মানবতা বিরোধী অপরাধ তদন্ত সংস্থার প্রধান মতিনের একাত্তরের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা আলাউদ্দিন আহমেদ অভিযোগ করেছেন, একাত্তরে মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের তদন্তে গঠিত সংস্থার প্রধান আব্দুল মতিন মুক্তিযুদ্ধের সময় ইসলামী ছাত্রসংঘের কর্মী ছিলেন।  বিস্তারিত
এর আগে যুদ্ধাপরাধের বিচারের প্রস্তাবক ও তদন্ত সংস্থার প্রধানের ব্যাপারে দুটি প্রশ্ন শিরোনামে সামুর একটি  পোস্টে আমি লিখেছিলাম, ১৯৭১-এ মুক্তিযুদ্ধের প্রায় শেষপ্রান্তে যখন সকল বাংলাদেশী অফিসার পাকিস্তান সরকারের পক্ষ ত্যাগ করছে­ সেই অবস্খায় ওই বছরের ২৫ অক্টোবর আবদুল মতিন সহকারী জজ হিসেবে পাকিস্তান সরকারের চাকরিতে যোগ দেন। হানাদার বাহিনীকে হারিয়ে স্বাধীনতা পাওয়ার সম্ভাবনায় উন্মুখ জাতির সামনে আবদুল মতিনের সেই সিদ্ধান্ত নিয়ে অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন। এ রকম একজন ব্যক্তি যুদ্বাপরাধের বিচারে গঠিত ট্রাইব্যুনালের প্রধান তদন্ত কর্মকর্তা হিসেবে কতটুকু নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করতে পারবেন তা নিয়ে অনেকেই সংশয় প্রকাশ করেছেন।''

একজন প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তি হিসেবে তিনি মুক্তিযুদ্ধে অংশ না নিয়ে যাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ হচ্ছে তাদের অধীনেই চাকরিতে যোগ দেন। এটি শুধু নৈতিকতা বিরোধীই ছিল না, মানবতাবিরোধীও ছিল। অথচ আজ তিনি ১৯৭১ সালের মানবতাবিরোধী অপরাধের তদন্তে নিয়োজিত হয়েছেন।

আমার এ বক্তব্য সত্য প্রমাণিত হয়েছে উপদেষ্টা আলাউদ্দিনের বক্তব্য থেকে। ছাত্রসংঘ করার কারণে যদি নিজামী-মুজাহিদদের বিচার হতে পারে তাহলে তদন্ত সংস্থার প্রধান মতিন কেন পার পেয়ে যাবে?

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.7 (3টি রেটিং)

ভাল হয়েছে।

-

বজ্রকণ্ঠ থেকে বজ্রপাত হয় না, চিৎকার-চেঁচামেচি হয়; অধিকাংশ সময় যা হয় উপেক্ষিত।

মতিনের ফাঁসি চাই

motin k dore a din

-

godfather123

ছাত্রসংঘ করার কারণে যদি নিজামী-মুজাহিদদের বিচার হতে পারে তাহলে তদন্ত সংস্থার প্রধান মতিন কেন পার পেয়ে যাবে?

Sealed

ডিজিটাল সরকার তো দেখছি ডিজিটাল পাগলা!!!!!!!!!!!!!

মতিন ছাত্রসংঘের লোক এটা জানার পরও সরকার তাকে তদন্ত সংস্থার প্রধান হিসেবে নিয়োগ দিলো কেন? নাকি তাকে দিয়ে সুবিধা মতো রিপোর্ট তৈরি করা যাচ্ছে বলে তাকে ছাত্রসংঘের নেতা বানানো হচ্ছে?

এমনটি হওয়াই যৌক্তিক মনে হচ্ছে।

আজকের আরটিভিতে রোড টু ডেমোক্রেসীতে একজন শ্রোতা খুব সুন্দর একটা কথা বলেছেন। তিনি বলেছেন: আব্দুল মতিনকে নিয়োগ দিয়েছে যে বোর্ড তাদেরও বিচার করতে হবে।

আপনার কি মনে হয়? আব্দুল মতিন কি আসলেই সংঘের লোক ছিলেন? কিংবা তার কোনরূপ দরদজাতীয় ভূমিকা দেখেছেন নিজামী-মুজাহিদদের প্রতি?

মতিনকে বলির পাঠা বানানো হচ্ছে,যেমনটি করা হচ্ছে জামাত নেতাদের বেলায়। মতিন স্বাধীনতা যুদ্ধে ভূমিকা রাখেনি জানার পর তাকে কেন তদন্ত সংস্থার প্রধান বানানো হলো এ প্রশ্ন যৌক্তিক। হয়তো মতিন সরকারের ইচ্ছামত তদন্ত করতে রাজি হচ্ছে না তাই তাকে বাদ দেয়ার পলিসি হিসেবে তাকে ছাত্রসংঘের নেতা বানানো হচ্ছে। আওয়ামী লীগের দ্বারা সবই সম্ভব।

জাতির সামনে আরেকটি "মুলা" ঝুলিয়ে দেয়া হচ্ছে হয়ত।

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.7 (3টি রেটিং)