জামায়াতের যুদ্ধাপরাধী তালিকায় ৭৭ আওয়ামী লীগ নেতার নাম !

আওয়ামীলীগে যে যুদ্ধাপরাধী আছে তা নিয়ে কারো কোন সন্দেহ থাকার কথা নয়। কারণ ইতোমধ্যে পত্রিকায় এসেছে যে, 'নির্বাচিত সংসদ সদস্য হয়েও আওয়ামী লীগের যে ২৫ নেতা পাক হানাদার বাহিনীর সঙ্গে হাত মেলান'।  এছাড়া সাজেদা চৌধুরীসহ ৮৮জন এমএনএ পাকিস্তানের আস্থাভাজন ছিলেন এমন রিপোর্টও পত্রিকায় এসেছে। আওয়ামীলীগের বর্তমান ও সাবেক মন্ত্রীসভাতেও একাধিক যুদ্ধাপরাধী আছেন ও ছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে। কিন্তু তারপরও দলটি নিজ দলের যুদ্ধাপরাধীদের ব্যাপারে কোন কথা বলছে না। একাত্তরে সব ইসলামী দল ও কতিপয় বাম দল স্বাধীনতার বিরোধীতা করলেও সরকার কেবল জামায়াত নেতাদের বিচার করতে চাচ্ছে। এ অবস্থায় জামায়াত আওয়ামীলীগে আশ্রিত যুদ্ধাপরাধীদের ব্যাপারে কাজ শুরু করে। ২৮ এপ্রিল আমাদের সময়ে লেখা হয়, আওয়ামী লীগেও ছিল যুদ্ধাপরাধী! সেই তালিকা তৈরি করছে জামায়াত।  সেই তালিকা যে ইতোমধ্যে তৈরি হয়ে গেছে তার প্রমাণ আজকের ইত্তেফাকের এই খবর--

''যুদ্ধাপরাধী বিচার ব্যাহত করতে নাশকতামূলক কার্যকলাপ, জঙ্গি হামলার তথ্য এবং বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার সঙ্গে গ্রেফতারকৃত জামায়াত নেতাদের ছবি সম্বলিত পোস্টারসহ বিভিন্ন ধরনের অপপ্রচার চালানোর প্রোফাইল এখন গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের হাতে। জামায়াতের প্রচারণা কার্যক্রমের অফিসে তল্লাশি চালিয়ে এই প্রোফাইলসহ চাঞ্চল্যকর ঘটনার তথ্য প্রমাণ জব্দ করা হয়েছে। ঐ প্রোফাইলে জামায়াতের তৈরি করা যুদ্ধাপরাধীদের একটি তালিকা রয়েছে, যাতে আওয়ামী লীগের ৭৭ জন নেতার নাম রয়েছে। আওয়ামী লীগের এই নেতাদের ছবিসহ পোস্টার ছাপিয়ে তারা যুদ্ধাপরাধ বিচারের বিরুদ্ধে জনমত গড়ে তোলার কথা অপচেষ্টা চালাচ্ছিল। এই সকল কার্যক্রম বাস্তবায়নের জন্য প্রাথমিকভাবে ৬৬ লাখ টাকা ব্যয় করা হয় বলে গোয়েন্দা সূত্র জানায়। গত ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল (যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ট্রাইব্যুনাল) ও তদন্ত কমিটি গঠনের পর জামায়াতের পক্ষে এই প্রোফাইল তৈরি করা হয়। এই প্রোফাইলের কার্যক্রম ১ জুলাই থেকে বাস্তবায়ন হওয়ার কথা ছিল বলে গ্রেফতারকৃত জামায়াত নেতারা তদন্তকারী কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছেন।''  বিস্তারিত

ইত্তেফাকের এ রিপোর্টটি উদ্দেশ্যমূলক। জামায়াতকে ফাঁসানোর জন্যই যে এটি করা হয়েছে এ ব্যাপারে সন্দেহ নেই। তবে সবচেয়ে চাঞ্চল্যকর বিষয় হচ্ছে, জামায়াত আওয়ামী যুদ্ধাপরাধীদের তালিকা তৈরি করেছে। অবশ্য জামায়াতের তৈরি করা যুদ্ধাপরাধীর তালিকাটি রিপোর্টে দেয়া নেই। তালিকাটি জনসম্মুখে প্রকাশ করা হলে অনেক কিছু জানা যেত। অবিলম্বে তালিকাটি প্রকাশ করা হোক। যুদ্ধাপরাধী যে দলেরই হোক না কেন, তাদের পরিচয় সবার জানা দরকার। #

সামহোয়্যারইন ব্লগেও প্রকাশিত

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.3 (3টি রেটিং)

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4.3 (3টি রেটিং)