কিচ্ছা নয়..

ইতিহাসলদ্ধ জ্ঞান ও শিক্ষা কখনো কখনো মানুষের মন ও মগজে এক অব্যর্থ ব্যবস্থাপত্র হিসেবে কাজ করে থাকে। একারনেই ইতিহাসের যতটুকু অংশ শিক্ষা ও উপদেশের জন্য অত্যাবশ্যক কুরআন কারিমে ঠিক ততটুকু অংশই বিবৃত করা হয়েছে এবং কোথাও কোথাও প্রয়োজন ও পরিবেশ পরিস্থিতির দাবীতে পুনবার তা ব্যক্ত করা হয়েছে, মানব জাতিকে কিচ্ছা শোনানোর উদ্দেশ্যে নয়।

আর এটাতো জানা কথা যে, যে দায়িত্ব দিয়ে মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে পাঠানো হয়েছিল তা পুণতার চুড়ান্ত মনযিলে পৌছা অবধি এ কুরআন তার লক্ষ্য, উদ্দেশ্য ও চাহিদা অনুসারে ক্রমান্বয়ে অবতীর্ণ হয়েছে। অর্থাৎ কুরআনের প্রতিটি কথা ও আয়াত নাযিলের রয়েছে বিশেষ বিশেষ এবং আলাদা আলাদা প্রেক্ষাপট। সুতরাং কাহিনী বর্ণনায় ঘটনার সাংঘটনিক (Event) ধারাবাহিকতা অনুপস্থিত থাকাটা অস্বাভাবিক কিছু নয়।

কুরআনের এ বিশেষ বর্ণনা রীতিতে এ কথা স্পষ্ট হয়ে উঠে যে, এ গ্রন্থ কোন ইতিহাসের বই নয়, অতীত হয়ে যাওয়া লোকদের কাহিনী পরিবেশন করা কুরআনের লক্ষ্য নয়। বরং আসল উদ্দেশ্য, মানব জাতির সামনে শিক্ষা, উপদেশ ও দৃষ্টান্ত উপস্থাপন। 

অতএব “ইতিহাস বর্ণনায় কুরআন উল্টা পাল্টা করেছে” বা “আকর্ষণ বৃদ্ধির নিমিত্ত এতে ঐতিহাসিক কাহিনীর সন্নিবেশ ঘটানো হয়েছে” – এসব ধারণা করা ভুল ও অযৌক্তিক। 

আপনার রেটিং: None

Rate This

আপনার রেটিং: None