন আল্লাহ নিজেই সংরক্ষণের দায়িত্ব নিয়েছেন, তাই এ গ্রন্থ অটুট অবস্থায় আছে। কারো পক্ষে একে বিলুপ্ত বা রদবদল করা সম্ভব হয়নি।
তবে আমাদের মনে রাখতে হবে, কোরআন সংরক্ষণের দায়িত্ব আল্লাহ নিজে গ্রহণ করলেও একে গ্রহণ ও প্রচার করবার দায়িত্ব আল্লাহ কিন্তু মানুষের উপরই দিয়ে রেখেছেন। স্বার্থপর বা ধর্মবিরোধীরা কোরআনকে বিলুপ্ত বা পরিবর্তিত করতে পারবে না সত্য, কিন্তু তারা যেটুকু করতে পারে তাহল কোরআনকে ভুলিয়ে রাখা, মানুষকে কোরআন থেকে দূরে সরিয়ে রাখা। কোরআনকে পৃথিবী থেকে নাই করে দেয়া সম্ভব না হলেও মানুষের জীবন থেকে কোরআনকে দূরে সরিয়ে রাখা সম্ভব। মানুষকে কোরআন থেকে (অর্থাৎ কোরআনের জ্ঞান অর্জন করা থেকে এবং কোরআন অনুযায়ী আমল করা থেকে) দূরে রাখার জন্য কায়েমী স্বার্থবাদী সুযোগসন্ধানীরা এবং ধর্মবিদ্বেষীরা চেষ্টা করতেই পারে। অতএব, কোরআনকে নিজেদের মাঝে অর্থাৎ নিজেদের জীবনে ধরে রাখার জন্য আমাদেরকেই সচেষ্ট ও সজাগ থাকতে হবে।
কোরআন সংরক্ষণ করার দায়িত্ব আল্লাহর, কিন্তু কোরআন থেকে সুফল গ্রহণ করার (অর্থাৎ যে উদ্দেশ্যে আল্লাহ কোরআনকে নাযিল করেছেন সে উদ্দেশ্য নিজেদের জীবনে পূরণ করার) দায়িত্ব মানুষের।

সহমত জানাছি। পাঠ এবং সুচিন্তিত মন্তব্যের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। 

-

আবদুল আউয়াল

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4 (2টি রেটিং)